বিশ্বকাপের তরুণদের চেয়েও উজ্জ্বল যারা

  স্পোর্টস ডেস্ক ০৩ জুন ২০১৯, ১২:১৩ | অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বকাপের যেসব বুড়ো তরুণদের চেয়েও উজ্জ্বল

ক্রিকেট খেলা বলতে তারুণ্যনির্ভর একটি দলকে মনে করেন সবাই। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং- সব ডিপার্টমেন্টই বেশ পরিশ্রমের।

ব্যাটসম্যানদের তো রান নিতে নিতেই হাঁপিয়ে যেতে হয়। যে কারণে তারুণ্যনির্ভর দলের পারফরম্যান্সই সেরা হবে বলে মত দিয়ে থাকেন ক্রিকেটবোদ্ধারা।

তবু বয়সকে শুধুই একটি সংখ্যা বানিয়ে দিয়ে কিছু ক্রিকেটারের পারফরম্যান্স তরুণদেরও হার মানিয়ে দেয়। তাদের অদম্য স্পৃহার কাছে তরুণদের শক্তিও কুপোকাত হয়।

প্রায়ই দেখা যায়, দলের সবচেয়ে বুড়ো তার অভিজ্ঞতা ও হার না মানা মানসিকতাকে কাজে লাগিয়ে দলের জন্য জয় ছিনিয়ে আনেন।

এবারের বিশ্বকাপে প্রায় প্রতিটি দলেই এমন বয়স্ক ক্রিকেটার রয়েছেন, যারা বেশ কয়েকটি বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছেন, যাদের ঝুলিতে জমা রয়েছে অভিজ্ঞতার পাহাড়। বয়স তাদের কাছে শুধু সংখ্যামাত্র। দলের সেরা খেলোয়াড়দের তালিকায় তারাই রয়েছেন।

বিশ্বকাপে এমন কয়েকজন বয়স্ক ক্রিকেটার নিয়ে এবারের আয়োজন:

ইমরান তাহির (দক্ষিণ আফ্রিকা)

উইকেট পেলে প্রায় পুরো মাঠ দৌড়ে বেড়ান তিনি। সে দৌড়ে হার মেনে যাবেন তরুণরাও। তার সেই দৌড় দেখে কেউ বিশ্বাসই করবে না যে, গত মার্চ মাসে চল্লিশে পা রেখেছেন এই প্রোটিয়া লেগ স্পিনার। এবারের বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি বয়স্ক ক্রিকেটার তিনিই। ক্রিকইনফোর সূত্রে জানা গেছে, পাকিস্তানের লাহোরে জন্ম হয় ইমরান তাহিরের। পাকিস্তানের হয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেছেন তিনি। পরে নিজের স্থান পাকা করেন দক্ষিণ আফ্রিকার জাতীয় দলে। গতকালই শততম ম্যাচ খেললেন তিনি। একদিনের ক্রিকেটে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ১০০ ম্যাচে এখন পর্যন্ত উইকেট নিয়েছেন ১৬৪টি। প্রোটিয়াদের হয়ে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটধারী স্পিনারও তাহির।

ক্রিস গেইল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

৩৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটারকে জ্যামাইকান দানব বলা হয়। বিপক্ষ দলের বোলারদের তুলাধোনা করতেই মাঠে নামেন তিনি। তার মতো বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান ক্রিকেট ইতিহাসে হাতেগোনা। এবার শেষ বিশ্বকাপটি খেলতে নেমেছেন তিনি। পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে ফিফটি করে তিনি জানালেন ফুরিয়ে যাননি এখনও। এই ওপেনারের ব্যাটে ভর করে দল জিতেছে বহুবার। এবারও তার ওপরে নির্ভর করছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিশ্বকাপ মিশন।

মোহাম্মদ হাফিজ (পাকিস্তান)

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার না হলেও পাকিস্তানের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার মোহাম্মদ হাফিজ। এবারের বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার তিনি। এই বিশ্বকাপে ৩৮টি বসন্ত পার করেছেন। দলের তরুণ খেলোয়াড়দের অভিজ্ঞতা দিয়ে সামলে নেবেন এটিই প্রত্যাশা তাদের কাছে। প্রথম ম্যাচে হাফিজকে ছাড়া নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হেরেছে পাকিস্তান।

শোয়েব মালিক (পাকিস্তান)

হাফিজ সবচেয়ে বেশি বয়সের হলেও ম্যাচের দিক থেকে পাকিস্তানের বিশ্বকাপ দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়র শোয়েব মালিক। ৩৭ বছর চলছে তার। দলের অন্যতম ব্যাটিং ভরসা তিনি। ওয়ানডেতে ছয় হাজারের বেশি রান রয়েছে তার। বল হাতে ১৩৭ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

মহেন্দ্র সিং ধোনি (ভারত)

ভারতের বুড়ো ক্রিকেটার বললে একবাক্যে সবাই সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির কথাই বলবে। ক্রিকেটে রয়েছে তার বর্ণাঢ্য এক জীবন। ধোনি অবসর নিলে ম্যাচ উইনিং ফিনিশার হারাবে ভারত, এটা সর্বজন স্বীকৃত।

সর্বকালের অন্যতম সেরা অধিনায়ক ধোনি। ৩৬ বয়সী এই সাবেক ভারতীয় অধিনায়ক এবারই ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ খেলছেন। উইকেটের পেছনে সদা তৎপর আবার ব্যাটিংয়ে ইচ্ছা হলেই তাণ্ডব চালান। ঠাণ্ডা মাথার খেলা শেষ করে আকাঙ্ক্ষিত জয় এনে দেন দলকে। এখনও পরামর্শের জন্য অভিজ্ঞ সাবেক অধিনায়ক ধোনির কাছে ছুটে যান কোহলি।

হাশিম আমলা (দক্ষিণ আফ্রিকা)

হাশিম আমলা বিনা দক্ষিণ আফ্রিকা দল কল্পনা করাই মুশকিল। দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার তিনি। বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে দুটি ফিফটি করে তিনি জানান দিলেন এখনও দলের সেরা ক্রিকেটার তিনিই। ৩৬ বছর বয়সী আমলার দিকে এবার বিশ্বকাপজুড়েই নজর থাকবে। প্রথম ম্যাচে মাথায় আঘাত লেগে ইনজুরির কারণে গতকাল বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামতে পারেননি তিনি।

রস টেলর (নিউজিল্যান্ড)

বয়স তার ৩৫। তবে এবারের বিশ্বকাপেও কিউই ইনিংসের হাল ধরার দায়িত্বটা তার ওপরেও। একদিনের ক্রিকেটে ৮ হাজারের বেশি রান করা টেলর সেঞ্চুরি করেছেন ২০টি। এবারের নিউজিল্যান্ড দলকে বিশ্বকাপ শিরোপার অন্যতম দাবিদার বলছেন ক্রিকেটবোদ্ধারা।

ডেল স্টেইন (দক্ষিণ আফ্রিকা)

ইংল্যান্ডের পেসবান্ধব কন্ডিশনে দক্ষিণ আফ্রিকার বোলিংয়ের প্রাণ হিসেবেই কল্পনা করা হচ্ছিল তাকে। তবে কাঁধের ইনজুরির কারণে এখনও বিশ্বকাপে মাঠে নামতে পারেননি তিনি। গতকালের ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রোটিয়াদের হারার পর ‘স্টেইনগান’খ্যাত এই ক্রিকেটারকে খুব মিস করেছে দল। তার বোলিং গতি দেখলে কেউ ঘুণাক্ষরেও কেউ বিশ্বাস করবে না যে তার ৩৫ বছর চলছে।

লাসিথ মালিঙ্গা (শ্রীলংকা)

শ্রীলংকার বিশ্বকাপ দলের বোলিং ইউনিটের কথা ভাবলেই সামনে চলে আসে লাসিথ মালিঙ্গার মুখ। ২০০৭ সালে প্রথম বিশ্বকাপ খেলা মালিঙ্গা এখনও ব্যাটসম্যানদের বুকে কাঁপন ধরান। আগামী আগস্টে ৩৬ বছরে পা রাখবেন মালিঙ্গা। দলটির সূচনা ভালো না হলেও সামনের ম্যাচগুলোতে বিপক্ষ দলের ব্যাটসম্যানরা ডেথ ওভারে মালিঙ্গার নিখুঁত ইয়র্কারগুলোকে দুঃস্বপ্ন হিসাবেই দেখবেন।

মাশরাফি বিন মুর্তজা (বাংলাদেশ)

এবারের বিশ্বকাপই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার শেষ কোনো বড় টুর্নামেন্ট, এ ঘোষণা আগেই দিয়েছেন তিনি। তার বয়স এখন ৩৫ বছর। এ বয়সে এখনও বাংলাদেশের পেস আক্রমণের মূল ভরসা মাশরাফি। বারবার চোটে পড়েও দলকে সর্বোচ্চটা বিলিয়ে যাচ্ছেন এই টাইগার। মাঠে মাশরাফি মানেই উজ্জীবিত দল। দলের ভরসার প্রতীক হয়ে প্রথম ম্যাচ দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি নিয়েই খেলছেন মাশরাফি। বাংলাদেশ দলে মাশরাফির অবদান অবিস্মরণীয়। মাশরাফির অধিনায়কত্বের প্রশংসা চলছে বিশ্বজুড়ে।

ঘটনাপ্রবাহ : আইসিসি বিশ্বকাপ-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×