সাফল্যের রহস্য জানালেন লিটন
jugantor
সাফল্যের রহস্য জানালেন লিটন

  স্পোর্টস রিপোর্টার  

১১ মার্চ ২০২০, ২১:৪৯:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সদ্য শেষ হওয়া তিন সিরিজে সবচেয়ে ধারাবাহিক ব্যাটসম্যান লিটন কুমার দাস। টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজের সবশেষ ছয় ইনিংসে দুটি সেঞ্চুরি আর তিন ফিফটির সাহায্যে ৮০.৫০ গড়ে ৪৮৩ রান সংগ্রহ করেছেন লিটন দাস। 

ধারাবাহিক এমন পারফরম্যান্স নিয়ে বুধবার খেলা শেষে লিটন বলেন, নিজেকে নিয়ে আমার খুব গর্ববোধ হচ্ছে। ভগবানের প্রতি কৃতজ্ঞতা। ভগবান ছাড়া সম্ভব হত না। আমি শুধু অনুশীলনে কঠোর পরিশ্রম করে গেছি এবং খেলার প্রসেস বদলেছি- যে জিনিসটা আমাকে অনেক সাহায্য করেছে।

তিনি আরও বলেন, বিশেষ করে কোচিং স্টাফদের আমি ধন্যবাদ দিতে চাই। কারণ নেটে ব্যাটিং করার সময় তারা সবসময় আমার দিকে মনোযোগ দিয়েছেন। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো সবসময় বলেছেন- স্বাভাবিক খেলা খেলো, শুধু টাইমিংটা ঠিকমত করো। তামিম ইকবাল ভাইয়ের সঙ্গেও ভালো বোঝাপড়া  হয়েছিল, এতদিন উইকেটে অনেক বুঝিয়েছে। এসব কারণেই ভালো সাফল্য পেয়েছি আমি।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম খেলায় ১০৫ বলে ১২৬ রান করে দলের জয়ে অবদান রেখে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন লিটন। তৃতীয় ম্যাচে দেশের হয়ে ওয়ানডেতে (ব্যক্তিগত) রেকর্ড সর্বোচ্চ ১৪৩ বলে ১৭৬ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন এ ওপেনার। 

ওয়ানডে সিরিজে তিন ম্যাচে দুটি সেঞ্চুরির (১২৬ ও ১৭৬) সাহায্যে সর্বোচ্চ ৩১১ রান করে সিরিজ সেরার পুরস্কার জেতেন লিটন। তার আগে একমাত্র টেস্টে খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস। 

ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজেও ধারাবাহিক লিটন। প্রথম ম্যাচে ৩৯ বলে খেলেন ৫৯ রানের ঝকঝকে ইনিংস।

বুধবার দ্বিতীয় ম্যাচে ৪৫ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৬০ রানের লড়াকু ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরার পাশাপাশি দুই খেলায় ১১৯ রান করে জেতেন সিরিজ সেরার পুরস্কারও। 

সাফল্যের রহস্য জানালেন লিটন

 স্পোর্টস রিপোর্টার 
১১ মার্চ ২০২০, ০৯:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সদ্য শেষ হওয়া তিন সিরিজে সবচেয়ে ধারাবাহিক ব্যাটসম্যান লিটন কুমার দাস। টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজের সবশেষ ছয় ইনিংসে দুটি সেঞ্চুরি আর তিন ফিফটির সাহায্যে ৮০.৫০ গড়ে ৪৮৩ রান সংগ্রহ করেছেন লিটন দাস।

ধারাবাহিক এমন পারফরম্যান্স নিয়ে বুধবার খেলা শেষে লিটন বলেন, নিজেকে নিয়ে আমার খুব গর্ববোধ হচ্ছে। ভগবানের প্রতি কৃতজ্ঞতা। ভগবান ছাড়া সম্ভব হত না। আমি শুধু অনুশীলনে কঠোর পরিশ্রম করে গেছি এবং খেলার প্রসেস বদলেছি- যে জিনিসটা আমাকে অনেক সাহায্য করেছে।

তিনি আরও বলেন, বিশেষ করে কোচিং স্টাফদের আমি ধন্যবাদ দিতে চাই। কারণ নেটে ব্যাটিং করার সময় তারা সবসময় আমার দিকে মনোযোগ দিয়েছেন। প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো সবসময় বলেছেন- স্বাভাবিক খেলা খেলো, শুধু টাইমিংটা ঠিকমত করো। তামিম ইকবালভাইয়ের সঙ্গেও ভালো বোঝাপড়া হয়েছিল, এতদিন উইকেটে অনেক বুঝিয়েছে। এসব কারণেই ভালো সাফল্য পেয়েছি আমি।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম খেলায় ১০৫ বলে ১২৬ রান করে দলের জয়ে অবদান রেখে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন লিটন। তৃতীয় ম্যাচে দেশের হয়ে ওয়ানডেতে (ব্যক্তিগত) রেকর্ড সর্বোচ্চ ১৪৩ বলে ১৭৬ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরার পুরস্কারজেতেন এ ওপেনার।

ওয়ানডে সিরিজে তিন ম্যাচে দুটি সেঞ্চুরির (১২৬ ও ১৭৬) সাহায্যে সর্বোচ্চ ৩১১ রান করে সিরিজ সেরার পুরস্কার জেতেন লিটন। তার আগে একমাত্র টেস্টে খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস।

ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজেও ধারাবাহিক লিটন। প্রথম ম্যাচে ৩৯ বলে খেলেন ৫৯ রানের ঝকঝকে ইনিংস।

বুধবার দ্বিতীয় ম্যাচে ৪৫ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৬০ রানের লড়াকু ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরার পাশাপাশি দুই খেলায় ১১৯ রান করে জেতেন সিরিজ সেরার পুরস্কারও।

 

ঘটনাপ্রবাহ : জিম্বাবুয়ের বাংলাদেশ সফর -২০২০