৫৩ রানে নেই তামিম-সাইফের উইকেট
jugantor
৫৩ রানে নেই তামিম-সাইফের উইকেট

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬:১৪:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা২৩৩ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে ৪৪৫ রানের বিশাল সংগ্রহ করেছেপাকিস্তান। ২১২ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমেও বিপাকে বাংলাদেশ দল। ৫৩ রানে দুই ওপেনার সাইফ হাসান ও তামিম ইকবালের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়েছে টাইগাররা।

৯ম ওভারে নাসিম শাহর বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তরুণ ওপেনার সাইফ হাসান। অভিষেক টেস্টে ব্যাটিংয়ে নেমেপ্রথম ইনিংসে শূন্য রানে আউট হওয়াসাইফ দ্বিতীয় ইনিংসে ফেরেন ১৬ রানে। দলীয় ৫৩ রানে ইয়াসির শাহরবলে এলবিডব্লিউহয়ে ফেরেন তামিম ইকবাল। আগের ইনিংসে মাত্র ৩ রান করা এ ওপেনার এদিন ফেরেন ৩৪ রানে।

রোববার সকালে আগের দিনে ৩ উইকেটে করা ৩৪২ রান নিয়ে ফের ব্যাটিংয়ে নামে পাকিস্তান।ব্যাটিংয়ে নেমে সুবিধা করতে পারেননি বাবর আজম।সকালেই সাজঘরে ফেরত আসেন পাকিস্তানের এ সেঞ্চুরিয়ান। শিকারী সেই আবু জায়েদ রাহী।

ব্যক্তিগত স্কোরে কোনো রানই যোগ করতে পারেননি পাক ইনফর্ম ব্যাটার। ফেরার আগে ১৯ চার ও ১ ছক্কায় ১৪৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন বাবর। তাতে ভাঙে ১৩৭ রানের জুটি। তার আগে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে দলকে লিডের পথে রাখেন শান মাসুদ (১০০)।

সঙ্গী বাবরকে হারিয়ে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি আসাদ। তাকে দ্রুত ফিরিয়ে দেন এবাদত হোসেন। ফেরার আগে ৯ চারে ৬৫ রান করেন এ টেস্ট স্পেশালিস্ট। এর পর দ্রুত উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ রিজওয়ানকে (১০) ফিরিয়ে দেন রুবেল হোসেন। ফাইন লেগে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের তালুবন্দি করে তাকে ফেরান তিনি।

খানিক পর ইয়াসির শাহকে প্যাভিলিয়নে পাঠান রিভার্স সুইং তারকা। তাকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তিনি। সেই রেশ না কাটতেই পাক শিবিরে আঘাত হানেন রুবেল। শাহিন আফ্রিদিকে বিদায় করেন তিনি।

সতীর্থ লোয়ারঅর্ডাররা যাওয়া-আসা করলেও থেকে যান হারিস সোহেল। সেঞ্চুরির পথে এগোচ্ছিলেন তিনি। তবে তাতে বাদ সাধেন তাইজুল ইসলাম। তাকে তামিমের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান তিনি। ফেরার আগে ৭ চার ও ২ ছয়ে ৭৫ রান করেন হারিস। পরক্ষণে নাসিম শাহকে রানআউট কেটে পাকিস্তানকে গুটিয়ে দেন সাইফ হাসান। বাংলাদেশের হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন রুবেল ও আবু জায়েদ।

এর আগে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৩৩ রান করে বাংলাদেশ। প্রথম দিনেই অলআউট হয়ে যায় তারা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৩ রান করেন মোহাম্মদ মিথুন। নাজমুল হোসেন শান্ত করেন ৪৪ রান। আর অধিনায়ক মুমিনুল হকের ব্যাট থেকে আসে ৩০ রান।

পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। আর ২টি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ আব্বাস ও হারিস সোহেল।

৫৩ রানে নেই তামিম-সাইফের উইকেট

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৪:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা ২৩৩ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে ৪৪৫ রানের বিশাল সংগ্রহ করেছে পাকিস্তান। ২১২ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমেও বিপাকে বাংলাদেশ দল। ৫৩ রানে দুই ওপেনার সাইফ হাসান ও তামিম ইকবালের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়েছে টাইগাররা। 

৯ম ওভারে নাসিম শাহর বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তরুণ ওপেনার সাইফ হাসান। অভিষেক টেস্টে ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ইনিংসে শূন্য রানে আউট হওয়া সাইফ দ্বিতীয় ইনিংসে ফেরেন ১৬ রানে। দলীয় ৫৩ রানে ইয়াসির শাহর বলে এলবিডব্লিউ হয়ে ফেরেন তামিম ইকবাল। আগের ইনিংসে মাত্র ৩ রান করা এ ওপেনার এদিন ফেরেন ৩৪ রানে। 

রোববার সকালে আগের দিনে ৩ উইকেটে করা ৩৪২ রান নিয়ে ফের ব্যাটিংয়ে নামে পাকিস্তান। ব্যাটিংয়ে নেমে সুবিধা করতে পারেননি বাবর আজম। সকালেই সাজঘরে ফেরত আসেন পাকিস্তানের এ সেঞ্চুরিয়ান। শিকারী সেই আবু জায়েদ রাহী।

ব্যক্তিগত স্কোরে কোনো রানই যোগ করতে পারেননি পাক ইনফর্ম ব্যাটার। ফেরার আগে ১৯ চার ও ১ ছক্কায় ১৪৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন বাবর। তাতে ভাঙে ১৩৭ রানের জুটি। তার আগে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে দলকে লিডের পথে রাখেন শান মাসুদ (১০০)।

সঙ্গী বাবরকে হারিয়ে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি আসাদ। তাকে দ্রুত ফিরিয়ে দেন এবাদত হোসেন। ফেরার আগে ৯ চারে ৬৫ রান করেন এ টেস্ট স্পেশালিস্ট। এর পর দ্রুত উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ রিজওয়ানকে (১০) ফিরিয়ে দেন রুবেল হোসেন। ফাইন লেগে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের তালুবন্দি করে তাকে ফেরান তিনি।

খানিক পর ইয়াসির শাহকে প্যাভিলিয়নে পাঠান রিভার্স সুইং তারকা। তাকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তিনি। সেই রেশ না কাটতেই পাক শিবিরে আঘাত হানেন রুবেল। শাহিন আফ্রিদিকে বিদায় করেন তিনি।

সতীর্থ লোয়ারঅর্ডাররা যাওয়া-আসা করলেও থেকে যান হারিস সোহেল। সেঞ্চুরির পথে এগোচ্ছিলেন তিনি। তবে তাতে বাদ সাধেন তাইজুল ইসলাম। তাকে তামিমের ক্যাচ বানিয়ে ফেরান তিনি। ফেরার আগে ৭ চার ও ২ ছয়ে ৭৫ রান করেন হারিস। পরক্ষণে নাসিম শাহকে রানআউট কেটে পাকিস্তানকে গুটিয়ে দেন সাইফ হাসান। বাংলাদেশের হয়ে ৩টি করে উইকেট নেন রুবেল ও আবু জায়েদ।

এর আগে রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৩৩ রান করে বাংলাদেশ। প্রথম দিনেই অলআউট হয়ে যায় তারা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৩ রান করেন মোহাম্মদ মিথুন। নাজমুল হোসেন শান্ত করেন ৪৪ রান। আর অধিনায়ক মুমিনুল হকের ব্যাট থেকে আসে ৩০ রান।

পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। আর ২টি করে উইকেট নেন মোহাম্মদ আব্বাস ও হারিস সোহেল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর-২০২০