এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে ভার্চুয়াল জগতে শোকের ছায়া
jugantor
এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে ভার্চুয়াল জগতে শোকের ছায়া

  সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক  

০৬ জুলাই ২০২০, ২২:১৭:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

এন্ড্রু কিশোর

ক্যান্সারের কাছে হার মেনে চলে গেলেন কিংবদন্তি সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর। জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, ডাক দিয়েছেন দয়াল আমারে, সবাই তো ভালবাসা চায়- এমন অনেক গান নিয়ে গত শতকের ৮০ দশক থেকে শুরু করে টানা দুই দশক বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে গানের জগতে ছিল তার রাজত্ব।

ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে নয় মাস ধরে ভুগছিলেন তিনি। বিদেশ থেকে চিকিৎসা নিয়ে ফিরে ছিলেন রাজশাহীতে চিকিৎসক বোনের বাড়িতে। সোমবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।

তার মৃত্যুতে ভার্চুয়াল জগতজুড়ে এখন শোকের ছায়া।

হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস দম ফুরাইলেই গানটি ইউটিউব থেকে শেয়ার দিয়ে দেশের জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতা মোস্তফা সারওয়ার ফারুকী তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘বিদায়, এন্ড্রু দা!’

লেখক ও গীতিকার ইশতিয়াক আহমেদ তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, অ্যান্ড্রু কিশোরের মৃত্যুর খবর আমি যেমন হুটহুাট করে ছড়িয়ে দিতে পারি না। তেমনি হুট করে মেনেও নিতে পারি না। এই যে গান, কপিরাইট, গীতিকারের সম্মাণ এসব নিয়ে এতো আলোচনা আমার কিছু গান বাজারে থাকার পরও আমি সেসবে আগ্রহ বোধ করি নাই।

তিনি আরও লেখেন, ‘আমি নিজেকে গানের শ্রোতাই ভাবতে ভালোবাসি। আমি তেমন এক নিমগ্ন শ্রোতা বাংলাদেশের এই কিংবদন্তীর। এতো মায়া ছড়াইয়া কী এইভাবে চলিয়া যাওয়া যায়? আজ থেকে আকাশকেও হয়তো কাছে মনে হবে। অ্যান্ড্রু কিশোরকে অনেক দূরে.. ‘

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইন্সটিটিউট ও সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. আশরাফুল হক তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘ভালোবাসার এক নাম আইয়ুব বাচ্চু, আরেক নাম এন্ড্রু কিশোর। চলে গেলো দুই তারা।’

খুলনার হেলাল আহমেদ নামের একজন ফেসবুক কমেন্টে লেখেন, ছোটবেলা থেকেই আমি বাংলা সিনেমার ফ্যান। আর সেই সঙ্গে বাংলা ছবির গানের পাগল ছিলাম। ছোটবেলায় যে গানগুলো শুনতাম তার বেশিরভাগ গানের গায়ক ছিলেন এন্ড্রু কিশোর। সে যুগের আলমগীর, সালমান শাহ, ওমর সানি, বাপ্পারাজ সহ অনেকেই এন্ড্রু কিশোরের গানের সাথে ঠোঁট মিলিয়েছে। বাংলাদেশের কিংবদন্তি গায়ক এন্ড্রু কিশোর।

রাজশাহীর সাংবাদিক হাসান আদিব তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ওপারে ভাল থাকুন প্রিয় কণ্ঠশিল্পী। প্রজন্মের পর প্রজন্ম আপনাকে স্মরণ করবে দৃঢ় বিশ্বাস!

চাঁদপুরের জসীম চৌধুরী নামের একজন ব্যবসায়ী লেখেন, যার গান শুনে আমরা বড় হয়েছি। যার গানের সুরের মূর্ছনায় হৃদয় ভরে যেতো। শিল্পীর এই মহাপ্রয়াণে আমরা ব্যথিত। শিল্পীর আত্মার শান্তি কামনা করি।

জামাল উদ্দিন বাবুল নামের একজন লেখেন, এমন কোনো ব্যক্তি নাই যে ওনার গান পছন্দ করে না। যেদিন থেকে বাংলা ছবি দেখা শুরু করেছি সেদিন থেকে এন্ড্রু কিশোর মনের মধ্যে গেঁথে গেছে।এমন সুরেলা কণ্ঠ আমরা প্রতিনিয়ত মিস করব।

ফরিদপুরের মোহাম্মদ শাহীন লেখেন, ‘আমরা একটা জাতীয় সম্পদ হারালাম’।

ঢাকার কামাল হোসাইন নামের একজন লেখেন, ‘কিংবদন্তীরা কখনো চলে যায় না, তারা তাদের কর্মের মাধ্যমে সর্বদা মানুষের মধ্যেও অবস্থান করে’।

এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে ভার্চুয়াল জগতে শোকের ছায়া

 সোশ্যাল মিডিয়া ডেস্ক 
০৬ জুলাই ২০২০, ১০:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
এন্ড্রু কিশোর
এন্ড্রু কিশোর। ফাইল ছবি

ক্যান্সারের কাছে হার মেনে চলে গেলেন কিংবদন্তি সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর। জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, ডাক দিয়েছেন দয়াল আমারে, সবাই তো ভালবাসা চায়- এমন অনেক গান নিয়ে গত শতকের ৮০ দশক থেকে শুরু করে টানা দুই দশক বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে গানের জগতে ছিল তার রাজত্ব।

ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে নয় মাস ধরে ভুগছিলেন তিনি। বিদেশ থেকে চিকিৎসা নিয়ে ফিরে ছিলেন রাজশাহীতে চিকিৎসক বোনের বাড়িতে। সোমবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।  

তার মৃত্যুতে ভার্চুয়াল জগতজুড়ে এখন শোকের ছায়া।

হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস দম ফুরাইলেই গানটি ইউটিউব থেকে শেয়ার দিয়ে দেশের জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতা মোস্তফা সারওয়ার ফারুকী তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘বিদায়, এন্ড্রু দা!’

লেখক ও গীতিকার ইশতিয়াক আহমেদ তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন,  অ্যান্ড্রু কিশোরের মৃত্যুর খবর আমি যেমন হুটহুাট করে ছড়িয়ে দিতে পারি না। তেমনি হুট করে মেনেও নিতে পারি না। এই যে গান, কপিরাইট, গীতিকারের সম্মাণ এসব নিয়ে এতো আলোচনা আমার কিছু গান বাজারে থাকার পরও আমি সেসবে আগ্রহ বোধ করি নাই।

তিনি আরও লেখেন, ‘আমি নিজেকে গানের শ্রোতাই ভাবতে ভালোবাসি। আমি তেমন এক নিমগ্ন শ্রোতা বাংলাদেশের এই কিংবদন্তীর। এতো মায়া ছড়াইয়া কী এইভাবে চলিয়া যাওয়া যায়? আজ থেকে আকাশকেও হয়তো কাছে মনে হবে। অ্যান্ড্রু কিশোরকে অনেক দূরে.. ‘

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইন্সটিটিউট ও সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. আশরাফুল হক তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ‘ভালোবাসার এক নাম আইয়ুব বাচ্চু, আরেক নাম এন্ড্রু কিশোর। চলে গেলো দুই তারা।’

খুলনার হেলাল আহমেদ নামের একজন ফেসবুক কমেন্টে লেখেন,  ছোটবেলা থেকেই আমি বাংলা সিনেমার ফ্যান। আর সেই সঙ্গে বাংলা ছবির গানের পাগল ছিলাম। ছোটবেলায় যে গানগুলো শুনতাম তার বেশিরভাগ গানের গায়ক ছিলেন এন্ড্রু কিশোর। সে যুগের আলমগীর, সালমান শাহ, ওমর সানি, বাপ্পারাজ সহ অনেকেই এন্ড্রু কিশোরের গানের সাথে ঠোঁট মিলিয়েছে। বাংলাদেশের কিংবদন্তি গায়ক এন্ড্রু কিশোর।

রাজশাহীর সাংবাদিক হাসান আদিব তার ফেসবুক টাইমলাইনে লেখেন, ওপারে ভাল থাকুন প্রিয় কণ্ঠশিল্পী। প্রজন্মের পর প্রজন্ম আপনাকে স্মরণ করবে দৃঢ় বিশ্বাস!

চাঁদপুরের জসীম চৌধুরী নামের একজন ব্যবসায়ী লেখেন,  যার গান শুনে আমরা বড় হয়েছি। যার গানের সুরের মূর্ছনায় হৃদয় ভরে যেতো। শিল্পীর এই মহাপ্রয়াণে আমরা ব্যথিত। শিল্পীর আত্মার শান্তি কামনা করি।

জামাল উদ্দিন বাবুল নামের একজন লেখেন,  এমন কোনো ব্যক্তি নাই যে ওনার গান পছন্দ করে না। যেদিন থেকে বাংলা ছবি দেখা শুরু করেছি সেদিন থেকে এন্ড্রু কিশোর মনের মধ্যে গেঁথে গেছে।এমন সুরেলা কণ্ঠ আমরা প্রতিনিয়ত মিস করব।

ফরিদপুরের মোহাম্মদ শাহীন লেখেন, ‘আমরা একটা জাতীয় সম্পদ হারালাম’।

ঢাকার কামাল হোসাইন নামের একজন লেখেন, ‘কিংবদন্তীরা কখনো চলে যায় না, তারা তাদের কর্মের মাধ্যমে সর্বদা মানুষের মধ্যেও অবস্থান করে’।

 

ঘটনাপ্রবাহ : এন্ড্রু কিশোর