স্পোর্টস রিপোর্টার    |    
প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ | অাপডেট: ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০১:৪৬:২২ প্রিন্ট
৯ গোল হজমের পর কি আছে কৃষ্ণাদের ভাগ্যে?

উত্তর কোরিয়ার বিপক্ষে বিশাল ব্যবধানে হারার পর চাপে রয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ মেয়ে ফুটবল দল। আজ তাদের প্রতিপক্ষ আরেক শক্তিশালী দল জাপান। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায় থাইল্যান্ডের চনবুরির শারীরিক শিক্ষা ইন্সটিটিউট

স্টেডিয়ামে শুরু হবে ম্যাচ। মেয়েরা নিজেদের স্বাভাবিক খেলা খেলতে পারলেই খুশি হবেন কোচ গোলাম রাব্বানি ছোটন। তিনি বলেন, ‘আমরা নিজেদের খেলাটাই খেলতে চাই। জাপান খুবই শক্তিশালী দল। কোনো ভুল করা চলবে না। মনোযোগ ধরে রাখতে হবে।’

জাপান অস্ট্রেলিয়াকে ৫-০ গোলে হারিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করেছে। বাংলাদেশ উত্তর কোরিয়ার কাছে হেরেছে ৯-০ গোলে। কোচের আশা, প্রথম ম্যাচের ভয় কাটিয়ে মেয়েরা ভালো খেলবেন। গত ম্যাচে গোলরক্ষক রোকসানা বারকয়েক ভুল করেছেন। জাপানের ম্যাচে নিয়মিত গোলরক্ষক মাহমুদাকে খেলানোর সম্ভাবনাই বেশি। পাশাপাশি একাদশে আরও পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিলেন কোচ, ‘একাদশে অবশ্যই পরিবর্তন হবে। কয়েকটি জায়গায় পরিবর্তন আসবে। ম্যাচের দিন সকালে ঠিক করব।’ প্রথম ম্যাচের দিন সকালে অনুশীলন নিয়ে যথেষ্ট সমালোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় ম্যাচের আগেও কি অনুশীলন হবে? কোচ বলেন, ‘এ নিয়ে অনেক কথা হয়েছে। আর নয়। অনুশীলন হলে তো দেখবেন। জানবেন। ’

চূড়ান্ত পর্বের প্রস্তুতির লক্ষ্যে জাপান সফর করেছিল বাংলাদেশ দল। সেখানে বিভিন্ন একাডেমি ও স্কুলের মেয়েদের সঙ্গে কয়েকটি ম্যাচ খেলেছিল সানজিদারা। সেই অভিজ্ঞতা কিছুটা কাজে আসবে ধারণা ছোটনের, ‘জাপানের সঙ্গে আমরা খেলেছি। সাকাই একাডেমির বিপক্ষে দুই ম্যাচ খেলেছি। জাপানের মান ও সামর্থ্য কেমন সে সম্পর্কে আমাদের ধারণা রয়েছে।’ উত্তর কোরিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের মেয়েরা মানসিকভাবে ক্লান্ত ছিল। নয় গোলে হারের পর মানসিকভাবে চাঙ্গা করার চেষ্টা করেছেন কোচিং স্টাফরা।

ম্যাচ বিকেলে হলেও বাংলাদেশ দল গত দু’দিনই অনুশীলন করেছে সকালে। অন্য দিকে জাপান দল বিকেলে অনুশীলন করেছে। জাপানও একই ভেন্যুতে ম্যাচের জন্য শেষ প্রস্তুতি নিয়েছে। জাপানের কোচ নাওকি কুসোনোজ প্রতিপক্ষ সম্পর্কে বলেন, ‘আমরা সবাইকে সমানভাবে দেখছি। বাংলাদেশ দলে কয়েকজন মেধাবী ফুটবলার রয়েছে। যারা ম্যাচের চিত্র পাল্টে দিতে পারে।’ এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপে জাপানই একমাত্র দল যারা তিনবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

এএফসির এ টুর্নামেন্টে তাদের সর্বনিন্ম অবস্থান তৃতীয়। বাংলাদেশের জন্য এরচেয়ে ভয়ানক তথ্য হল, এ আসরে সর্বোচ্চ ১৭২ গোল করেছে সামুরাইরা। তাদের জালে বল প্রবেশ করেছে মাত্র ১৭ বার। ১৭২ গোলের মধ্যে বাংলাদেশের বিপক্ষে রয়েছে তাদের ২৪ গোলের এক জয়। ২০০৫ সালে দক্ষিণ কোরিয়ায় এএফসি অ-১৭ (আগে এই টুর্নামেন্ট অ-১৭ ছিল, ২০০৫ এরপর থেকে অ-১৬। প্রথম টুর্নামেন্ট ২০০৫-এ বাছাইপর্ব ছিল না।) টুর্নামেন্টের চূড়ান্ত পর্বে স্বাগতিকরা ২৪-০ গোলে জিতেছিল। এক যুগ পর আবার এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬’র মূল পর্বে বাংলাদেশ। এক যুগে বাংলাদেশ ব্যবধান কতটুকু কমাতে পারবে, তা জানা যাবে আজ।

আজকের খেলা

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ মূল পর্ব

বাংলাদেশ ও জাপান

শারীরিক শিক্ষা স্টেডিয়াম, চনবুরি

(বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টা)


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by