বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলতে ইংল্যান্ডের প্রয়োজন ২২৪

  স্পোর্টস ডেস্ক ১১ জুলাই ২০১৯, ১৯:০১ | অনলাইন সংস্করণ

স্টিভ স্মিথ
ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একাই লড়াই করেন স্টিভ স্মিথ। ছবি: সংগৃহীত

পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে ২২৩ রানেই অলআউট করে দিল ইংল্যান্ড। বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ৪৯ ওভারেই অলআউট অ্যারন ফিঞ্চের দল।

ক্রিস ওকস ও জফরা আর্চারের গতির মুখে পড়ে ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। সেই অবস্থা থেকে দলকে খেলায় ফেরান অ্যালেক্স কেরি ও স্টিভ স্মিথ। তার ৮৫ রানের দায়িত্বশীল ইনিংসে ভর করে শেষ পর্যন্ত ২২৩ রান তুলতে সক্ষম হয় অস্ট্রেলিয়া।

বিশ্বকাপের গত ১১ আসরের মধ্যে পাঁচবার শিরোপা জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। বর্তমান চ্যাম্পিয়নও তারা। এবারের আসরের শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলে এসেছে অ্যারন ফিঞ্চের দল।

কিন্তু সবশেষ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে (৩২৬ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে মাত্র ১০ রানের পরাজয়) হেরে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ থেকে দুইয়ে নেমে যাওয়া দলটি আজ সেমিফাইনালেও প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে পারেনি।

সবচেয়ে বেশি বিশ্বকাপজয়ী অসি দলটিকে ২২৩ রানে অলআউট করে ২৭ বছর পর আরও একটি ফাইনালে খেলার স্বপ্ন দেখেছে ইংল্যান্ড। সবশেষ ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে হেরে তৃতীয়বারের মতো শিরোপা বঞ্চিত হয়েছিল ইংল্যান্ড। প্রায় তিন দশক পর চতুর্থবারের মতো ফাইনালে খেলার অপেক্ষায় ইংলিশরা।

বৃহস্পতিবার ইংল্যান্ডের বার্মিংহামে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমেই ক্রিস ওকস এবং জফরা আর্চারের গতির মুখে পড়ে যায় অসি ব্যাটসম্যানরা।

জিতলে ফাইনালে, হারলে বিদায়। এমন কঠিন সমীকরণের ম্যাচে স্কোর বোর্ডে ১৪ রান জমা করতেই সাজঘরে ফেরেন অসি তিন সেরা ব্যাটসম্যান অ্যারন ফিঞ্চ, ডেভিড ওয়ার্নার ও পিটার হ্যান্ডসকম্ব।

দলের এমন চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ের দিনে উইকেটে নেমেই জফরা আর্চারের বাউন্সারের শিকার হন অ্যালেক্স কেরি। ৭.৬ ওভারে দলীয় ১৪/৩ এবং ব্যক্তিগত ৪ রানে জফরা আর্চারের বাউন্সার সরাসরি অ্যালেক্স কেরির হেলমেটে আঘাত হানে। সঙ্গে সঙ্গে তার থুতনি ফেটে রক্ত পড়া শুরু হয়। সাময়িম শ্রুশ্রষা নিয়ে অনবদ্য ব্যাটিং চালিয়ে যান কেরি।

চতুর্থ উইকেটে স্টিভ স্মিথের সঙ্গে ১০৩ রানের জুটি গড়েন কেরি। অনবদ্য ব্যাটিং করে ফিফটির পথেই ছিলেন তিনি। আদিল রশিদের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে বাউন্ডারিতে ক্যাচ তুলে দেন। তার আগে ৭০ বলে চারটি চারের সাহায্যে ৪৬ রান করেন কেরি।

এরপর অস্ট্রেলিয়ার আবারও ব্যাটিং বিপর্যয়। ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিলে ব্যতিক্রম ছিলেন স্মিথ। দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ের দিনে বাড়তি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এ অধিনায়ক। সেঞ্চুরির পথে থাকা স্মিথ ইনিংস শেষ হওয়ার ১৭ বল আগে দুর্ভাগ্যবশত রান আউট হয়ে ফেরেন।

অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরার আগে ১১৯ বলে ছয়টি চারের সাহায্যে ৮৫ রান করেন স্মিথ। তার বিদায়ের পর মাত্র ৬ রানের ব্যবধানে মিচেল স্টার্ক ও জেসন বিহানড্রপের উইকেট হারিয়ে ৪৯ ওভারে ২২৩ রানে অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

অস্ট্রেলিয়া: ৪৯ ওভারে ২২৩/১০ (স্মিথ ৮৫, কেরি ৪৬, মিচেল স্টার্ক ২৯, ম্যাক্সওয়েল ২২, ওয়ার্নার ৯, কামিন্স ৬, লায়ন ৫*, হ্যান্ডসকম্ব ৪, বিহানড্রপ ১, ফিঞ্চ ০, স্টইনিস ০; ক্রিস ওকস ৩/২০, আদিল রশিদ ৩/৫৩)।

ঘটনাপ্রবাহ : আইসিসি বিশ্বকাপ-২০১৯

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×