৯ উইকেটের বিশাল জয়ে শুরু চট্টগ্রামের
jugantor
৯ উইকেটের বিশাল জয়ে শুরু চট্টগ্রামের

  স্পোর্টস ডেস্ক  

২৬ নভেম্বর ২০২০, ২১:১৭:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের চতুর্থ ম্যাচে বিশাল জয় পেল মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বাধীন চট্টগ্রাম।

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বাধীন ঢাকাকে ৯ উইকেটে হারায় চট্টগ্রাম।

এ দিন প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দুই বাঁ-হাতি পেসার মোস্তাফিজুর রহমান ও শরিফুল ইসলাম আর দুই স্পিনার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও তাইজুল ইসলামের বলে বিভ্রান্ত হয়ে ১৬.২ ওভারে ৮৮ রানে অলআউট হয় ঢাকা।

সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৫৭ বল হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম। শেষ দিকে জয়ের জন্য ৬৪ বলে চট্টগ্রামের প্রয়োজন ছিল মাত্র ১০ রান। খেলার এমন সময় নাসুম আহমেদের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ওপেনার লিটন কুমার দাস। তার আগে উদ্বোধনী জুটিতে সৌম্য সরকারের সঙ্গে গড়েন ৭৯ রানের জুটি। সাজঘরে ফেরার আগে ৩৩ বলে ৩৪ রান করেন লিটন।

তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নামা মুমিনুল হক সৌরভকে সঙ্গে নিয়ে এরপর সাত বল খেলে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন অন্য ওপেনার সৌম্য। তিনি ২৯ বলে ৪টি চার ও দুই ছক্কায় ৪৪ রানে অপরাজিত থাকেন। তিন বলে দুই চারে ৮ রান করেন মুমিনুল।

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মোস্তাফিজের নেতৃত্বাধীন চট্টগ্রামের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে সময়ের ব্যবধানে উইকেট হারায় ঢাকা।

দলীয় ৭ রানে শরিফুলের বলে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম। ১৪ রানের ব্যবধানে নেই তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নামা সাব্বির রহমান রুম্মনের উইকেট। আগের ম্যাচে ৭ বলে অপরাজিত ৫ রান করা এই অলরাউন্ডার এদিন ১০ বল খেলেও রানের খাতা খুলতে পারেননি। ব্যাটিংয়ে নেমেই গোল্ডেন ডাক মারেন অধিনায়ক মুশফিক। নাহিদুলের বলে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন জাতীয় দলের এই নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান।

২১ রানে তানিজদ, সাব্বির, মুশফিকের বিদায়ের পর চতুর্থ উইকেটে আকবর আলীকে সঙ্গে নিয়ে ৪৪ রানের জুটি গড়েন অন্য ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ। ১৩ বলে ১৫ রান করে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বলে বোল্ড আকবর। একইভাবে আউট হন ইনিংসের শুরু থেকে বাড়তি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয়া নাঈম শেখ। তিনিও মোসাদ্দেকের বলে বোল্ড হন। তার আগে ২৩ বলে তিন চার ও তিন ছক্কায় করেন দলীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান।

পেস বোলার আবু হায়দার রনিকে রানের খাতাই খুলতে দেননি বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। ১৩ বল খেলে ৩ রান করা শাহাদাত হোসনকে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান। ৯ বলে ৮ রান করা নাসুম আহমেদ আউট হন সৌম্য সরকারের বলে।

মাত্র তিন বল খেলা রুবেল হোসেনকে রানের খাতা খুলতে দেননি জাতীয় দলের টেস্ট স্পেশালিস্ট স্পিনার তাইজুল ইসলাম। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মুক্তার আলীকে আউট করে ঢাকাকে ১৬.২ ওভারে ৮৮ রানে প্যাকেট করে দেন চট্টগ্রামের অধিনায়ক মোস্তাফিজ। তার আগে ১৬ বলে ১২ রান করার সুযোগ পান মুক্তার আলী।

৯ উইকেটের বিশাল জয়ে শুরু চট্টগ্রামের

 স্পোর্টস ডেস্ক 
২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৯:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের চতুর্থ ম্যাচে বিশাল জয় পেল মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বাধীন চট্টগ্রাম।

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বাধীন ঢাকাকে ৯ উইকেটে হারায় চট্টগ্রাম।

এ দিন প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দুই বাঁ-হাতি পেসার মোস্তাফিজুর রহমান ও শরিফুল ইসলাম আর দুই স্পিনার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও তাইজুল ইসলামের বলে বিভ্রান্ত হয়ে ১৬.২ ওভারে ৮৮ রানে অলআউট হয় ঢাকা। 

সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৫৭ বল হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম। শেষ দিকে জয়ের জন্য ৬৪ বলে চট্টগ্রামের প্রয়োজন ছিল মাত্র ১০ রান। খেলার এমন সময় নাসুম আহমেদের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ওপেনার লিটন কুমার দাস। তার আগে উদ্বোধনী জুটিতে সৌম্য সরকারের সঙ্গে গড়েন ৭৯ রানের জুটি। সাজঘরে ফেরার আগে ৩৩ বলে ৩৪ রান করেন লিটন। 

তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নামা মুমিনুল হক সৌরভকে সঙ্গে নিয়ে এরপর সাত বল খেলে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন অন্য ওপেনার সৌম্য। তিনি ২৯ বলে ৪টি চার ও দুই ছক্কায় ৪৪ রানে অপরাজিত থাকেন। তিন বলে দুই চারে ৮ রান করেন মুমিনুল। 

বৃহস্পতিবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মোস্তাফিজের নেতৃত্বাধীন চট্টগ্রামের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে সময়ের ব্যবধানে উইকেট হারায় ঢাকা। 

দলীয় ৭ রানে শরিফুলের বলে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম। ১৪ রানের ব্যবধানে নেই তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নামা সাব্বির রহমান রুম্মনের উইকেট। আগের ম্যাচে ৭ বলে অপরাজিত ৫ রান করা এই অলরাউন্ডার এদিন ১০ বল খেলেও রানের খাতা খুলতে পারেননি। ব্যাটিংয়ে নেমেই গোল্ডেন ডাক মারেন অধিনায়ক মুশফিক। নাহিদুলের বলে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন জাতীয় দলের এই নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান। 

২১ রানে তানিজদ, সাব্বির, মুশফিকের বিদায়ের পর চতুর্থ উইকেটে আকবর আলীকে সঙ্গে নিয়ে ৪৪ রানের জুটি গড়েন অন্য ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম শেখ।  ১৩ বলে ১৫ রান করে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বলে বোল্ড আকবর। একইভাবে আউট হন ইনিংসের শুরু থেকে বাড়তি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয়া নাঈম শেখ। তিনিও মোসাদ্দেকের বলে বোল্ড হন। তার আগে ২৩ বলে তিন চার ও তিন ছক্কায় করেন দলীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান। 

পেস বোলার আবু হায়দার রনিকে রানের খাতাই খুলতে দেননি বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। ১৩ বল খেলে ৩ রান করা শাহাদাত হোসনকে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান। ৯ বলে ৮ রান করা নাসুম আহমেদ আউট হন সৌম্য সরকারের বলে। 

মাত্র তিন বল খেলা রুবেল হোসেনকে রানের খাতা খুলতে দেননি জাতীয় দলের টেস্ট স্পেশালিস্ট স্পিনার তাইজুল ইসলাম। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মুক্তার আলীকে আউট করে ঢাকাকে ১৬.২ ওভারে ৮৮ রানে প্যাকেট করে দেন চট্টগ্রামের অধিনায়ক মোস্তাফিজ। তার আগে ১৬ বলে ১২ রান করার সুযোগ পান মুক্তার আলী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ