‘মুম্বাই হামলার জন্য পাকিস্তানকে ক্ষমা চাইতে হবে’
jugantor
‘মুম্বাই হামলার জন্য পাকিস্তানকে ক্ষমা চাইতে হবে’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ নভেম্বর ২০২২, ২১:৪৬:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর ভারতের মুম্বাইয়ে তাজ হোটেল ও এর আশপাশে সন্ত্রাসী হামলা পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় মদদপুষ্ট ছিল বলে অভিযোগ করেছে ইসলামিক মুভমেন্ট বাংলাদেশ। এ ঘৃণ্য কর্মকাণ্ডের জন্য পাকিস্তানের ক্ষমা চাইতে হবে এবং ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছে দলটি।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সামনে ১৪ বছর আগে মুম্বাইয়ে জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণ ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের দাবিতে এক মানববন্ধনে দলটির নেতারা এ দাবি জানান।

দলটির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খায়রুল আহসান বলেন, ‘মুম্বাইয়ের তাজ হোটেলে হামলায় পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইসহ ইসলামি নামধারী জঙ্গিগোষ্ঠী জড়িত ছিল। ইসলাম কখনো অন্যের অধিকার কেড়ে নেয় না এবং কাউকে তা করতে উৎসাহিতও করে না।’

তিনি মুম্বাই হামলার সব ডকুমেন্ট প্রস্তুত করে আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য ভারত সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন- নেজামে ইসলাম বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাওলানা হারিসুল হক, মহাসচিব মুফতি আহসান উল্লাহ সালামি, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব আজম খান, ইসলামিক মুভমেন্টের যুগ্ম মহাসচিব মো. নাসির উদ্দিন, যুগ্ম মহাসচিব মুফতি রফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ মুসলিম জনতা পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা আজিজুর রহমান, ইসলামিক মুভমেন্টের যুগ্ম মহাসচিব মো. নূর ই হেলাল, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ হোসাইন আকন প্রমুখ।

‘মুম্বাই হামলার জন্য পাকিস্তানকে ক্ষমা চাইতে হবে’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর ভারতের মুম্বাইয়ে তাজ হোটেল ও এর আশপাশে সন্ত্রাসী হামলা পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় মদদপুষ্ট ছিল বলে অভিযোগ করেছে ইসলামিক মুভমেন্ট বাংলাদেশ। এ ঘৃণ্য কর্মকাণ্ডের জন্য পাকিস্তানের ক্ষমা চাইতে হবে এবং ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছে দলটি।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সামনে ১৪ বছর আগে মুম্বাইয়ে জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মরণ ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের দাবিতে এক মানববন্ধনে দলটির নেতারা এ দাবি জানান।

দলটির চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খায়রুল আহসান বলেন, ‘মুম্বাইয়ের তাজ হোটেলে হামলায় পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইসহ ইসলামি নামধারী জঙ্গিগোষ্ঠী জড়িত ছিল। ইসলাম কখনো অন্যের অধিকার কেড়ে নেয় না এবং কাউকে তা করতে উৎসাহিতও করে না।’

তিনি মুম্বাই হামলার সব ডকুমেন্ট প্রস্তুত করে আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মামলা করার জন্য ভারত সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন- নেজামে ইসলাম বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মাওলানা হারিসুল হক, মহাসচিব মুফতি আহসান উল্লাহ সালামি, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব আজম খান, ইসলামিক মুভমেন্টের যুগ্ম মহাসচিব মো. নাসির উদ্দিন, যুগ্ম মহাসচিব মুফতি রফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ মুসলিম জনতা পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা আজিজুর রহমান, ইসলামিক মুভমেন্টের যুগ্ম মহাসচিব মো. নূর ই হেলাল, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ হোসাইন আকন প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন