ছাত্রদের সামনে অসহায় পুলিশের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশ : ০২ আগস্ট ২০১৮, ১৯:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক   

ছবি ফেসবুক ভিডিও থেকে

বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে পঞ্চম দিনের মতো রাজধানীজুড়ে বিক্ষোভ করছেন বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।

পঞ্চম দিনে সবচেয়ে বেশি আলোচনায় এসেছে বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীদের গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষার বিষয়টি।  

এরই মধ্যে একাধিক মন্ত্রী, সাংসদ ও পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের লাইসেন্স না থাকার কারণে তাদের গাড়ি আটকে দেয়া হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার ধানমণ্ডির ১৫ নম্বরে পানিসম্পদমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর গাড়ি আটকে দেয় শিক্ষার্থীরা। ঘটনার ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

এক মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের ভিডিওতে এক শিক্ষার্থীকে বলতে শোনা যায়, আমরা এখন ধানমণ্ডি ১৫-তে,  ইবনের সিনার সামনে, আমরা একটা গাড়ি ধরেছি, সেটা হচ্ছে মন্ত্রীর। গাড়ির চালকের কোনো লাইসেন্স নেই। আমরা মন্ত্রী স্যারের সঙ্গে কথা বলছি।

এ সময় পুলিশ শিক্ষার্থীদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করলে শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা মন্ত্রীর কাছে জানতে চাই, স্যার, স্যার অ্যালাউ করল ক্যান? যে চালকের লাইসেন্স নেই, তাকে কেনো গাড়ি চালাতে অনুমতি দিয়েছেন তিনি, আমরা স্যারের কাছে তা জানতে চাই।

পুলিশের লাইসেন্স পরীক্ষা করছে শিক্ষার্থীরা

এরপর মন্ত্রী সাদা রঙের গাড়িটি থেকে নেমে যান। এ সময়ে উল্লাস প্রকাশ করে শিক্ষার্থীরা বলেন, এই তালি হবে, তালি হবে। শিক্ষার্থীরা চিৎকার করে বলতে থাকেন, সাবাস... সাবাস...।

মন্ত্রী গাড়ি থেকে বের হয়ে হাঁটা শুরু করলে শিক্ষার্থীরা একসঙ্গে স্লোগান দিয়ে ওঠেন, উই ওয়ান্ট জাস্টিস, ইউ ওয়ান্ট জাস্টিস।

ভিডিওতে দেখা যায়, এরপর মন্ত্রী কালো রঙের আরেকটি গাড়িতে উঠে নিজের গাড়িটি সেখানে ফেলে রেখে যান।

একই দিনে রাজধানীর শনিরআখড়ায় গাড়ি চালক ড্রাইভিং লাইসেন্স দেখাতে না পারায় সংসদ সদস্য পঙ্কজ দেবনাথকে দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা।

পুলিশের লাইসেন্স পরীক্ষা করছে শিক্ষার্থীরা

এ সময় সাংসদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। তখন সাংসদকে মুক্ত করতে এগিয়ে আসেন কদমতলী থানা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মমিনুল ইসলাম রাজীব।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাক বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়লে এক পর্যায়ে তাকে বেদম মারধর করা হয়। পরে ড্রাইভিং লাইসেন্স ও ইন্স্যুরেন্স আপডেট না থাকার অভিযোগে পুলিশ মামলা দায়ের করলে সাংসদের গাড়িটি ছেড়ে দেন শিক্ষাথীরা।

পুলিশের লাইসেন্স পরীক্ষা করছে শিক্ষার্থীরা

এদিকে কয়েকজন পুলিশ সদস্যের লাইসেন্স না থাকার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে পুলিশ সদস্যের গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকার কারণে তাদের গাড়ি আটকে দেয়া হয়।