স্পোর্টস রিপোর্টার    |    
প্রকাশ : ২৪ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
জোনায়নার রেকর্ডে গর্বিত নাজমা
২০১২ সালের বয়সভিত্তিক সাঁতারে পুলে ঝড় তুলেছিলেন নাজমা খাতুন। সেবার বেশ কয়েকটি ইভেন্টে রেকর্ড গড়ে আলোচনায় আসেন তৎকালীন আনসারের এই সাঁতারু। অগ্রজ সবুরা খাতুনের রেকর্ড ভেঙে একাকার করে দিয়েছিলেন। পাঁচ বছর পর তারই রেকর্ডগুলো ভাঙতে শুরু করেছে আরেক সাঁতারু। যদিও প্রবাসী। ইংল্যান্ডে বেড়ে উঠলেও নাড়ির টানে এবার বাংলাদেশে এসে ঢাকার পুলে ঝড় তুলেছে জোনায়না আহমেদ। তার কীর্তিতে গর্বিত বর্তমানে নৌবাহিনীর সাঁতারু নাজমা। দূরে দাঁড়িয়ে জোনায়নার উচ্ছ্বাস দেখছেন আর হারিয়ে যাচ্ছিলেন যেন অতীতে। উচ্চতা ও শক্তপোক্ত শারীরিক গড়নের জন্য স্টার্টিং ব্লকে দাঁড়ানো জোনায়না আহমেদকে অনায়াসে আলাদা করা যাচ্ছিল অন্যদের চেয়ে। সাঁতার শুরু হতেই এই মেয়ে অন্যদের সঙ্গে নিজের ফারাকটা আরও পরিষ্কারভাবে বুঝিয়ে দিল। আগের দিন তিনটি ইভেন্টে নতুন জাতীয় রেকর্ড গড়েছিল। সোমবার ৪০০ মিটার ইন্ডিভিজুয়াল মিডলেতে সে যখন শেষ ৫০ মিটারের জন্য ঘুরছে, দ্বিতীয় স্থানে থাকা সাঁতারু তখন কেবল ৩০০ মিটার শেষ করেছে। জোনায়না ফিনিশিং প্যাড স্পর্শ করে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে পুরো এক লেন পেছনে রেখেই। বয়সভিত্তিক সাঁতারে কাল যারা এই ইভেন্টটি দেখছিলেন তাদের মধ্যে বিস্ময়ের যেন শেষ ছিল না। আগের দু’ইভেন্টেই বয়সভিত্তিক আসরের নতুন জাতীয় রেকর্ড শুধু নয়, ১৪ বছরের এই কিশোরী তছনছ করে দিয়েছে জাতীয় সিনিয়র রেকর্ডও। লন্ডন প্রবাসী বাংলাদেশি কন্যা জোনায়না আহমেদের কীর্তি দেখে দূর থেকে মুচকি হাসলেন সেই নাজমা খাতুন।
‘মেয়েটা বেছে বেছে আমার রেকর্ডগুলোই ভাঙছে (মুচকি হেসে)। আসলে অনেকদিন পর একজন সাঁতারুকে দেখলাম, যে আমার রেকর্ডগুলো ভাঙছে’, বলেন নাজমা। তিনি যোগ করেন, ‘ওই সময় আমিই ছিলাম তরুণদের মধ্যে সেরা সাঁতারু। সেই সময় আর হয়তো আসবে না। তবে দেখে ভালো লাগছে যে, আমার রেকর্ডগুলো কেউ ভাঙতে পারছে। যদিও সব রেকর্ড ভাঙতে পারেনি। এই যা সান্ত্বনা।’ নাজমার কথা, ‘আসলে মেয়েটার দম আছে। আমি গর্বিত ওর জন্য। তবে একটা বিষয় কিন্তু মনে রাখতে হবে আমাদের। লন্ডনের সুযোগ-সুবিধা আর বাংলাদেশের- এক নয়। এ বয়সে জোনায়না যে সুবিধা পেয়েছে, এখানকার মেয়েরা কিন্তু তা
পায় না। লন্ডনের বার্কিং অ্যান্ড ডগেনহ্যাম
ক্লাবের সাঁতারু সে। নিয়মিতই এসেক্স চ্যাম্পিয়নশিপে, লন্ডনের আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপে, বার্কিং অ্যান্ড ডগেনহ্যাম ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিচ্ছে। তাই রেকর্ডগুলো ওর (জোনায়না) কাছে সহজই মনে হচ্ছে। জোনায়নার রেকর্ড ভাঙতে অনেক দিন লাগবে এদেশের বয়সভিত্তিক সাঁতারুদের। আমি চাই আরও কেউ আসুক।’



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত