রশিদ নৈপুণ্যে ঐতিহাসিক জয় আফগানিস্তানের

  স্পোর্টস ডেস্ক ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:২৫ | অনলাইন সংস্করণ

রশিদ

৩৯৮ রানের টার্গেট। অতীতে কখনো এত রান তাড়া করে জেতেনি বাংলাদেশ। ফলে হারের শংকা ছিলই। সেখানে ব্যাট করতে নেমে ১২৫ রানেই ৬ উইকেট খুইয়ে সেই শংকায় জ্বালানি জোগান টাইগাররা।

তবে আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল বৃষ্টি। যে কারণে চতুর্থ দিনের শেষবেলা খেলা হয়নি। পঞ্চম দিনের দুপুর গড়িয়েও গড়ায়নি। স্বভাবতই চাওয়া পূরণ করেছিল বৃষ্টি! বাকি একটু কাজ করতে হতো ব্যাটসম্যানদের। নির্বিঘ্নে কাটাতে হতো প্রায় ১৯ ওভার।

তবে আবারো সেই পুরনো দৃশ্যের পুনরাবৃত্তি। স্নায়ুচাপের মধ্যে হাঁটু কাঁপাকাঁপি, বারবার পরাস্ত, সঙ্গে নড়বড়ে ব্যাটিং। সাকিবরা এলেন আর গেলেন। ফলাফল যা হওয়ার তাই হয়েছে। টেস্ট ক্রিকেটের কনিষ্ঠতম দল আফগানিস্তানের কাছে লজ্জা বরণ করলেন স্বাগতিকরা। দুই দলের মুখোমুখি প্রথম টেস্টে ২২৪ রানে হারলেন তারা। মাথা নিচু করে মাঠ ছাড়লেন সৌম্য-নাঈম।

চট্টগ্রাম টেস্টে ঐতিহাসিক জয় পেল আফগানিস্তান। এ নিয়ে ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণে তিন ম্যাচের দুটিতেই জয় পেলেন আফগানরা। লংগার ভার্সনে এ কীর্তি আছে কেবল অস্ট্রেলিয়ার। অভিষেক টেস্টে ভারতের কাছে পরাজিত হয় নবীন দলটি। তবে পরের ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়ায় তারা। দ্বিতীয় টেস্টে আয়ারল্যান্ডকে হারান কাবুলিওয়ালারা।

সোমবারও বন্দরনগরীর আকাশ ভেঙে থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। ফলে নির্ধারিত সময়ে পঞ্চম ও শেষ দিনের খেলা শুরু হয়নি। গোটা সকাল চলে যায় বৃষ্টির পেটে। অবশেষে দুপুর ১টায় গড়ায় খেলা। তবে ১৩ বল হতেই আবার হানা দেয় বৃষ্টি। এতে খেলা বন্ধ হয়ে যায়।

পরে দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে ৪টা ২০ মিনিটে ফের খেলা শুরু হয়। তবে মাঠে নেমেই হোঁচট খায় বাংলাদেশ। প্রথম বলেই কট বিহাইন্ড হয়ে ফেরেন অভিজ্ঞ সাকিব আল হাসান। জহির খানের বল পিচ করে অফ স্টাম্পের বাইরে দিয়ে বের হয়ে যাচ্ছিল। অযাচিতভাবে তাতে খোঁচা দিতে গিয়ে আউট হন তিনি। ফেরার আগে করেন ৪ চারে লড়াকু ৪৪ রান।

সেই রেশ না কাটতেই ফেরেন মেহেদী মিরাজ। ফের ঘাতকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন রশিদ খান। তাকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তিনি। এতেই ক্ষ্যান্ত হননি আফগান অধিনায়ক। খানিক পর তাইজুল ইসলামকে একইভাবে শিকার করেন তিনি। বাংলাদেশ শিবিরে শেষ পেরেকটিও ঠুকেন রশিদ। সৌম্য সরকারকে ইব্রাহিম জাদরানের ক্যাচ বানিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন তিনি। ১৭৩ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ।

এ নিয়ে প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ৫ উইকেট দখলে নেন রশিদ। এতে অনন্য রেকর্ড গড়েছেন তিনি। প্রথম তরণ অধিনায়ক হিসেবে এক টেস্টে হাফসেঞ্চুরি ও ১০ উইকেট শিকারের বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন স্পিন জাদুকর।

বৃষ্টির কারণেই নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ হয় চতুর্থ দিনের খেলা। ফলে শেষ দিন প্রায় আধা ঘণ্টা আগে খেলা শুরু হওয়ার কথা ছিল। ৬ উইকেটে ১৩৬ রান নিয়ে দিন শেষ করেছিল বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান ৩৯ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে ছিলেন। সঙ্গে থাকা সৌম্য সরকার রানের খাতায় খুলতে পারেননি। তবে তারা নতুন দিনের শুরুতে খেলার গোড়াপত্তন করতে পারেননি।

নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬০ রানে অলআউট হয় আফগানিস্তান। দলের হয়ে ৮৭ রানের নান্দনিক ইনিংস খেলেন ইব্রাহিম জাদরান। ফলে ৩৯৭ রানের লিড পান সফরকারীরা। এতে একমাত্র টেস্টের নাটাই হাতে নেন তারা।

নিজেদের প্রথম ইনিংসে স্বপ্নের মতো ব্যাটিং করে আফগানিস্তান। রহমত শাহর ইতিহাস গড়া সেঞ্চুরিতে তোলে দলীয় সর্বোচ্চ ৩৪২ রান। জবাবে প্রথম ইনিংসে হতশ্রী পারফরম্যান্স প্রদর্শন করে বাংলাদেশ। ২০৫ রানে গুটিয়ে যায় তারা।

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশ-আফগানিস্তান টেস্ট-২০১৯

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×