খুলনার কাছে বড় ব্যবধানে হারল বরিশাল
jugantor
খুলনার কাছে বড় ব্যবধানে হারল বরিশাল

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৫:৪৮:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

দলে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করলেন বাঁহাতি উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকির হাসান।

বরিশালের বিপক্ষে এনামুল হক বিজয়ের বদলে ওপেনিংয়ে নেমে ৪২ বলে ৬৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেললেন জাকির।

তার ব্যাটে ভর করে বরিশালকে ১৭৪ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেয় খুলনা।

আর এই লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়ে ৪৮ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে ফরচুন বরিশাল।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ভালোই শুরু করে বরিশাল। ওপেনার তামিম ইকবাল ও পারভেজ হোসেন ইমন দেখেশুনে খেলতে থাকেন।

২৬ বলে ১৯ রান করে শুভাগত হোমের বলে সরাসরি বোল্ড হন পারভেজ।

আফিফ হোসেন দুর্ভাগ্যক্রমে মাত্র ৩ রান করেই আউট হন।

চমৎকার খেলে যেতে থাকলেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি তামিম ইকবাল।

২১ বল খেলে ৩২ রান করে সেই শুভাগত হোমের বলেই ধরা দেন তামিম।

দলের হাল করেন তৌহিদ হৃদয়।

তবে তাকে সেভাবে আর কেউ সঙ্গ দিতে পারেননি।

ইরফান শুক্কুরকে ১৬ রানে বোল্ড করেন সাকিব।

এর পর বাকি সবাই আসা-যাওয়ার মধ্যেই ছিলেন।

২৭ বল খেলে হাসান মাহমুদের বলে আউট হওয়ার আগে ৩৩ রান করেন তৌহিদ।

১৯.৫ ওভার পর্যন্ত খেলতে পারলেও ১২৫ রানের বেশি করতে পারেনি ফরচুন বরিশাল।

ফলে ৪৮ রানের বড় ব্যবধানে জেমকন খুলনার কাছে হারল ফরচুন বরিশাল।

এর আগে টস জিতে খুলনাকে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠান বরিশাল অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

আজ আর ওপেন করতে নামেননি খুলনার সাকিব আল হাসান। ওপেনিংয়ে নামেন জহুরুল ইসলাম ও জাকির হাসান। জহুরুল ১০ বলে মাত্র ২ রান করে তাসকিন আহমেদের বলে ইনসাইড এজে বোল্ড হন।

তিন নম্বরে নামা ইমরুল কায়েস আফিফের শেষ বলে ছক্কা হাঁকান।

পাওয়ার প্লেতে খুলনার সংগ্রহ দাঁড়ায় ১ উইকেটে ৪১ রান।

দুই অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ ও আফিফ হোসেনকে দেখেশুনে খেলেন এই জুটি।

আবু জায়েদ রাহীর করা ১২তম ওভারে ৩ বাউন্ডারি হাঁকান জাকির। এতে মাত্র ৩৩ বলে অর্ধশতকে পৌঁছে যান আজই প্রথম সুযোগ পাওয়া জাকির।

ইনিংসের ১৫তম ওভারে কামরুল রাব্বির বোলিংয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে তামিম ইকবালের হাতে ধরা পড়েন ইমরুল। সাজঘরে ফেরার আগে ২ চার ও ১ ছয়ের মারে ৩৪ বলে ৩৭ রান করেন ইমরুল। জাকির-ইমরুলের জুটি ভাঙলে মাঠে নামেন সাকিব।

আজও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি সাকিব।

তানভীর ইসলামের বোলিংয়ে ছক্কা মারতে গিয়ে চেষ্টা লংঅনে তৌহিদ হৃদয়ের ক্যাচে পরিণত হন সাকিব। সাজঘরে ফেরার আগে ১০ বলে ১৪ রান করেন তিনি।

সাকিবের আউটের আগের ওভারে দুর্দান্ত ব্যাটিং করা জাকিরকে ফেরান তাসকিন। ৬৩ রানে থামে জাকিরের ইনিংস।

এর পরের উইকেটগুলো খুব দ্রুতই পড়ে। যদিও শেষ ৩ ওভারে ৪২ রান করে খুলনা। ১৪ বলে ২৪ রান করে আউট হন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।

শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে ১৭৩ রানে পৌঁছে দেন আরিফুল।

বরিশালের পক্ষে ৩ উইকেট নিয়েছেন কামরুল রাব্বি। তাসকিন ২ উইকেটের জন্য খরচ করেন ৪৩ রান। এ ছাড়া বাঁহাতি তানভিরের শিকার ১ উইকেট।

খুলনার কাছে বড় ব্যবধানে হারল বরিশাল

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দলে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করলেন বাঁহাতি উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকির হাসান।

বরিশালের বিপক্ষে এনামুল হক বিজয়ের বদলে ওপেনিংয়ে নেমে ৪২ বলে ৬৩ রানের অনবদ্য ইনিংস খেললেন জাকির।

তার ব্যাটে ভর করে বরিশালকে ১৭৪ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেয় খুলনা।

আর এই লক্ষ্য পূরণে ব্যর্থ হয়ে ৪৮ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে ফরচুন বরিশাল।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ভালোই শুরু করে বরিশাল। ওপেনার তামিম ইকবাল ও পারভেজ হোসেন ইমন দেখেশুনে খেলতে থাকেন।

২৬ বলে ১৯ রান করে শুভাগত হোমের বলে সরাসরি বোল্ড হন পারভেজ।

আফিফ হোসেন দুর্ভাগ্যক্রমে মাত্র ৩ রান করেই আউট হন।  

চমৎকার খেলে যেতে থাকলেও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি তামিম ইকবাল।

২১ বল খেলে ৩২ রান করে সেই শুভাগত হোমের বলেই ধরা দেন তামিম।

দলের হাল করেন তৌহিদ হৃদয়।

তবে তাকে সেভাবে আর কেউ সঙ্গ দিতে পারেননি।

ইরফান শুক্কুরকে ১৬ রানে বোল্ড করেন সাকিব।

এর পর বাকি সবাই আসা-যাওয়ার মধ্যেই ছিলেন।

২৭ বল খেলে হাসান মাহমুদের বলে আউট হওয়ার আগে ৩৩ রান করেন তৌহিদ।

১৯.৫ ওভার পর্যন্ত খেলতে পারলেও ১২৫ রানের বেশি করতে পারেনি ফরচুন বরিশাল।

ফলে ৪৮ রানের বড় ব্যবধানে জেমকন খুলনার কাছে হারল ফরচুন বরিশাল।

এর আগে টস জিতে খুলনাকে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠান বরিশাল অধিনায়ক তামিম ইকবাল। 

আজ আর ওপেন করতে নামেননি খুলনার সাকিব আল হাসান।  ওপেনিংয়ে নামেন জহুরুল ইসলাম ও জাকির হাসান। জহুরুল ১০ বলে মাত্র ২ রান করে তাসকিন আহমেদের বলে ইনসাইড এজে বোল্ড হন।

তিন নম্বরে নামা ইমরুল কায়েস আফিফের শেষ বলে ছক্কা হাঁকান।  

পাওয়ার প্লেতে খুলনার সংগ্রহ দাঁড়ায় ১ উইকেটে ৪১ রান।

দুই অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ ও আফিফ হোসেনকে দেখেশুনে খেলেন এই জুটি। 

আবু জায়েদ রাহীর করা ১২তম ওভারে ৩ বাউন্ডারি হাঁকান জাকির। এতে মাত্র ৩৩ বলে অর্ধশতকে পৌঁছে যান আজই প্রথম সুযোগ পাওয়া জাকির। 

ইনিংসের ১৫তম ওভারে কামরুল রাব্বির বোলিংয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে তামিম ইকবালের হাতে ধরা পড়েন ইমরুল। সাজঘরে ফেরার আগে ২ চার ও ১ ছয়ের মারে ৩৪ বলে ৩৭ রান করেন ইমরুল। জাকির-ইমরুলের জুটি ভাঙলে মাঠে নামেন সাকিব।

আজও ইনিংস লম্বা করতে পারেননি সাকিব।

তানভীর ইসলামের বোলিংয়ে ছক্কা মারতে গিয়ে চেষ্টা লংঅনে তৌহিদ হৃদয়ের ক্যাচে পরিণত হন সাকিব। সাজঘরে ফেরার আগে ১০ বলে ১৪ রান করেন তিনি। 

সাকিবের আউটের আগের ওভারে দুর্দান্ত ব্যাটিং করা জাকিরকে ফেরান তাসকিন। ৬৩ রানে থামে জাকিরের ইনিংস। 

এর পরের উইকেটগুলো খুব দ্রুতই পড়ে। যদিও শেষ ৩ ওভারে ৪২ রান করে খুলনা। ১৪ বলে ২৪ রান করে আউট হন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।

শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে ১৭৩ রানে পৌঁছে দেন আরিফুল।

বরিশালের পক্ষে ৩ উইকেট নিয়েছেন কামরুল রাব্বি। তাসকিন ২ উইকেটের জন্য খরচ করেন ৪৩ রান। এ ছাড়া বাঁহাতি তানভিরের শিকার ১ উইকেট।