‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ পুরস্কার আড়াই কেজি ওজনের আস্ত মাছ!
jugantor
‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ পুরস্কার আড়াই কেজি ওজনের আস্ত মাছ!

  স্পোর্টস ডেস্ক  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৫১:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

ক্রিকেটে ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’-এর পুরস্কার বলতেই কল্পনায় ভাসে সুদৃশ্য ক্রেস্ট বা ট্রফি, কিংবা মেডেল বা নগদ অর্থ। বড় বাজেটের টুর্নামেন্টে প্রতীকী চেকের পাতা তুলে দেয়া হয় ম্যাচ সেরার হাতে।

কিন্ত না এবার ঘটল অদ্ভুত ঘটনা। দুদার্ন্ত খেলে ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ হয়ে পুরস্কার পেলেন আড়াই কেজি ওজনের একটি মাছ। আর সেই মাছ ধরে ফটোসেশনও করলেন খেলোয়াড় ও আয়োজক সদস্যবৃন্দ।

এমন আজব ঘটনা ঘটেছে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের কুপওয়ারার তেকিপোরাতে অঞ্চলে।

ভারতের সংবাদমাধ্যম জানায়, তেকিপোরাতে স্থানীয় এক ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ হিসেবে প্রচলিত নিয়মের বাইরে চমকে দিয়েছেন আয়োজকরা। ম্যাচসেরা খেলোয়াড়কে তারা আড়াই কেজি ওজনের আস্ত একটি মাছ ধরিয়ে দেয়।


ঘটনাটি ছবিসহ নিজের টুইটার হ্যান্ডল শেয়ার করে ফিরদৌস হাসান নামের এক কাশ্মীরি লিখেছেন, ‘প্রতিযোগিতাকে জনপ্রিয় করতেই মাছ দেয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো এই মাঠকে খেলার যোগ্য করতে ক্রিকেটাররা নিজেদের পকেট থেকে টাকা দিয়েছেন।’

ফিরদৌস হাসানের ওই টুইটের পরই ভারতের সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টি ভাইরাল হয়ে পড়ে।

‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ পুরস্কার আড়াই কেজি ওজনের আস্ত মাছ!

 স্পোর্টস ডেস্ক 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ক্রিকেটে ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’-এর পুরস্কার বলতেই কল্পনায় ভাসে সুদৃশ্য ক্রেস্ট বা ট্রফি, কিংবা মেডেল বা নগদ অর্থ। বড় বাজেটের টুর্নামেন্টে প্রতীকী চেকের পাতা তুলে দেয়া হয় ম্যাচ সেরার হাতে। 

কিন্ত না এবার ঘটল অদ্ভুত ঘটনা। দুদার্ন্ত খেলে ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ হয়ে পুরস্কার পেলেন আড়াই কেজি ওজনের একটি মাছ। আর সেই মাছ ধরে ফটোসেশনও করলেন খেলোয়াড় ও আয়োজক সদস্যবৃন্দ।

এমন আজব ঘটনা ঘটেছে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের কুপওয়ারার তেকিপোরাতে অঞ্চলে।

ভারতের সংবাদমাধ্যম জানায়, তেকিপোরাতে স্থানীয় এক ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় ‘ম্যান অব দ্য ম্যাচ’ হিসেবে প্রচলিত নিয়মের বাইরে চমকে দিয়েছেন আয়োজকরা। ম্যাচসেরা খেলোয়াড়কে তারা  আড়াই কেজি ওজনের আস্ত একটি মাছ ধরিয়ে দেয়।


ঘটনাটি ছবিসহ নিজের টুইটার হ্যান্ডল শেয়ার করে ফিরদৌস হাসান নামের এক কাশ্মীরি লিখেছেন, ‘প্রতিযোগিতাকে জনপ্রিয় করতেই মাছ দেয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো এই মাঠকে খেলার যোগ্য করতে ক্রিকেটাররা নিজেদের পকেট থেকে টাকা দিয়েছেন।’ 

 

 ফিরদৌস হাসানের ওই টুইটের পরই ভারতের সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টি ভাইরাল হয়ে পড়ে।