সাকিবকে সালাম দিতে চান এই ক্রিকেটার

প্রকাশ : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২১:৩৪ | অনলাইন সংস্করণ

  আল-মামুন

প্রিমিয়ার লিগের খেলায় বুধবার হ্যাটট্রিক করেছেন আসিফ হাসান। শেখ জামালের টপঅর্ডার ব্যাটিং লাইনআপ ভেঙে দিয়ে আলোচনায় ঝড় তুলেছেন লিজেন্ড অব রুপগঞ্জের এই স্পিনার। ঘরোয়া ক্রিকেটে ছয় বছর ধরে খেলে যাওয়া এই ক্রিকেটারের স্বপ্ন সাকিব আল হাসানকে সালাম দেয়া। যুগান্তরকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এমনটি বলছেন এই বাঁহাতি স্পিনার।

যুগান্তর : প্রিমিয়ার লিগের চলতি আসরের শুরুতেই হ্যাটট্রিক করলেন?

আসিফ হাসান : আসলে খুবই ভালো লাগছে। ক্যারিয়ারে প্রথম হ্যাটট্রিক করলাম। আরও ভালো লাগত যদি আমরা জয় পেতাম। আমি হ্যাটট্রিক করেছি অথচ আমাদের টিম হেরে (৩ রানে) গেল। এটার জন্য খুব কষ্ট লাগছে। নাঈম ইসলাম ভাই সেঞ্চুরি করেছেন। তারপরও আমরা হেরে গেছি। তাছাড়া এটা আমাদের প্রথম ম্যাচ ছিল। জয়ে শুরু করতে পারলে ভালো হতো।

যুগান্তর : প্রিমিয়ার লিগে আপনার লক্ষ্য?

আসিফ হাসান: প্রিমিয়ার লিগে আমার লক্ষ্য সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করা। সামনে আরও ১০টা ম্যাচ আছে। সেখানে ভালো কিছু করাই লক্ষ্য। যেহেতু বিসিবির কোনো দলে সুযোগ পাইনি। তো আমাকে এটা খেলেই চলতে হবে। সেই দিক থেকে চেষ্টা থাকবে এখানে ভালো কিছু করার। তাছাড়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে  এবং জাতীয় লিগে চার বছর ধরে খেলতেছি।

যুগান্তর : ক্রিকেটে আপনার   হাতেখড়ি কোথা থেকে?

আসিফ হাসান : আবাহনী মাঠ থেকে আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ার শুরু। আমার বাসা হাজারীবাগ। তো বন্ধুদের সঙ্গে আবাহনী মাঠে চলে আসতাম খেলা দেখার জন্য। খেলোয়াড়দের অনুশীলনে মুগ্ধ হয়ে খেলা শুরু। আবাহনী মাঠে সাজু স্যারের অধীনে ডিসকভারী ক্রিকেট একাডেমি থেকে খেলা শুরু। এখানেই আমি বয়সভিত্তিক দলে খেলেছি। ডিসকভারির তিনজন সিনিয়র ক্রিকেটার তাসকিন আহমেদ, ইলিয়াস সানি এবং আমি।

যুগান্তর : তাসকিন-ইলিয়াস সানি দুইজন জাতীয় দলে খেলেছেন অথচ আপনি....?

আসিফ হাসান : আমার খুব ইচ্ছা জাতীয় দলের হয়ে খেলার। এজন্য প্রতি বছর পরিকল্পনা করি। কিন্তু হয়ে উঠে না। ২০১৪ সালে ব্রাদার্স ইউনিয়নের হয়ে প্রিমিয়ার লিগে  দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি হয়েছিলাম। তারপরও বিসিবির এইচপি এবং এলিট ক্যাম্প কোথায়ও ডাক পাইনি। ২০১৫ সালে বিপিএলে চট্টগ্রাম ভাইকিংসের হয়েও ৫টি ম্যাচ খেলেছি। বিপিএলে খেলার পরও বিসিবির কোনো প্রোগ্রামে সুযোগ পাইনি। আমাকে খেলার সুযোগ দিলে নিজেকে প্রমাণ করার চেষ্টা করতাম।

যুগান্তর : ক্রিকেটে আপনার রোল কি?

আসিফ হাসান: ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই বাঁহাতি বোলার হিসেবে খেলে আসছি। পাশাপাশি মিডলঅর্ডারে ব্যাটিং করি।

যুগান্তর : খেলাধুলার সঙ্গে আপনার পরিবারের অন্য কেউ জড়িত আছে?

আসিফ হাসান : না, আমার পরিবারের কেউ খেলাধুলার সঙ্গে জরিত ছিলেন না এখনও নেই। শুরুতে ক্রিকেট খেলার জন্য অনুমতি পাইনি। অনূর্ধ্ব-১৫ দলে বিসিবির হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ট্যুরে গিয়েছিল। তারপর পরিবার থেকে আর বাঁধা দেয়নি। ২০১২ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে দলের ১৬তম সদস্য ছিলাম। কিন্তু খেলার সুযোগ পাইনি।

যুগান্তর : কোন ক্রিকেটারের খেলা আপনি  পছন্দ করেন?

আসিফ হাসান : আমার পছন্দের ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। ওনাকে আমি ফলো  করি।  তবে কখনও সাকিব ভাইয়ের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ আমার হয়নি। দেখা হলে সালাম দিতাম। জিজ্ঞেস করতাম কেমন আছেন। ওনার কাছ থেকে বোলিং নিয়ে পরামর্শ নিতাম। এটা আমার খুবই ইচ্ছা। ওনার সঙ্গে দেখা করার অনেক  চেষ্টা করেছি। কিন্তু সুযোগ পাইনি।