ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে মিডিয়াকে ব্যবহার করেছেন বিসিবি কর্মকর্তারা, অভিযোগ মাশরাফির
jugantor
ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে মিডিয়াকে ব্যবহার করেছেন বিসিবি কর্মকর্তারা, অভিযোগ মাশরাফির

  স্পোর্টস ডেস্ক  

২৭ মার্চ ২০২১, ২২:৫৬:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

বার্সেলোনার সাবেক সভাপতি জোসেফ মারিয়া বার্তোমেউয়ের মতোই ক্ষমার অযোগ্য অভিযোগ ওঠেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

বার্সার সাবেক সভাপতি আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসিসহ ক্লাবের সেরা তারকা এবং কোচের বিরুদ্ধে বলার জন্য একটি এজেন্টকে বড় অঙ্কের টাকা দিয়ে নিয়োগ দিয়ে গ্রেফতার হয়ে ছাড়াও পেয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ওঠা সেই অভিযোগ নিয়ে তদন্ত চলছে। বার্সোলোনা সেই তদন্ত চলার মধ্যেই বড় ধরনের অভিযোগ উঠেছে বিসিবির বিরুদ্ধে।

বিসিবির বিরুদ্ধে এমনই গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন জাতীয় দলের সাবেক সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। যে ক্রিকেটারকে দেশ-বিদেশের কোটি কোটি সমর্থক আইডল হিসেবে দেখে তার তোলা এমন অভিযোগকে ছেলেখেলা হিসেব উড়িয়ে দেওয়ার কোনো উপায় নেই। তাছাড়া মাশরাফির মতো সফল এবং স্বচ্ছ ইমেজের একজন মানুষ যখন এমন অভিযোগ তোলেন তা অস্বীকার কারারও জো নেই।

দেশের একটি প্রথমসারির অনলাইন পোর্টালকে মাশরাফি বলেছেন, একটা কথা আগে বলা হয়নি। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়ে আমার যতটা খারাপ লেগেছে, ক্রিকেটে যদি কোনোদিন কষ্ট পেয়ে থাকি, এই একটা জিনিসে সবচেয়ে বেশি কষ্ট পেয়েছি। তখন আমি বুঝেছি, অন্যান্য ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে কত কী হয়েছে বা হতে পারে কিংবা হয়। আগে আমি কোনোদিন বিশ্বাস করিনি; করতে চাইওনি।

মাশরাফি আরও বলেন, ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে খারাপ খেলার কারণে ভিলেন তো এমনিতে হয়েই আছি। তখন তো ক্রিকেট বোর্ড আমার পাশে দাঁড়াবে! পাশে দাঁড়িয়েও তো সুন্দরভাবে বাদ দেওয়া যেত আমাকে। এটা ভাবতে পারত যে ছেলেটা অন্তত কিছু না কিছু করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য। দর্শক অনেক কিছু বুঝবে না, মিডিয়া অনেক কিছু জানবে না যে ভেতরে কত ইতিহাস, কত গল্প আছে।

মাশরাফি আরও বলেন, আমি উনাদের নাম বলব না, দুজনের নামই জানি। আরও আছে কিনা আল্লাহ জানেন। তারা বিভিন্ন মিডিয়ায় ফোন করে বলেছেন- সুযোগ আসছে, মাশরাফিকে নিয়ে নিউজ করে দেন। বাদ দিয়ে দেবে। ওই মিডিয়াগুলো হয়তো আমার প্রতি সদয় হয়েছিল। আমাদের কোনো কোনো ক্রিকেটারদের জানিয়েছেন তারা। তারপর দলে এটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ছেলেরা ভীতু হয়ে গিয়েছিল যে, মাশরাফিকে নিয়ে এটা হতে পারলে আমাদের ক্ষেত্রে কী হতে পারে!

ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে মিডিয়াকে ব্যবহার করেছেন বিসিবি কর্মকর্তারা, অভিযোগ মাশরাফির

 স্পোর্টস ডেস্ক 
২৭ মার্চ ২০২১, ১০:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বার্সেলোনার সাবেক সভাপতি জোসেফ মারিয়া বার্তোমেউয়ের মতোই ক্ষমার অযোগ্য অভিযোগ ওঠেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কিছু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

বার্সার সাবেক সভাপতি আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসিসহ ক্লাবের সেরা তারকা এবং কোচের বিরুদ্ধে বলার জন্য একটি এজেন্টকে বড় অঙ্কের টাকা দিয়ে নিয়োগ দিয়ে গ্রেফতার হয়ে ছাড়াও পেয়েছেন। তার বিরুদ্ধে ওঠা সেই অভিযোগ নিয়ে তদন্ত চলছে। বার্সোলোনা সেই তদন্ত চলার মধ্যেই বড় ধরনের অভিযোগ উঠেছে বিসিবির বিরুদ্ধে।

বিসিবির বিরুদ্ধে এমনই গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন জাতীয় দলের সাবেক সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। যে ক্রিকেটারকে দেশ-বিদেশের কোটি কোটি সমর্থক আইডল হিসেবে দেখে তার তোলা এমন অভিযোগকে ছেলেখেলা হিসেব উড়িয়ে দেওয়ার কোনো উপায় নেই। তাছাড়া মাশরাফির মতো সফল এবং স্বচ্ছ ইমেজের একজন  মানুষ যখন এমন অভিযোগ তোলেন তা অস্বীকার কারারও জো নেই।

দেশের একটি প্রথমসারির অনলাইন পোর্টালকে মাশরাফি বলেছেন, একটা কথা আগে বলা হয়নি। জাতীয় দল থেকে বাদ পড়ে আমার যতটা খারাপ লেগেছে, ক্রিকেটে যদি কোনোদিন কষ্ট পেয়ে থাকি, এই একটা জিনিসে সবচেয়ে বেশি কষ্ট পেয়েছি। তখন আমি বুঝেছি, অন্যান্য ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে কত কী হয়েছে বা হতে পারে কিংবা হয়। আগে আমি কোনোদিন বিশ্বাস করিনি; করতে চাইওনি। 

মাশরাফি আরও বলেন, ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে খারাপ খেলার কারণে ভিলেন তো এমনিতে হয়েই আছি। তখন তো ক্রিকেট বোর্ড আমার পাশে দাঁড়াবে! পাশে দাঁড়িয়েও তো সুন্দরভাবে বাদ দেওয়া যেত আমাকে। এটা ভাবতে পারত যে ছেলেটা অন্তত কিছু না কিছু করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য। দর্শক অনেক কিছু বুঝবে না, মিডিয়া অনেক কিছু জানবে না যে ভেতরে কত ইতিহাস, কত গল্প আছে।

মাশরাফি আরও বলেন, আমি উনাদের নাম বলব না, দুজনের নামই জানি। আরও আছে কিনা আল্লাহ জানেন। তারা বিভিন্ন মিডিয়ায় ফোন করে বলেছেন- সুযোগ আসছে, মাশরাফিকে নিয়ে নিউজ করে দেন। বাদ দিয়ে দেবে। ওই মিডিয়াগুলো হয়তো আমার প্রতি সদয় হয়েছিল। আমাদের কোনো কোনো ক্রিকেটারদের জানিয়েছেন তারা। তারপর দলে এটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ছেলেরা ভীতু হয়ে গিয়েছিল যে, মাশরাফিকে নিয়ে এটা হতে পারলে আমাদের ক্ষেত্রে কী হতে পারে!

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন