‘আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয়া হয়েছে’
jugantor
‘আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয়া হয়েছে’

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৭ অক্টোবর ২০২০, ২২:০৫:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

মহামারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ইতালির ক্রীড়ামন্ত্রী ভিনসেঞ্জো স্পাদাফোরা বলেছেন, রোনালদো কোয়ারেন্টিনের নিয়ম ভেঙেছেন।

ইতালির ক্রীড়ামন্ত্রীর এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পর্তুগিজ তারকা ফুটবলার রোনালদো বলেছেন, আমি কোয়ারেন্টিনেই আছি এবং সব নিয়মকানুন মেনে চলছি। আমার বিরুদ্ধে মানুষজন যে নিয়ম ভাঙার কথা বলছেন, সেটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট।

আন্তর্জাতিক ফুটবল বিরতিতে পর্তুগালের হয়ে খেলতে গিয়েছিলেন রোনালদো। সেখানেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। এর মধ্যে ইতালিতে উড়ে আসার কারণে নাকি করোনা প্রটোকল ভেঙেছেন রোনালদো। বলা হচ্ছে, কোয়ারেন্টিনের সময়টা পর্তুগালেই কাটিয়ে আসতে হতো তাকে।

বুধবার লিসবন থেকে ব্যক্তিগত বিমানে তুরিনে ফিরে আসেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড। এরপরই উঠেছে করোনাবিধি ভাঙার অভিযোগ। এমন অভিযোগে রোনালেদো বলেছেন, আমরা চিকিৎসা বিমানে করে ইতালিতে প্রবেশ করেছি, এরপর কারও সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন না করে অ্যাম্বুলেন্সে বাসায় এসেছি। তাই যেসব কথা হচ্ছে, সব মিথ্যা। আসলে ইতালির একজনই এটা নিয়ে কথা বলছেন, আমি তার নাম বলতে চাই না।

‘আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয়া হয়েছে’

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৭ অক্টোবর ২০২০, ১০:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মহামারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ইতালির ক্রীড়ামন্ত্রী ভিনসেঞ্জো স্পাদাফোরা বলেছেন, রোনালদো কোয়ারেন্টিনের নিয়ম ভেঙেছেন।

ইতালির ক্রীড়ামন্ত্রীর এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পর্তুগিজ তারকা ফুটবলার রোনালদো বলেছেন, আমি কোয়ারেন্টিনেই আছি এবং সব নিয়মকানুন মেনে চলছি।  আমার বিরুদ্ধে মানুষজন যে নিয়ম ভাঙার কথা বলছেন, সেটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। 

আন্তর্জাতিক ফুটবল বিরতিতে পর্তুগালের হয়ে খেলতে গিয়েছিলেন রোনালদো। সেখানেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। এর মধ্যে ইতালিতে উড়ে আসার কারণে নাকি করোনা প্রটোকল ভেঙেছেন রোনালদো। বলা হচ্ছে, কোয়ারেন্টিনের সময়টা পর্তুগালেই কাটিয়ে আসতে হতো তাকে।

বুধবার লিসবন থেকে ব্যক্তিগত বিমানে তুরিনে ফিরে আসেন জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড। এরপরই উঠেছে করোনাবিধি ভাঙার অভিযোগ। এমন অভিযোগে রোনালেদো বলেছেন, আমরা চিকিৎসা বিমানে করে ইতালিতে প্রবেশ করেছি, এরপর কারও সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন না করে অ্যাম্বুলেন্সে বাসায় এসেছি। তাই যেসব কথা হচ্ছে, সব মিথ্যা। আসলে ইতালির একজনই এটা নিয়ে কথা বলছেন, আমি তার নাম বলতে চাই না।