রাজপথে সেই মেঘ, ফেসবুকে ভাইরাল

প্রকাশ : ০২ আগস্ট ২০১৮, ২২:০৫ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

পোস্টার হাতে মেঘ। ছবি-সংগৃহীত

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে নিজেকে একাত্মতা ঘোষণা করে রাজধানীর রাজপথে পোস্টার হাতে দাঁড়িয়েছেন সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনীর একমাত্র ছেলে মাহির সারোয়ার মেঘ। সেই ছবিটি এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউতে বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষার্থীদের এই দাবির প্রতি একাত্মতা ঘোষণা করে মেঘ।

মেঘের দাঁড়িয়ে থাকা সেই পোস্টারে ফুটে ওঠে-

নিরাপদ সড়ক চাই
বাসচাপায় নিহত আপু-ভাইয়াদের খুনের বিচার চাই
ছোটদের জন্য নিরাপদ বাংলাদেশ চাই
আমার মিম্মি-বাবা (সাগর -রুনীর) খুনের বিচার চাই
we want justice

এই নিয়ে ফেসবুকে চলে তোলপাড়। বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ মেঘের এই সাহসিকতাকে স্বাগত জানান।

ফেসবুকে সন্দীপন বসু মুন্না নামের এক সাংবাদিক নামে একজন মেঘের পোস্টার হাতে ছবিটি শেয়ার করে লেখেন, এই আমাদের মেঘ। সাগর ভাই, রুনি আপার ছেলে মেঘ। এই ছবিটা দেখে চোখের পানি আর ধরে রাখতে পারিনি।

জাহিরুল নামে আরও একজন ওই ছবি শেয়ার করে লিখেন, সাগর রুনি দম্পতির মেঘ ও রাস্তায়। আমি মেঘ বলছি আমি বেঁচে আছি, গন্তব্যে যেতে চাই। আমি এখনও আমার বাবা-মা হত্যার বিচার চাই। আমি বাংলাদেশের মেঘ। আমার গন্তব্যের পথ রুদ্ধকারী যেন কোন খান সেনা না হয়।

এছাড়া সাংবাদিক জোবায়ের আহমেদ নবীন লেখেন, সহকর্মী সাগর-রুনির ছেলে মেঘ। আমাদের সেই ছোট্ট মেঘ আজ আকাশের মেঘ উপেক্ষা করে বৃষ্টি মাথায় নিয়ে প্রতিবাদে নেমেছে। নিজের বাবা-মায়ের হত্যারও বিচার চেয়েছে...।

এছাড়া আরও অনেকেই মেঘের ওই ছবি নিয়ে ফেসবুকে শেয়ার করে নিরাপদ সড়কের দাবিতে একাত্মতা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, গত রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আবদুল্লাহপুর-মোহাম্মদপুর রুটে চলাচলকারী জাবালে নূর পরিবহনের তিনটি বাসের রেষারেষিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এতে শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী আবদুল করিম রাজিব ও একই কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী দিয়া খানম মিম নিহত হন। এ ছাড়া আরও অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। 

আহত শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে করিম ও মিমকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

এরপর থেকেই নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা।