ইমরান-ওয়াসিম যা পারেননি, করে দেখালেন আমির

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৩ জুন ২০১৯, ১২:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

ইমরান-ওয়াসিম যা পারেননি, করে দেখালেন আমির

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে হেরে গেছে পাকিস্তান। হারলেও এই ম্যাচে দ্যুতি ছড়িয়েছেন সিমার মোহাম্মদ আমির। ম্যাচে তার ব্যক্তিগত ক্যারিশমায় মুগ্ধ ক্রিকেটবিশ্ব।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে দলে ফেরা আমিরের বিশ্বকাপে খেলাটাই অনিশ্চিত ছিল। তাকে প্রথমে স্কোয়াডেই রাখা হয়নি। সেই আমিরই ক্রিকেটের পরাশক্তি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বলতা ছড়িয়েছেন। অসি ব্যাটসম্যানদের কাঁপুনি ধরিয়েছেন। ক্যারিয়ারসেরা বল করে ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন। ১০ উইকেট নিয়ে এখন পর্যন্ত চলতি বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি তিনিই।

ব্যক্তিগত সেরা সাফল্যের দিনে আরও একটি কীর্তি গড়েছেন আমির। বিশ্বকাপে পাকিস্তানের প্রথম বোলার হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৫ উইকেট নিয়ে রেকর্ড গড়েছেন। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইমরান খান ও ওয়াসিম আকরামের মতো কিংবদন্তিরাও যা পারেননি, সেটিই বৃহস্পতিবার টনটনে করে দেখালেন এ গতিতারকা।

অথচ ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের বিশ্বকাপে সুযোগ পাবেন কিনা আমির, সেই সংশয় ছিল প্রবল। পাকিস্তানের প্রাথমিক দলের বাইরে থাকার পর সাম্প্রতিক ফর্ম মোটেও তার পক্ষে ছিল না। কিন্তু অভিজ্ঞতার বিচারে টিকে যাওয়ার সুযোগটা কী চমৎকারভাবেই না কাজে লাগাচ্ছেন এ বাঁহাতি পেসার।

বিশ্বকাপের দলে সুযোগ পেয়ে আমির বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি কতটা গুরুত্বপূর্ণ দলের জন্য। প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে লজ্জাজনক হারের দিনে ২৭ বছর বয়সী এই পেসার একাই উজ্জ্বল ছিলেন। ছয় ওভার বল করে ২৬ রান দিয়ে ৩ উইকেট তুলে নেন তিনি।

ফেভারিট ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচেও সে ধারাবাহিকতা রেখেছেন। দলের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। নিয়েছেন ২ উইকেট।

বুধবার সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেছেন আমির। দুর্দান্ত অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যানরা যখন রানের পাহাড়ে ছুটছিলেন, তখন লাগাম টেনে ধরেন এই সিমার। শুরুতে দারুণ ব্যাট করা অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ চার শতাধিক হবে এমনটি অনেকেই ভেবে নিয়েছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা সেভাবে খেলছিলেনও। কিন্তু আমিরের বোলিং তোপে অসিদের সব পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।

শেষ দিকে আমিরের তোপে শুধু লক্ষ্যটাই কমেনি, নিজের সামর্থ্যের প্রমাণটাও ভালোভাবে দিয়েছেন। ওয়ানডেতে ক্যারিয়ারসেরা বোলিং করে দারুণ উজ্জ্বলতা ছড়ান এ বাঁহাতি পেসার। প্রথম ওভারে মেডেন নিয়ে অসিদের ভয় ধরিয়ে দেন ম্যাচে।

এদিন ১০ ওভার বল করে ৩০ রান দিয়ে পান ৫ উইকেট। শুধু তাই নয়, চলতি বিশ্বকাপে তিন ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়ে সবার ওপরে রয়েছেন তিনি। এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে হয়তো আরও বড় সাফল্য পাবেন আমির।

অবশ্য দারুণ সম্ভাবনা নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসেছেন আমির। কিংবদন্তি পেসার ওয়াসিম আকরামের পর পাকিস্তানের ইতিহাসে সবচেয়ে প্রতিভাবান পেসারও বলা হয় তাকে। তবে ২০১০ সালে মারাত্মক ভুলে পথ হারান এই বাঁহাতি পেসার। স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পাঁচ বছরের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তিনি। মিস করেন ২০১১ ও ২০১৫ বিশ্বকাপ।

বিশ্বকাপে অজিদের বিপক্ষে পাঁচবারের সাক্ষাতে আকরামের উইকেট সংখ্যা ১০, অন্যদিকে চার ম্যাচ খেলা ইমরান নিয়েছেন ৯ উইকেট। এর পরও তারা একবারও পাননি ৫ উইকেট। এতদিন বিশ্ব মঞ্চে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এক ইনিংসে সেরা সাফল্য ছিল আকরামের। কিংবদন্তি এই পেসারের বোলিং ফিগার ছিল ৪/৪০। বুধবার তাকে ছাড়িয়ে গেছেন আমির ৫ উইকেট নিয়ে। তার বোলিং ফিগারও বাঁধিয়ে রাখার মতো। ১০-২-৩০-৫।

ঘটনাপ্রবাহ : আইসিসি বিশ্বকাপ-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×