জহুরুল-মাশরাফি নৈপুণ্যে ফাইনালে খুলনা
jugantor
জহুরুল-মাশরাফি নৈপুণ্যে ফাইনালে খুলনা

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৪ ডিসেম্বর ২০২০, ২১:৩৬:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

 ৩৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে খুলনার জয়ের পথ সহজ করে দেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।  

প্রথম কোয়ালিফায়ারে গ্রুপপর্বের সেরা দু’দলের ফাইনালে ওঠার মুখোমুখি লড়াইয়ে চট্টগ্রামকে বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে জয় পেয়েছে মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বাধীন খুলনা।

সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে জহুরুল ইসলামের ঝড়োব্যাটে নির্ধারিত ২০ ওভারে ২১০ রানের বিশাল স্কোর দাঁড় করায় খুলনা। ২১১ রানেরটার্গেটে খেলতে নেমে মাশরাফির আগুন ঝরা বোলিংয়ে দুই বল হাতে রেখেই১৬৩ রানে অলআউট হয়ে যায় চট্টগ্রাম।

খুলনার ইনিংসে ৫১ বলে ৮০ রানের দুরন্ত ইনিংস উপহার দিয়ে দলের বিশাল স্কোর গড়তে অনবদ্যভূমিকা পালন করেনজহুরুল ইসলাম। মাহমুদউল্লাহ ৯ বলে ৩০ রান করেন। চট্টগ্রামের পক্ষে মোস্তাফিজ ৩১ রানে দুই উইকেট শিকার করেন। সঞ্জিত সাহা ও মোসাদ্দেক একটি করে উইকেট শিকার করেন।

আর খুলনার তিন ব্যাটসম্যান রান আউটের শিকার হন। ২১১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে মাত্র ২৭ রানেই দুই ওপেনার সাজঘরে ফেরেন। সৌম্য সরকার শূন্য ও লিটন দাস ২৪ রানে আউট হন। এরপর দলের পক্ষে হাল ধরেনমোহাম্মদ মিঠুন ও মাহমুদুল হাসান জয় দলের হাল ধরেন।

১২তম ওভারে দলীয় ১০০ সংগ্রহ করে চট্টগ্রামকে জয়ের স্বপ্ন দেখান এ দুই ব্যাটসম্যান। কিন্তু পরের ২৫ রানের ব্যবধানে এ দুই ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর জয়ের পাল্লা হেলে পড়ে খুলনার দিকে। পরের ব্যাটসম্যানরা আর দলকে জয়ের ধারায় নিতে পারেননি।

মিঠুন করেন ৩৫ বলে ৫৩ রানেরইনিংস।

৩৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন মাশরাফি বিন মুর্তজা। এ জয়ের ফলে ফাইনালে উঠে গেল মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বাধীন খুলনা।

এর আগে গ্রুপপর্বে ৮ ম্যাচের সাতটিতেই জিতেছিল চট্টগ্রাম। তবে তাদের আশা শেষ হয়ে যায়নি। আজকের অপরম্যাচের বিজয়ী ঢাকার সঙ্গে মুখোমুখি হবে তারা। ওই ম্যাচে যারাই জিতবে তারাই যাবে ফাইনালে।

জহুরুল-মাশরাফি নৈপুণ্যে ফাইনালে খুলনা

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
 ৩৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে খুলনার জয়ের পথ সহজ করে দেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।  
 ৩৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে খুলনার জয়ের পথ সহজ করে দেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। ছবি: যুগান্তর

প্রথম কোয়ালিফায়ারে গ্রুপপর্বের সেরা দু’দলের ফাইনালে ওঠার মুখোমুখি লড়াইয়ে চট্টগ্রামকে বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে জয় পেয়েছে মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বাধীন খুলনা।  

সোমবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে জহুরুল ইসলামের ঝড়ো ব্যাটে নির্ধারিত ২০ ওভারে ২১০ রানের বিশাল স্কোর দাঁড় করায় খুলনা। ২১১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে মাশরাফির আগুন ঝরা বোলিংয়ে দুই বল হাতে রেখেই ১৬৩ রানে অলআউট হয়ে যায় চট্টগ্রাম।  

খুলনার ইনিংসে ৫১ বলে ৮০ রানের দুরন্ত ইনিংস উপহার দিয়ে দলের বিশাল স্কোর গড়তে অনবদ্য ভূমিকা পালন করেন জহুরুল ইসলাম। মাহমুদউল্লাহ ৯ বলে ৩০ রান করেন। চট্টগ্রামের পক্ষে মোস্তাফিজ ৩১ রানে দুই উইকেট শিকার করেন। সঞ্জিত সাহা ও মোসাদ্দেক একটি করে উইকেট শিকার করেন।

আর খুলনার তিন ব্যাটসম্যান রান আউটের শিকার হন। ২১১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে মাত্র ২৭ রানেই দুই ওপেনার সাজঘরে ফেরেন। সৌম্য সরকার শূন্য ও লিটন দাস ২৪ রানে আউট হন।  এরপর দলের পক্ষে হাল ধরেন মোহাম্মদ মিঠুন ও মাহমুদুল হাসান জয় দলের হাল ধরেন।

১২তম ওভারে দলীয় ১০০ সংগ্রহ করে চট্টগ্রামকে জয়ের স্বপ্ন দেখান এ দুই ব্যাটসম্যান। কিন্তু পরের ২৫ রানের ব্যবধানে এ দুই ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর জয়ের পাল্লা হেলে পড়ে খুলনার দিকে। পরের ব্যাটসম্যানরা আর দলকে জয়ের ধারায় নিতে পারেননি। 

মিঠুন করেন ৩৫ বলে ৫৩ রানের ইনিংস।

৩৫ রানে ৫ উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হন মাশরাফি বিন মুর্তজা।  এ জয়ের ফলে ফাইনালে উঠে গেল মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বাধীন খুলনা। 

এর আগে গ্রুপপর্বে ৮ ম্যাচের সাতটিতেই জিতেছিল চট্টগ্রাম।  তবে তাদের আশা শেষ হয়ে যায়নি। আজকের অপর ম্যাচের বিজয়ী ঢাকার সঙ্গে মুখোমুখি হবে তারা। ওই ম্যাচে যারাই জিতবে তারাই যাবে ফাইনালে। 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ