দেড় বছরে অনেক পরিবর্তন এসেছে: এনামুল হক

  আল-মামুন ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ২২:৩৩ | অনলাইন সংস্করণ

এনামুল হক জুনিয়র
এনামুল হক জুনিয়র

একটা সময়ে বাংলাদেশ দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন এনামুল হক জুনিয়র। বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট সিরিজ জয়ের নায়কও তিনি। ২০০৫ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই টেস্টে টানা তিন (৬,৭, ৫) ইনিংসে ১৮ উইকেট শিকারের রেকর্ড গড়ে সিরিজ সেরা নির্বাচিত হন।

দেশের হয়ে ১৫ টেস্ট (৪৪ উইকেট) এবং ১০টি ওয়ানডে (১৪ উইকেট) ম্যাচ খেলেন এনাম জুনিয়র। ২০১৩ সালের পর থেকে জাতীয় দলের বাইরে এই বাঁ-হাতি স্পিনার। ঘরোয়া লিগে নিয়মিত পারফর্ম করার পরও বিপিএলের আসন্ন ষষ্ঠ আসরে দল পাননি তিনি।

জাতীয় দলে ‘সাবেক’ হয়ে যাওয়া এনামুল হক জুনিয়র যুগান্তরকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে বিপিএলে দল না পাওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। তার সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন আল–মামুন

যুগান্তর: বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে টেস্ট ক্রিকেটে টানা তিন ইনিংসে পাঁচ উইকেট নেয়ার রেকর্ড আছে আপনার এবং সাকিব আল হাসানের। তাইজুল সেই রেকর্ড ভাঙার পথে?

এনামুল হক জুনিয়র: রেকর্ড তো আসলে ভাঙার জন্যই। আর আসলে এটা তেমন কোনো রেকর্ডও না। তবে এটা তাইজুলই ভাঙতে পারে। ওর সেই সামর্থ্য আছে। আর সবচেয়ে বড় কথা হলো, যতই রেকর্ড গড়ি না কেন, দল না জিতলে ভালো লাগবে না। আমার কাছে সবচেয়ে বেশি মজার ছিল আমার পাঁচ উইকেট শিকারের পর বাংলাদেশ জিতেছিল। আমি আশা করব তাইজুল টানা চার ইনিংসে পাঁচ উইকেটে শিকার করে স্মরণীয় করে রাখবে। এবং ঢাকা টেস্টে আমরা জিতবে। কারণ সিলেটের ঐতিহাসিক অভিষেক টেস্টে আমরা জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হেরে ব্যাকফুটে আছি। ঢাকা জিতলে সিরিজ ড্র হবে।

যুগান্তর: বাংলাদেশ দল ২০০০ সাল থেকে টেস্ট খেলছে। ১৮ বছরের এই যাত্রায় টেস্ট ক্রিকেটে টাইগারদের সেভাবে উন্নয়ন হয়নি। এর পেছনের কারণ কী?

এনামুল হক জুনিয়র: আসলে এ জন্য আমাদের অবশ্যই ঘরোয়া ক্রিকেটে মনোযোগ দেয়া উচিত। আমাদের প্লেয়ারা যদি প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট নিয়মিত খেলে তাহলে টেস্টে উন্নতি হবে। একটা দেশের প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট যদি ভালো হয় তাহলে ঐ দেশের টেস্ট ক্রিকেটে উন্নতি হতে বাধ্য।

যুগান্তর: জাতীয় দলের অধিকাংশ ক্রিকেটারের ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলায় অনীহা রয়েছে। এই অনীহা নিয়ে কী বলবেন?

এনামুল হক জুনিয়র: হ্যাঁ, আগে এই ট্রেডিশন ছিল। তবে গত এক থেকে দেড় বছরে অনেক পরিবর্তন এসেছে। তো আমার কাছে মনে হয় মুমিনুল হকের মতো অনেকেই প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলতে চায়। তবে এখানে ম্যাচ ফি যদি আরও বাড়ানো যায় তাহলে এই না খেলার অনীহা অনেকটা কেটে যাবে। এবং ঘরোয়া ক্রিকেটে আরও বেশি প্রতিযোগিতা বাড়বে।

যুগান্তর: ক্রিকেট ক্যারিয়ার শেষে রাজনীতিতে জড়িয়েছেন নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের মতো অনেক তারকা খেলোয়াড়। ক্রিকেট থেকে অবসরে যাওয়ার আগেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অংশ নিচ্ছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। খেলার মাঠ থেকে ক্রিকেটারদের রাজনীতির মাঠে অংশ নেয়া নিয়ে কি বলবেন?

এনামুল হক জুনিয়র: আসলে ভাই, এসব বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না।

যুগান্তর: ৫ জানুয়ারি থেকে বিপিএলের ষষ্ঠ আসর শুরু হওয়ার কথা। বিপিএলের আসন্ন আসরে দল না পেয়ে আপনি কতটা হতাশ? এনাম জুনিয়র: শুধু এবারের আসরেই না। এর আগেও বিপিএলে টিম পাইনি। তবে এবার ভালো ফর্মে আছি। ভালো বোলিং করছি, তারপরও বিপিএলে দল পেলাম না। এতে আমি হতাশ। এটা আসলে দুঃখজনক।

যুগান্তর: আপনি কি মনে করেন, বিপিএলের মতো ফ্রাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে দেশের ক্রিকেটারদের খেলা নিশ্চিত করতে বিসিবির আরও বেশি দায়িত্বশীল হওয়া উচিত?

এনামুল হক জুনিয়র: আসলে এখানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কিছু করার নেই। এটা অনেক বড় একটা টুর্নামেন্ট। আবার অনেক বড় ইনভেস্টমেন্টও। ফ্রাঞ্জাইজিগুলো অনেক টাকা খরচ করে। তারা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সেরা কমবিনেশন সাজায়। তবে আমার বিপিএলের অতীত রেকর্ড ভালো। তারপরও দল না পেয়ে আমি ব্যক্তিগতভাবে হতাশ। তাছাড়া এবার আমি ঘরোয়া লিগেও পারফর্ম করেছি। তারপরও দল পেলাম না। এজন্য হতাশ।

যুগান্তর: বিপিএল শুরু হতে এখনও অনেক সময় বাকি। দল পাওয়ার ব্যাপারে আপনি কতটা আশাবাদী?

এনামুল হক জুনিয়র: বিপিএলে দল পাওয়ার ব্যাপারে আমি আশাবাদী। আমার বিশ্বাস আছে শেষ পর্যন্ত দল পাব।

যুগান্তর: ২০০১ সালে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে আপনার অভিষেক হয়। এরপর থেকে ঘরোয়া এবং জাতীয় দলে প্রায় ১৮ বছর খেলছেন। আর কতদিন খেলা চালিয়ে যেতে চান?

এনামুল হক জুনিয়র: আসলে ফিটনেস যত দিন থাকবে, যত দিন পারফরম্যান্স থাকবে ততদিন খেলা চালিয়ে যাব। ক্রিকেটটা আমি ইনজয় করছি। ফিটনেস ভালো থাকলে আশা করি আরও বেশ কিছু দিন খেলে যেতে পারব।

যুগান্তর: ক্রিকেট ক্যারিয়ার শেষে আপনার পরিকল্পনা কী?

এনামুল হক জুনিয়র: সেটা আসলে সময়ই বলে দেবে। এখনও সেটা নিয়ে ভাবছি না। যতদিন ফিটনেস থাকবে খেলে যাওয়ার চেষ্টা করব। তবে অবসরে যাওয়ার পরও খেলার সঙ্গে থাকার ইচ্ছা আছে আমার।

যুগান্তর: আপনার তো এক ছেলে এক মেয়ে। ছেলেকে ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা আছে কী?

এনামুল হক জুনিয়র: আসলে ছেলেকে আমি কোনো প্রেসার দিতে চাই না। ওর যা ইচ্ছা তাই হবে। আমার বাবা-মা যেমন আমাকে পড়াশোনার জন্য অনেক চাপ দিয়েছে। কিন্তু আমি ক্রিকেট খেলেছি। ক্রিকেটার হিসেবে গড়ে উঠেছি। এটা আসলে আমার ছেলের ওপর নির্ভর করে। তার যা ইচ্ছা তাই হবে। আমি চাপ প্রয়োগ করব না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×