জিম্বাবুয়ের উদ্বোধনী জুটি ভাঙলেন মোস্তাফিজ

  স্পোর্টস রিপোর্টার ২১ অক্টোবর ২০১৮, ১৯:২৪ | অনলাইন সংস্করণ

মোস্তাফিজুর রহমান

সাম্প্রতিক সময়ে পরাজয়ের বৃত্তে আটকে আছে জিম্বাবুয়ে। সেই বৃত্ত থেকে বের হতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশ দলের করা ২৭১ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলেছে জিম্বাবুয়ে।

একেরপর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে যাওয়া জিম্বাবুয়ের ওপেনার সিফাস জুওয়াওয়ের লাগাম টেনে ধরেন মোস্তাফিজুর রহমান। অষ্টম ওভারে বোলিংয়ে এসেই জুওয়াওকে অসাধারণ ডেলিভারিতে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান মোস্তাফিজ।

ইমরুল-সাইফউদ্দিনের ব্যাটে বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জিং স্কোর

সূচনালগ্ন থেকেই যাওয়া-আসার মধ্যে ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানরা। সেখানে নিজের স্বভাবজাত খেলাটা খেলে যান ইমরুল কায়েস। একপর্যায়ে ১৩৯ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় স্বাগতিকরা। তবুও অবিচল থাকেন বাঁহাতি ওপেনার। ধ্বংসস্তূপের ওপর দাঁড়িয়েই লড়াই চালিয়ে যান তিনি। ভীষণ চাপের মধে ইমরুলকে যোগ্য সহযোদ্ধার সমর্থন দেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

শেষ পর্যন্ত লড়াকু সেঞ্চুরি তুলে নেন ইমরুল। হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন সাইফউদ্দিন। দুজনের ব্যাটে জিম্বাবুয়েকে ২৭২ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ। জিম্বাবুয়ের হয়ে জার্ভিস নেন ৪ উইকেট। চাতারা নেন ৩ উইকেট।

রোববার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা। ম্যাচের গোড়াপত্তন করতে নামেন লিটন দাস ও ইমরুল কায়েস। তবে শুভসূচনা এনে দিতে পারেননি তারা। শুরুতেই টেন্ডাই চাতারার শিকারে পরিণত হন লিটন।

পরে ক্রিজে আসেন ফজলে মাহমুদ রাব্বি। তবে অভিষেকটা রাঙাতে পারেননি তিনি। একই বোলারের শিকার বনে ডাক মেরে ফেরেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। এতে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে সেই ধাক্কা কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করেন ইমরুল। দারুণ সঙ্গ দিচ্ছিলেন মিস্টার ডিপেন্ডেবলও। তবে হঠাৎই ছন্দপতন। দলীয় ৬৬ রানে ব্রেন্ডন মাভুতার বলে হার মানেন তিনি। ফলে চাপেই থাকে বাংলাদেশ।

সেখান থেকে মোহাম্মদ মিথুনকে নিয়ে নিয়ে চাপ কাটিয়ে উঠেন ইমরুল। যোগ্য সহযোদ্ধার সমর্থন দিচ্ছেলেন মিথুন। কিন্তু হঠাৎই খেই হারিয়ে ফেলেন তিনি। দলীয় ১৩৭ রানে কাইল জার্ভিসের শিকার হয়ে ফেরেন এ মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান। ফেরার আগে ৪০ বলে ১ চার ও ৩ ছক্কায় ৩৭ রান করেন তিনি।

মিথুন ফেরার পর ক্রিজে আসেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে নির্ভরতার পরিচয় দিতে পারেননি তিনি। খানিক পরেই জার্ভিসের ছোবলে কাটা পড়েন মিস্টার কুল। এতে ফের চাপে পড়ে টাইগাররা। সেই চাপের মধ্যে এ পেসারের তৃতীয় শিকার হয়ে ফেরেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ফলে তাৎক্ষণিকভাবে স্কোরটা হয়ে যায় ১৩৭/৩ থেকে ১৩৯/৬। ২ রানের মধ্যে ৩ উইকেট খুইয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়ে স্বাগতিকরা।

সেখান থেকে সাইফউদ্দিনকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ান ইমরুল। খাদের কিনারে দাঁড়িয়ে লড়াই চালিয়ে যান তিনি। সাইফউদ্দিনও দারুণ সঙ্গ দেন। দুজনের দুরন্ত ব্যাটিংয়ে উড়তে থাকে বাংলাদেশ। এগিয়ে যায় চ্যালেঞ্জিং স্কোরের পথে।

শেষদিকে জার্ভিসের বলির পাঁঠা হয়ে ফেরেন ইমরুল। ফেরার আগে ১৪০ বলে ১৩ চার ও ৬ ছক্কায় ১৪৪ রান করেন তিনি। এটি বাঁহাতি ওপেনারের ক্যারিয়ারসেরা ইনিংস। সব মিলিয়ে ওয়ানডেতে দেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

সঙ্গী হারিয়ে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি সাইফউদ্দিন। চাতারার শিকার হয়ে ফেরেন তিনি। এর আগে তুলে নেন ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি। ৬৯ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় কাঁটায় ৫০ করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরার আগে ইমরুলের সঙ্গে চরম কঠিন পরিস্থিতিতে ১২৭ রানের জুটি গড়েন পেস অলরাউন্ডার।

সপ্তম উইকেটে দেশের হয়ে এটি রেকর্ড জুটি। সপ্তম জুটিতে আগের রেকর্ড ছিল মুশফিক ও নাঈম ইসলামের ১০১। ২০১০ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ডানেডিনে ওই জুটি গড়েন তারা। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ২৭১ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter