বিপিএলেও ফিক্সিং চেষ্টা করেন পাকিস্তানি এই ক্রিকেটার

  স্পোর্টস ডেস্ক ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

বিপিএল

স্পট ফিক্সিং ও ফিক্সিংয়ের উদ্দেশ্যে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার নাসির জামশেদ। যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানচেস্টারে এক আদালতে নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি।

২০১৮ সালে পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) পিএসএলে অন্য ক্রিকেটারদের দিয়ে ফিক্সিং করানোর জন্য ঘুষ নেন জামশেদ। এছাড়া ২০১৭ আসরে ইসলামবাদ ইউনাইটেড ও পেশোয়ার জালমির একটি ম্যাচে তার সঙ্গে চুক্তি করেন বুকিরা। সেই শর্তানুযায়ী, প্রথম দুই বলে কোনো রান করতে পারবেন না তিনি। খেলায় সেটাই করে দেখান সাবেক পাক ব্যাটার।

তদন্তে উঠে এসেছে বিপিএলেও দুবার ফিক্সিংয়ের চেষ্টা করেন জামশেদ। যদিও সফল হতে পারেননি তিনি। ২০১৬ সালে বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের হয়ে খেলার সময় ফিক্সিংয়ের চেষ্টা করেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। ব্যাটে একটি নির্দিষ্ট রঙের গ্রিপ লাগিয়ে মাঠে নামার কথা ছিল তার। তবে সেই শর্ত পূরণ করতে পারেননি তিনি।

একই আসরে বরিশাল বুলসের বিপক্ষে একটি ম্যাচে ফিক্সিংয়ের কথা ছিল জামশেদের। তবে একাদশ থেকে বাদ পড়ায় সেবারও সফল হতে পারেননি তিনি। এই দুই ম্যাচেই ফিক্সিংয়ের জন্য অগ্রিম টাকা নেন এই পাকিস্তানি। ফিক্সিংয়ের এই পরিকল্পনায় তার সঙ্গে জড়িত ছিলেন ইউসুফ আনোয়ার ও মোহাম্মদ ইজাজ। দুজনই পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক। এ দায়ে উভয়ই আটক হন।

জবানবন্দিতে ইউসুফ বলেছেন, এক দশকেরও বেশি সময় ধরে ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত আমি। ২০১৬ বিপিএলে ৬ জন ক্রিকেটার ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

ফিক্সিংয়ের অভিযোগে ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে আটক হন জামশেদ। এরপর তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেন দেশটির আদালত। প্রথমে সব অভিযোগ অস্বীকার করলেও অবশেষে দোষ স্বীকার করলেন তিনি। ফিক্সিংয়ের জন্য সতীর্থকে ঘুষ দেয়া এবং নিজে অন্যদের কাছ থেকে অর্থ নেয়ার কথা অবলীলায় স্বীকার করেছেন এই বাঁহাতি।

ফিক্সিংয়ের ঘটনায় আটক ইজাজও জবানবন্দি দিয়েছেন। ইউসুফের সুরে কণ্ঠ মিলিয়ে তিনি বলেছেন, টাকার বিনিময়ে বাজে পারফরম্যান্স করেছেন জামশেদ। উল্লেখ্য, ফিক্সিংয়ের বিভিন্ন অভিযোগে গেল বছর তাকে ১০ বছর সবধরনের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।

ঘটনাপ্রবাহ : বিপিএল-২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

 
×