সংঘাতের দিকে নয়, সংলাপে আসেন: ডা. জাফরুল্লাহ
jugantor
সংঘাতের দিকে নয়, সংলাপে আসেন: ডা. জাফরুল্লাহ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১২ নভেম্বর ২০২২, ২১:৫৭:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, সংঘাতের দিকে না গিয়ে সংলাপের দিকে আসেন। সংলাপ ছাড়া এ দেশের মানুষের মুক্তি নেই। সংলাপ দেশকে সুশাসনের দিকে নিয়ে যাবে। বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ভাসানী অনুসারী পরিষদের উদ্যোগে শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ১৭ নভেম্বর মওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সরকারি ছুটি ঘোষণা করার দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় মওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকীকে জাতীয় দিবস ঘোষণার দাবি জানান জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমরা আপনার ভালো চাই; কিন্তু আপনাকেও নিজের ভালো চাইতে হবে। আপনি নিজের ভালো বুঝতে পারছেন না। দ্রুত বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসেন।’

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আওয়ামী লীগ একাধারে ১৫ বছর ক্ষমতায় আছে। অথচ মওলানা ভাসানীর প্রতি কখনো শ্রদ্ধা জানায়নি। আওয়ামী লীগ মওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকীকে জাতীয় দিবসের স্বীকৃতি দেবে না। কারণ এদের মন বড় নয়।

গতকাল (শুক্রবার) যুবলীগের সমাবেশ প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে মান্না বলেন, ‘দেশে এক কোটি মানুষের চাকরি নেই। দিন দিন মানুষ দরিদ্র হয়ে যাচ্ছে। সমাবেশে তিনি শুধু যুবলীগ নিয়ে কথা বলেছেন। মানুষের চাকরি নেই এ ব্যাপারে তিনি কোনো কথাই বলেননি।’

সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- দেশে আর কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না। এ প্রসঙ্গে মান্না বলেন, ‘চালের দাম ৮০ টাকা হয়ে গেছে। নিত্যপণ্যের দাম দিন দিন বাড়ছে। আগে এসব জিনিসপত্রের দাম কমান।’

ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলুর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন- জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি প্রমুখ।

সংঘাতের দিকে নয়, সংলাপে আসেন: ডা. জাফরুল্লাহ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১২ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, সংঘাতের দিকে না গিয়ে সংলাপের দিকে আসেন। সংলাপ ছাড়া এ দেশের মানুষের মুক্তি নেই। সংলাপ দেশকে সুশাসনের দিকে নিয়ে যাবে। বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানান তিনি। 

ভাসানী অনুসারী পরিষদের উদ্যোগে শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ১৭ নভেম্বর মওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সরকারি ছুটি ঘোষণা করার দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। 

এ সময় মওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকীকে জাতীয় দিবস ঘোষণার দাবি জানান জাফরুল্লাহ চৌধুরী। 

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমরা আপনার ভালো চাই; কিন্তু আপনাকেও নিজের ভালো চাইতে হবে। আপনি নিজের ভালো বুঝতে পারছেন না। দ্রুত বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসেন।’

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আওয়ামী লীগ একাধারে ১৫ বছর ক্ষমতায় আছে। অথচ মওলানা ভাসানীর প্রতি কখনো শ্রদ্ধা জানায়নি। আওয়ামী লীগ মওলানা ভাসানীর মৃত্যুবার্ষিকীকে জাতীয় দিবসের স্বীকৃতি দেবে না। কারণ এদের মন বড় নয়।

গতকাল (শুক্রবার) যুবলীগের সমাবেশ প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সমালোচনা করে মান্না বলেন, ‘দেশে এক কোটি মানুষের চাকরি নেই। দিন দিন মানুষ দরিদ্র হয়ে যাচ্ছে। সমাবেশে তিনি শুধু যুবলীগ নিয়ে কথা বলেছেন। মানুষের চাকরি নেই এ ব্যাপারে তিনি কোনো কথাই বলেননি।’

সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- দেশে আর কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না। এ প্রসঙ্গে মান্না বলেন, ‘চালের দাম ৮০ টাকা হয়ে গেছে। নিত্যপণ্যের দাম দিন দিন বাড়ছে। আগে এসব জিনিসপত্রের দাম কমান।’

ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলুর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন- জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন