‘আইপিএলে চীনের স্পন্সর থাকলে ভারতেরই লাভ’
jugantor
‘আইপিএলে চীনের স্পন্সর থাকলে ভারতেরই লাভ’

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৯ জুন ২০২০, ১৯:৪১:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

আইপিএল ট্রফি
আইপিএল ট্রফি। ফাইল ছবি

ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল বলেছেন, আমরা যখন চীনের কোনো সংস্থাকে ভারতে পণ্য বিক্রির অনুমতি দিচ্ছি, তখন ওরা ভারতীয় ক্রেতাদের থেকে অর্থ নিয়ে চলে যাচ্ছে। তবে কিছু অর্থ আমাদের বোর্ডকে দিচ্ছে। আর বোর্ড আবার সেই অর্থের ৪২ শতাংশ কর হিসেবে সরকারকে দিচ্ছে। তাই এ ক্ষেত্রে ভারতের স্বার্থই রক্ষিত হচ্ছে, চীনের নয়।

২০২২ সাল পর্যন্ত চীনের স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ভিভোর সঙ্গে চুক্তি রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের। প্রত্যেক বছর ভিভোর থেকে বোর্ডের আয় ৪৪০ কোটি টাকা।

আইপিএলে চীনের স্পন্সর রাখার ব্যাপারে বোর্ডের মনোভাব স্পষ্ট করে অরুণ ধুমল আরও বলেছেন, চীনের অর্থ যখন ভারতীয় ক্রিকেটের সাহায্যে আসছে, তখন তা মেনে নেয়া উচিত। আমিও ব্যক্তিগতভাবে চীনের পণ্যে বিধি-নিষেধ জারির পক্ষে। তবে চীনের কোম্পানি থেকে স্পন্সরশিপ এনে আমরা এখানে সরকারকে সাহায্য করছি, ভারতের স্বার্থরক্ষা করছি।

তিনি আরও বলেন, চীনের সংস্থা থেকে আমরা স্পনসরশিপের অর্থ পেতে পারি। তার মধ্যে ভারতের সংস্থাও থাকতে পারে। কিন্তু চীনের কোম্পানি যখন এখানে পণ্য বিক্রি করছে, তখন সেই অর্থের কিছুটা ভারতীয় অর্থনীতিতে ফিরে আসাই ভালো। বিসিসিআই চীনে অর্থ দিচ্ছে না। তাই আবেগ নয়, যুক্তির মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত।

সোমবার রাতে গলওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চীনের সেনা সংঘর্ষে ভারতের এক কর্নেলসহ ২০ সেনা সদস্য নিহত হন। তারপর থেকেই গলওয়ান উপত্যকায় চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এরপর থেকেই ভারতীয়রা চীনের পণ্য বর্জনের ঘোষণা দেন। তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এতকিছুর পরও ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) টাইটেল স্পন্সর হিসেবে চীনের কোম্পানি ভিভোকেই রাখার পক্ষে।

‘আইপিএলে চীনের স্পন্সর থাকলে ভারতেরই লাভ’

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৯ জুন ২০২০, ০৭:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আইপিএল ট্রফি
আইপিএল ট্রফি। ফাইল ছবি

ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমাল বলেছেন, আমরা যখন চীনের কোনো সংস্থাকে ভারতে পণ্য বিক্রির অনুমতি দিচ্ছি, তখন ওরা ভারতীয় ক্রেতাদের থেকে অর্থ নিয়ে চলে যাচ্ছে। তবে কিছু অর্থ আমাদের বোর্ডকে দিচ্ছে। আর বোর্ড আবার সেই অর্থের ৪২ শতাংশ কর হিসেবে সরকারকে দিচ্ছে। তাই এ ক্ষেত্রে ভারতের স্বার্থই রক্ষিত হচ্ছে, চীনের নয়।

২০২২ সাল পর্যন্ত চীনের স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ভিভোর সঙ্গে চুক্তি রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের। প্রত্যেক বছর ভিভোর থেকে বোর্ডের আয় ৪৪০ কোটি টাকা।

আইপিএলে চীনের স্পন্সর রাখার ব্যাপারে বোর্ডের মনোভাব স্পষ্ট করে অরুণ ধুমল আরও বলেছেন, চীনের অর্থ যখন ভারতীয় ক্রিকেটের সাহায্যে আসছে, তখন তা মেনে নেয়া উচিত। আমিও ব্যক্তিগতভাবে চীনের পণ্যে বিধি-নিষেধ জারির পক্ষে। তবে চীনের কোম্পানি থেকে স্পন্সরশিপ এনে আমরা এখানে সরকারকে সাহায্য করছি, ভারতের স্বার্থরক্ষা করছি।

তিনি আরও বলেন, চীনের সংস্থা থেকে আমরা স্পনসরশিপের অর্থ পেতে পারি। তার মধ্যে ভারতের সংস্থাও থাকতে পারে। কিন্তু চীনের কোম্পানি যখন এখানে পণ্য বিক্রি করছে, তখন সেই অর্থের কিছুটা ভারতীয় অর্থনীতিতে ফিরে আসাই ভালো। বিসিসিআই চীনে অর্থ দিচ্ছে না। তাই আবেগ নয়, যুক্তির মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত।

সোমবার রাতে গলওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চীনের সেনা সংঘর্ষে ভারতের এক কর্নেলসহ ২০ সেনা সদস্য নিহত হন। তারপর থেকেই গলওয়ান উপত্যকায় চরম উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এরপর থেকেই ভারতীয়রা চীনের পণ্য বর্জনের ঘোষণা দেন। তবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এতকিছুর পরও ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) টাইটেল স্পন্সর হিসেবে চীনের কোম্পানি ভিভোকেই রাখার পক্ষে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : আইপিএল-২০২০

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০