নিজের ৬৫% লিভার দিয়ে বাবাকে বাঁচালেন ছেলে
jugantor
নিজের ৬৫% লিভার দিয়ে বাবাকে বাঁচালেন ছেলে

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৬ অক্টোবর ২০২১, ২২:২৪:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

লিভার

বাবার আয়ু আছে আর মাত্র ছয়মাস। চিকিৎসকদের এই সোজাসাপ্টা উত্তর মেনে নিতে পারেননি ছেলে। যে করেই হোক বাবাকে বাঁচানোর প্রতিজ্ঞা করেন তিনি। নিজের ৬৫ ভাগ লিভার দান করে বাবাকে বাঁচিয়ে তোলেন ছেলে।

সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে অফিশিয়াল হিউম্যানস অব বোম্বে নামে একটি পেজ বাবা-ছেলের এই হৃদয় ছোঁয়া ঘটনা শেয়ার করেছে।

ওই পোস্টে ছেলে লিখেছেন, বাবার যখন লিভার ড্যামেজ ধরা পড়ল আমি হতভম্ব হয়ে গিয়েছিলাম। কারণ তিনি কখনো ধূমপান বা মদ্যপান করতেন না। চিকিৎসকরা বলেছিলেন, কোনো ডোনার না পেলে বাবা ছয় মাসের বেশি বাঁচবেন না। তখন আমার অসহায় বাবা বলেছিলেন, আমি মরতে চাই না। আমি তোমার স্নাতক শেষ করা দেখতে চাই।

এরই মধ্যে তার বাবা করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। আর তখনই তিনি বুঝতে পারেন যে করেই হোক তার বাবাকে বাঁচাতে হবে।

তখনই বাবাকে লিভার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সৌভাগ্যক্রমে বাবার সঙ্গে তার লিভার ম্যাচও করে। সফল অস্ত্রোপচারের পর বাবাকে নিজের লিভারের অংশ দিয়ে বাবাকে বাঁচিয়ে তোলেন ছেলে।

ইনস্টাগ্রামে নিজেকে মনু নামে পরিচয় দিয়েছেন বাবাকে লিভারের অংশ দেওয়া ওই যুবক। ইনস্টাগ্রাম পোস্টে বাবার উদ্দেশে তিনি লিখেছেন, তোমাকে বাঁচাতে পারা আমার জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন….এই যুদ্ধে আমি জিতে গেছি বাবা….আমি এখন জীবন্ত অর্গান ডোনারের তকমা পেলাম।

নিজের ৬৫% লিভার দিয়ে বাবাকে বাঁচালেন ছেলে

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৬ অক্টোবর ২০২১, ১০:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
লিভার
ছবি : প্রতীকী

বাবার আয়ু আছে আর মাত্র ছয়মাস। চিকিৎসকদের এই সোজাসাপ্টা উত্তর মেনে নিতে পারেননি ছেলে। যে করেই হোক বাবাকে বাঁচানোর প্রতিজ্ঞা করেন তিনি।   নিজের ৬৫ ভাগ লিভার দান করে বাবাকে বাঁচিয়ে তোলেন ছেলে।

সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে অফিশিয়াল হিউম্যানস অব বোম্বে নামে একটি পেজ বাবা-ছেলের এই হৃদয় ছোঁয়া ঘটনা শেয়ার করেছে।

ওই পোস্টে ছেলে লিখেছেন, বাবার যখন লিভার ড্যামেজ ধরা পড়ল আমি হতভম্ব হয়ে গিয়েছিলাম। কারণ তিনি কখনো ধূমপান বা মদ্যপান করতেন না। চিকিৎসকরা বলেছিলেন, কোনো ডোনার না পেলে বাবা ছয় মাসের বেশি বাঁচবেন না। তখন আমার অসহায় বাবা বলেছিলেন, আমি মরতে চাই না। আমি তোমার স্নাতক শেষ করা দেখতে চাই।

এরই মধ্যে তার বাবা করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। আর তখনই তিনি বুঝতে পারেন যে করেই হোক তার বাবাকে বাঁচাতে হবে।

তখনই বাবাকে লিভার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সৌভাগ্যক্রমে বাবার সঙ্গে তার লিভার ম্যাচও করে।  সফল অস্ত্রোপচারের পর বাবাকে নিজের লিভারের অংশ দিয়ে বাবাকে বাঁচিয়ে তোলেন ছেলে।

ইনস্টাগ্রামে নিজেকে মনু নামে পরিচয় দিয়েছেন বাবাকে লিভারের অংশ দেওয়া ওই যুবক। ইনস্টাগ্রাম পোস্টে বাবার উদ্দেশে তিনি লিখেছেন,  তোমাকে বাঁচাতে পারা আমার জীবনের সবচেয়ে বড় অর্জন….এই যুদ্ধে আমি জিতে গেছি বাবা….আমি এখন জীবন্ত অর্গান ডোনারের তকমা পেলাম।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন