পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করল ফিফা
jugantor
পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করল ফিফা

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৮ এপ্রিল ২০২১, ১১:২৪:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করেছে বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফা।

বুধবার এক বিবৃতিতে এই শাস্তির কথা জানিয়েছে ব্যুরো অব ফিফা কাউন্সিল।

বিবৃতিতে বলা হয়, যতদিন পর্যন্ত ফিফার নিয়োগ করা ‘স্বাভাবিকীকরণ কমিটি’ পাকিস্তান ফুটবল ফেডারেশন (পিএফএফ) কার্যালয়, হিসাব, প্রশাসন ও যোগাযোগমাধ্যম পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা না করতে পারবে, ততদিন এ স্থগিতাদেশ বলবৎ থাকবে।

সদস্যপদ পুনর্বহালের আগ পর্যন্ত ফুটবলের বৈশ্বিক কর্তৃপক্ষ থেকে আর্থিক বা টেকনিক্যাল কোনো সুযোগ-সুবিধা পাবে না পিএফএফ।

গত চার বছরের মধ্যে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ফিফার শাস্তির খড়গে পড়ল পাকিস্তান। ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে পরের ছয় মাস সদস্যপদ স্থগিত ছিল পাকিস্তানের।

পিএফএলের পরিচালনা কর্তৃপক্ষ নিয়ে অনেক দিন ধরে টানাপোড়েন চলছে। ২০১৭ সালে ফিফার আইনে নিরপেক্ষ নির্বাচন ছাড়া কমিটি গঠন করে দেশটির ফুটবল ফেডারেশন। যে কারণে সেই বছরের অক্টোবর থেকে পরবর্তী ছয় মাস পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করে ফিফা।

এর পর ২০১৯ সালে পিএফএলের একটি স্বাভাবিকীকরণ কমিটি করে দেয় ফিফা। চলতি বছরের জানুয়ারিতে কমিটির প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয় হারুন মালিককে। কিন্তু গত ২৭ মার্চ লাহোরে মালিককে সরিয়ে পিএফএফ হেডকোয়ার্টারের দায়িত্ব নেয় আশফাকের নেতৃত্বাধীন গ্রুপ। এর পর থেকে পিএফএফকে কঠোর সতর্কবার্তা দিয়ে আসছে ফিফা।

অবশেষে ফের সদস্যপদ স্থগিত করতে বাধ্য হলো ফিফা।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালেও পিএফএফ পরিচালনার জন্য আশফাক হুসেনের নেতৃত্বে একদল ফুটবল কর্মকর্তাকে নির্বাচিত করেন সুপ্রিমকোর্ট। যে কমিটিকে স্বীকৃতি দেয়নি ফিফা।

তথ্যসূত্র: ফিফ ডট কম


পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করল ফিফা

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৮ এপ্রিল ২০২১, ১১:২৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করেছে বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফা। 

বুধবার এক বিবৃতিতে এই শাস্তির কথা জানিয়েছে ব্যুরো অব ফিফা কাউন্সিল। 

বিবৃতিতে বলা হয়, যতদিন পর্যন্ত ফিফার নিয়োগ করা ‘স্বাভাবিকীকরণ কমিটি’ পাকিস্তান ফুটবল ফেডারেশন (পিএফএফ) কার্যালয়, হিসাব, প্রশাসন ও যোগাযোগমাধ্যম পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা না করতে পারবে, ততদিন এ স্থগিতাদেশ বলবৎ থাকবে।

সদস্যপদ পুনর্বহালের আগ পর্যন্ত ফুটবলের বৈশ্বিক কর্তৃপক্ষ থেকে আর্থিক বা টেকনিক্যাল কোনো সুযোগ-সুবিধা পাবে না পিএফএফ।

গত চার বছরের মধ্যে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ফিফার শাস্তির খড়গে পড়ল পাকিস্তান।  ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে পরের ছয় মাস সদস্যপদ স্থগিত ছিল পাকিস্তানের। 

পিএফএলের পরিচালনা কর্তৃপক্ষ নিয়ে অনেক দিন ধরে টানাপোড়েন চলছে। ২০১৭ সালে ফিফার আইনে নিরপেক্ষ নির্বাচন ছাড়া কমিটি গঠন করে দেশটির ফুটবল ফেডারেশন।  যে কারণে সেই বছরের অক্টোবর থেকে পরবর্তী ছয় মাস পাকিস্তানের সদস্যপদ স্থগিত করে ফিফা। 

এর পর ২০১৯ সালে পিএফএলের একটি স্বাভাবিকীকরণ কমিটি করে দেয় ফিফা। চলতি বছরের জানুয়ারিতে কমিটির প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয় হারুন মালিককে।  কিন্তু গত ২৭ মার্চ লাহোরে মালিককে সরিয়ে পিএফএফ হেডকোয়ার্টারের দায়িত্ব নেয় আশফাকের নেতৃত্বাধীন গ্রুপ। এর পর থেকে পিএফএফকে কঠোর সতর্কবার্তা দিয়ে আসছে ফিফা। 

অবশেষে ফের সদস্যপদ স্থগিত করতে বাধ্য হলো ফিফা।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালেও পিএফএফ পরিচালনার জন্য আশফাক হুসেনের নেতৃত্বে একদল ফুটবল কর্মকর্তাকে নির্বাচিত করেন সুপ্রিমকোর্ট।  যে কমিটিকে স্বীকৃতি দেয়নি ফিফা।

তথ্যসূত্র: ফিফ ডট কম


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন