রবি শাস্ত্রীকে একহাত নিলেন সৌরভ গাঙ্গুলি!

প্রকাশ : ১১ জুলাই ২০১৯, ১৬:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

  স্পোর্টস ডেস্ক

নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে বিশ্বকাপের স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে ভারতের। এই ম্যাচে ভারতের মারকুটে সব ব্যাটসম্যান নিউজিল্যান্ডের সিমারদের কাছে ধরাশায়ী হলেও সফল ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। একপ্রান্ত আগলে রেখে করেছেন ৭৭ রান। শুধু ব্যাটিং নয় বোলিং, ফিল্ডিং-তিন বিভাগেই দুর্দান্ত পারফর্ম করেছেন এই অলরাউন্ডার।

জাদেজার চোখ ধাঁধানো পারফরমেন্সের প্রশংসা করেছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলির। সেই সঙ্গে ভারতের কোচ রবি শাস্ত্রীকে ধুয়ে দিয়েছেন তিনি। প্রাক্তন ধারাভাষ্যকারকে একহাত নিয়েছেন তিনি।

টুর্নামেন্টের শুরুর দিকে খেলানো হয়নি জাদেজাকে। গ্রুপের একেবারে শেষদিকে সুযোগ দেয়া হয় তাকে। সেমিফাইনালে প্রায় এক হাতেই ভারতকে জিতিয়ে দিচ্ছিলেন তিনি।

এদিন হাত ঘুরিয়ে ৩৪ রানে ১ উইকেট শিকার করেন জাদেজা। দুর্দান্ত থ্রো’তে রানআউট করেন কিউইদের সর্বোচ্চ রান স্কোরার রস টেলরকে। তিনি ৭৪ রান নিয়ে খেলছিলেন। অসাধারণ একটি ক্যাচও ধরেন।

শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ২৩৯ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৯২ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে ভারত। সেই পরিস্থিতিতে ব্যাট করতে এসে ৫৯ বলে ৭৭ রানের মহাকাব্যিক ইনিংস খেলেন তিনি।

জিততে না পারলেও জাদেজার লড়াকু ইনিংসে লড়াইয়ের পাশাপাশি হারের ব্যবধানও কমায় ভারত। শেষ অবধি ১৮ রানে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয় তারা।     

ম্যাচ শেষে সৌরভ বলেন,  হার্দিক পান্ডিয়া যখন আউট হন তখন ধরেই নিয়েছিলাম আমরা নিশ্চিত হারছি। কমেন্ট্রি বক্সে সব ধারাভাষ্যকার তাতে সম্মতি পোষণ করেন। কিন্তু জাদেজা একাই ম্যাচ ঘুরিয়ে দিচ্ছিল। তার জন্যই জয়ের এত কাছাকাছি গিয়ে নোঙর করে কোহলিরা।

সৌরভ বলেন, এতেই প্রমাণিত হয়; ক্রিকেটে স্থির গেম প্ল্যান বলে কিছু নেই। একটা নির্দিষ্ট নীতি আঁকড়ে ধরে থাকলে ডুবতে হয়। ক্রিকেটে একটা বিষয়ই প্রাধান্য দেয়া উচিত, তা হলো ফর্ম।

২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফির পর ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট একসঙ্গে অশ্বিন ও জাদেজাকে ওয়ানডে দল থেকে সরিয়ে দেয়। কারণ দেখানো হয়, বিদেশে জেতার জন্য রিস্ট স্পিনারের প্রয়োজন। লেগস্পিনার ও চায়নাম্যান স্পিনার দরকার। তবে জাদেজা সেই কথা ভুল প্রমাণ করেছেন।

সরাসরি নাম না করলেও সৌরভ গাঙ্গুলির ইঙ্গিত কোন দিকে তা বুঝতে অসুবিধা হয় না। রবি শাস্ত্রীর সঙ্গে তার সম্পর্ক ভালো নয়। আগেরবার মহারাজের নেতৃত্বাধীন ক্রিকেট পরামর্শদাতা কমিটি অনিল কুম্বলেকে ভারতীয় দলের কোচ হিসেবে বেছে নেয়। পরে তাকে সরিয়ে শাস্ত্রীকে কোচ করার দাবি তোলেন বিরাট কোহলি। সৌরভের কমিটিও তাকে কোচ হিসেবে মেনে নিতে বাধ্য হয়।