প্রকাশ : ২৪ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
নেইমারের শরীরে ফাউলের চিহ্ন!
প্রথম ফাউলের শিকার হওয়ার পর উঠে ফের বল নিয়ে ছুটছিলেন নেইমার। তখন আবারও ফাউল করা হয় তাকে। এবার মেজাজ হারিয়ে ধাক্কা দিলেন প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়কে। ফলে দ্বিতীয় হলুদ কার্ডের পর দেখলেন লাল কার্ড। ম্যাচ শেষে পিএসজি ফরোয়ার্ডের দাবি, এই শাস্তি তার প্রাপ্য ছিল না। ম্যাচজুড়ে উল্টো তাকে ফাউল করা হয়েছে, যার চিহ্ন রয়ে গেছে শরীরে। শুরুর দিকে মার্শেই এগিয়ে যাওয়ার পর সমতা ফেরান নেইমার। ম্যাচে পিএসজি আবার পিছিয়ে যাওয়ার পর ৮৭ মিনিটে নেইমারের লাল কার্ড। তবে এডিনসন কাভানির যোগ করা সময়ের গোলে রোববার রাতে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের মাঠ থেকে ২-২ ড্র নিয়ে ফেরে পিএসজি। মার্শেইয়ের খেলোয়াড়রা ম্যাচে সবচেয়ে বেশি ফাউল করেছেন নেইমারকে। মোট পাঁচবার ফাউলের শিকার হওয়া ২৫ বছর বয়সী ফুটবলার তাই লাল কার্ড মেনে নিতে পারছেন না। ‘আমি মনে করি, এটা বাড়াবাড়ি। অন্যায্য। অনেক ফাউলের শিকার হয়ে আমি ম্যাচটা পার করেছি। আমার শরীরে সেগুলোর চিহ্ন রয়েছে। একটা ফাউলের শিকার হওয়ার পরও আমি খেলার চেষ্টা করেছি। পেছন থেকে আঘাত পাওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছিলাম।’ রেফারির সমালোচনা করতেও ছাড়েননি নেইমার। ২২২ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফার ফি’তে বার্সেলোনা ছেড়ে পিএসজিতে আসা ব্রাজিলের এই ফরোয়ার্ড বলেন, ‘রেফারি যেটা চেয়েছিলেন, সেটাই করেছেন। সেটা হচ্ছে আমাকে মাঠে থেকে বের করে দেয়া।’
১০ ম্যাচে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে অপরাজিত পিএসজি। মোনাকো ২২ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে। ওয়েবসাইট।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত