ফিফার কাছ থেকে পাওয়া টাকা যেন মিস ইউজ না হয়: শেখ আসলাম

  আল-মামুন ১৯ মে ২০২০, ২১:১১:৪১ | অনলাইন সংস্করণ

শেখ মোহাম্মদ আসলাম

করোনাভাইরাসের এই সংকটমুহূর্তে দেশের অর্থনীতি, ক্রীড়াঙ্গনসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে যুগান্তরের সঙ্গে কথা বলেছেন জাতীয় দলের সাবেক তারকা ফুটবলার শেখ মোহাম্মদ আসলাম। তার সাক্ষাৎকার নিয়েছে স্পোর্টস রিপোর্টার আল-মামুন

যুগান্তর: করোনার এই সংকটে কেমন আছেন?

শেখ আসলাম: আলহামদুলিল্লাহ, ভালো আছি। আপনি ভালো আছেন? আপনার পরিবারের সবাই ভালো আছে?

যুগান্তর: আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি।

যুগান্তর: মহামারীর এই সংক্রমণের মধ্যে এখন কি করছেন?

শেখ আসলাম: এখন কি আর করব বলেন! কোথায়ও যেতে পারছি না, সারাক্ষণ ঘরে বন্দি জীবন কাটাচ্ছি। সরকার থেকে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সেগুলো ফলো করছি। এখন সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। যতো বেশি অ্যাওয়ারনেস বাড়ানো যাবে তত তাড়াতাড়ি আমরা এই বিপদ থেকে মুক্তি পাব।

যুগান্তর: বিশ্লেষকরা বলছেন করোনা পরবর্তী সময়ে বিশ্বে একটা আর্থিক মন্দা দেখা দিতে পারে, আপনার কি মত?

শেখ আসলাম: এটাই হলো আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জিং ম্যাটার। আমি আশা করব প্রধানমন্ত্রীসহ সবাই এ ব্যাপারে সজাগ এবং সচেতন আছেন। আমাদের ইকোনমিটা যদি সচল না রাখা যায় তাহলে আমরা বিশাল ক্রাইসিসের মধ্যে পড়ে যাব।

এই মুহূর্তে ইকোনমি হলো বড় ক্রাইসিস। আমরা আশা করব এটা থেকে যেন পরিত্রাণ পাই এবং আমাদের সুচিন্তিত মতামতের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী যেভাবে গাইডলাইন দিয়ে যাচ্ছেন সেভাবে যদি আমরা মেইনটেইন করতে পারি তাহলে আশা করি আল্লাহ আমাদের সহায় হবেন। সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো সমকিছুর মূলেই কিন্তু সৃষ্টিকর্তা, আমাদের ওপর যদি আল্লাহর করুণা থাকে তাহলে আমরা বেঁচে যাব।

যুগান্তর: করোনায় ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক সব খেলাই বন্ধ, এমন পরিস্থিতিতে ফিটনেস ধরে রাখা কতটা চ্যালেঞ্জিং?

শেখ আসলাম: এটা খুব কষ্টকর ব্যাপার। যারা কারেন্ট প্লেয়ার আছে তাদের জন্য আমার পরামর্শ এটাই থাকবে তারা যাতে বাসায় বসে ওয়েটলিফটিংসহ যে ব্যায়ামগুলো করা যায় তা করে নিজেদের ফিটনেস ধরে রাখে। বাড়ির ছাদে বা রুমে বসেই সেই চর্চাগুলো করা যেতে পারে। প্রতিদিন যদি এক ঘণ্টার মতো একটা সেশন করা যায়, আমি মনে করি যে গুড এনাফ ফর এনি স্পোর্টসম্যান। আমি নিজেও এখন ছাদে গিয়ে ব্যায়াম করি এবং টেনিস নক করে চলে আসি। এটা করলে আত্মবিশ্বাসের লেভেলটা আপ থাকবে।

যুগান্তর: করোনায় খেলাধুলা বন্ধ থাকায় সবচেয়ে কষ্টে রয়েছেন আমাদের লোকাল প্লেয়াররা, তদের রুটি-রুজির পথ বন্ধ, তাদের নিয়ে কিছু বলুন।

শেখ আসলাম: এটা একটা দারুণ প্রশ্ন করেছেন, আমি টেনিস ফেডারেশনের সঙ্গে আছি। আমি ছোটখাটোভাবে একটা ফান্ডরাইজ করার চেষ্টা করছি। টেনিসের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের আমরা আর্থিকভাবে ঈদের আগেই সহযোগিতা করার চেষ্টা করছি। পাশাপাশি আমি বলব ফিফা থেকে যে বড় একটা অনুদান বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনে (বাফুফে) এসেছে সেটার যেন সুষ্ঠু ব্যবহার হয়।

আমাদের যেসব খেলোয়াড় আছে, যারা ফুটবলটাকে বাঁচিয়ে রেখেছে, সেসব অসহায় খেলোয়াড়, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং রেফারিসহ খেলা সংশ্লিষ্ট যারা আছে তাদের পাশে বিএফএফ যেন দাঁড়ায়। আপনাদের যুগান্তরের মাধ্যমে বাফুফের কাছে আমার আবেদন থাকবে, এই টাকাটা যেন মিস ইউজ না হয়। সুষ্ঠু ব্যবহার যেন হয়।

যুগান্তর: সময় দেয়ার জন্য ধন্যবাদ, ভালো থাকবেন।

শেখ আসলাম: আপনাকেও ধন্যবাদ, ভালো থাকবেন।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত