প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনে ওঠার সিঁড়ির উচ্চতা নিয়ে প্রশ্ন সুমনের (ভিডিও)

  যুগান্তর ডেস্ক ০৭ জুলাই ২০১৯, ১৪:১০ | অনলাইন সংস্করণ

প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনে ওঠার সিঁড়ির উচ্চতা নিয়ে প্রশ্ন সুমনের
সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন, ছবি: ফেসবুক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যে কত উপকার এনে দেয় জীবন ও সমাজে, তার অনন্য উদাহরণ দিয়ে যাচ্ছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

প্রতিনিয়তই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছুটোছুটি করে সামাজিক অবক্ষয়, জনজীবনের সমস্যার দিকগুলো নিয়ে ফেসবুক লাইভে হাজির হয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

সেই ধারাবাহিকতায় এবার প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনে ওঠার সিঁড়ির উচ্চতার বিষয়ে প্রশ্ন তোলে লাইভে এসে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

তিনি জানান, এমন উচ্চতায় ট্রেনে ওঠার সময় শিশু, নারী ও বৃদ্ধদের জন্য বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। এতে ট্রেনে ভ্রমণকারী শিশু, নারী ও বৃদ্ধদের প্রতিনিয়ত কষ্ট পোহাতে হচ্ছে। তার চেয়েও বেশি ভয়ানক বিষয় এই যে, যে কোনো সময় ঘটে যেতে পারে দুর্ঘটনা।

গত শুক্রবার রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ফেসবুকে লাইভে এসে এসব বিষয়ে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন ব্যারিস্টার সুমন।

ওই লাইভে এসে প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনে ওঠার সিঁড়ির দূরত্ব দেখিয়ে সুমন বলেন, ‘এই ট্রেনটাকে ব্রডগেজ বলা হয়। আমার প্রশ্ন হলো- প্ল্যাটফর্ম থেকে দূরত্ব বা উচ্চতা কত? ব্রিটিশ আমলের ট্রেনগুলো ছিল এমন। আপনারা (রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ) নতুন ট্রেন আনলেন কিন্তু প্ল্যাটফর্ম এখনও পুরনো।’

রেলস্টেশনে উপস্থিত লোকদের দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘প্ল্যাটফর্ম থেকে ট্রেনের উচ্চতা অনেক। কোনো স্টেশনে ট্রেনটি ৩ মিনিট থামে। সেই ৩ মিনিটে ৫০ জন মানুষ প্রায় এত উচ্চতায় ওঠা কি সম্ভব?’

রেলমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, ‘রেলমন্ত্রী, ট্রেন আপনি অনেক উঁচু বানিয়ে দিয়েছেন। আর প্ল্যাটফর্ম এখানে ব্রিটিশ আমলের রয়ে গেছে। আমি এখন কমলাপুর সেন্ট্রাল স্টেশনে। আর গ্রামের স্টেশনগুলোর অবস্থা তো আরও খারাপ। সেখানে ট্রেনে উঠতে তো রীতিমতো যুদ্ধ করতে হয়। বউ-বাচ্চা নিয়ে ওঠা একটা বেইজ্জতের কারবার।’

তবে রাতারাতি এর সমাধান হবে না জানিয়ে ব্যারিস্টার সুমন রেলমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানান, ‘এই প্ল্যাটফর্ম ট্রেনের সমান করতে কোটি কোটি টাকার দরকার পড়বে না। আশা করি রেলমন্ত্রীসহ সবাই এর প্রতি সদয় হবেন।’

এর আগে গত ৩০ মে ব্যারিস্টার সুমন স্টেশনের সামনে রেললাইনের ওপর বেড়ে ওঠা ঘাস কেটে পরিচ্ছন্ন করার অনুরোধ জানিয়ে ফেসবুক লাইভে এসেছিলেন।

এর পর দিনই (শুক্রবার) সেসব ঘাস কেটে পরিষ্কার করে ফেলে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

এ ছাড়া ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভেতরে চলে আসা একটি বিদুৎ খুঁটিকে কেন কর্তৃপক্ষ সরাচ্ছে না এমন প্রশ্ন রেখে লাইভে এসেছিলেন ব্যারিস্টার সুমন।

এমন ভুল স্থানে বিদ্যুৎ খুঁটি থাকায় সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে বলে তথ্য দেন তিনি। ওই লাইভের পর পরই সে খুঁটি সরিয়ে নেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×