চিলিকে উড়িয়ে ৪৪ বছর পর কোপার ফাইনালে পেরু

  স্পোর্টস ডেস্ক ০৪ জুলাই ২০১৯, ১০:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

পেরু

ফেভারিট হিসেবে সেমিফাইনালে খেলতে নেমেছিল চিলি। আন্ডারডগ ছিল পেরু। তবে বিস্ময় উপহার দিলেন পেরুভিয়ানরা। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত খেললেন ছন্দময় ফুটবল। প্রতিবেশীদের ৩-০ গোলে উড়িয়ে ৪৪ বছর পর কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠলেন তারা।

সবাইকে হতবাক করে দিয়ে বুধবার রাতে পোর্তো অ্যাল্লেগ্রিতে শুরুটা শুভ করে পেরু। ম্যাচের সূচনালগ্ন থেকেই দুর্দান্ত ফুটবল খেলেন তারা। ফলে সাফল্য পেতেও সময় লাগেনি। ২১ মিনিটে দলকে লিড এনে দেন এডিসন ফ্লোরেস। সতীর্থ আন্দ্রে কারিল্লোর অ্যাসিস্ট থেকে দুরহ কোণ থেকে নিশানাভেদ করেন তিনি।

এগিয়ে গিয়ে আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠে পেরু। মুহুর্মুহু আক্রমণে চিলিকে ব্যতিব্যস্ত রাখেন তারা। ফলে ব্যবধান বাড়তেও খুব একটা বিলম্ব হয়নি। ৩৮ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ইয়োসিমার ইয়োতুন। তাতেও ছিল কারিল্লোর আলতো ছোঁয়া। কার্যত এখানেই চিলিয়ানদের ফাইনালের স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যায়।

পরে খেলায় ফেরার আপ্রাণ চেষ্টা করে চিলি। দ্বিতীয়ার্ধে নিজেদের রক্ষণভাগ আগলে রেখে পেরু শিবিরে আক্রমণের ঢেউ তোলেন তারা। তবে চীনের মহাপ্রাচীর তুল্য পেরুভিয়ান রক্ষণসেনাদের দেয়াল ডিঙাতে পারেননি সানচেজ-ভিদালরা। শেষ পর্যন্ত তাদের প্রচেষ্টা আলোর মুখে দেখেনি।

উল্টো ইনজুরি টাইমে গোল খেয়ে বসেন তারা। ৯১ মিনিটে লক্ষ্যভেদ করেন পাওলো গুয়েরেরো। চিলি শিবিরে তিনি শেষ পেরেক ঠুকার পর আনন্দোল্লাসে মাতে পেরু। তাতে সমর্থন জোগান হাজারো পেরুভিয়ান।

পেরু সবশেষ কোপার ফাইনালে খেলে ১৯৭৫ সালে। এর পর কখনই লাতিন আমেরিকার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে নাম লেখাতে পারেননি তারা। অবশেষে ৪৪ বছর পর মহাদেশীয় সেরার ফাইনালে পা রাখলেন রিকার্দো গ্যারেসার শিষ্যরা।

ঘটনাপ্রবাহ : কোপা আমেরিকা ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×