পাকিস্তানের কাছে পাত্তাই পেল না দ.আফ্রিকা
jugantor
পাকিস্তানের কাছে পাত্তাই পেল না দ.আফ্রিকা

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৬ এপ্রিল ২০২১, ২৩:০৭:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ঘরের মাঠেই পাত্তা পেল না দক্ষিণ আফ্রিকা। ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও খোয়াল তারা। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হেরে যাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা চার ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারে ৩-১ ব্যবধানে।

শুক্রবার সেঞ্চুরিয়নের সুপার স্পোর্টস পার্কে টস জিতে স্বাগতিকদের আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় পাকিস্তান। প্রথমে ব্যাটিংয়য়ে নেমে এক উইকেটে ৭৩ রান করা দক্ষিণ আফ্রিকার এরপর হাসান আলী ও ফাহিম আশরাফের গতির মুখে পড়ে একের পর এক উইকেট হারিয়ে ১৯.৩ ওভারে ১৪৪ রানে অলআউট হয়। ফাহিম আশরাফ ও হাসান আলী ৩টি করে উইকেট ভাগাভাগি করেন।

১৫৫ রানের মাঝারি স্কোর তাড়া করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় বলেওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ানের উইকেট হারায় পাকিস্তান। তিনে ব্যাটিংয়ে নামা ফখর জামানের সঙ্গে ৯১ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক বাবর আজম।

জয়ের জন্য শেষ ৬৪ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ৬৩ রান। এরপর মাত্র ৩৭ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় সফরকারীরা।দলীয় ৯২ রানে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে ৩৪ বলে ৬০ রান করে ফেরেন ফখর জামান। এরপর মাত্র ৬ রানের ব্যবধানে ফেরেন ২৪ রান করা বাবর আজম। হায়দার আলী, মোহাম্মদ হাফিজ ও ফাহিম আশরাফ ফেরেন যথাক্রমে ৫, ১০ ও ৭ রানে।

১৮.২ ওভারে দলীয় ১২৯ রানে ৭ উইকেট পড়ে গেলে চাপের মধ্যে পড়ে যায় পাকিস্তান। শেষ ১০ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ২০ রান। হাসান আলীকে সঙ্গে নিয়ে শেষ দিকে রীতিমতো ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে ৩ উইকেটেদলের জয় নিশ্চিত করেন মোহাম্মদ নওয়াজ। ২১ বলে অপরাজিত ২৫ রান করেন তিনি।

পাকিস্তানের কাছে পাত্তাই পেল না দ.আফ্রিকা

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৬ এপ্রিল ২০২১, ১১:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঘরের মাঠেই পাত্তা পেল না দক্ষিণ আফ্রিকা। ওয়ানডের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজও খোয়াল তারা। তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হেরে যাওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা চার ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারে ৩-১ ব্যবধানে। 

শুক্রবার সেঞ্চুরিয়নের সুপার স্পোর্টস পার্কে টস জিতে স্বাগতিকদের আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় পাকিস্তান। প্রথমে ব্যাটিংয়য়ে নেমে এক উইকেটে ৭৩ রান করা দক্ষিণ আফ্রিকার এরপর হাসান আলী ও ফাহিম আশরাফের গতির মুখে পড়ে একের পর এক উইকেট হারিয়ে ১৯.৩ ওভারে ১৪৪ রানে অলআউট হয়। ফাহিম আশরাফ ও হাসান আলী ৩টি করে উইকেট ভাগাভাগি করেন।

১৫৫ রানের মাঝারি স্কোর তাড়া করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় বলে ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ানের উইকেট হারায় পাকিস্তান। তিনে ব্যাটিংয়ে নামা ফখর জামানের সঙ্গে ৯১ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক বাবর আজম। 

জয়ের জন্য শেষ ৬৪ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ৬৩ রান। এরপর মাত্র ৩৭ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় সফরকারীরা। দলীয় ৯২ রানে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে ৩৪ বলে ৬০ রান করে ফেরেন ফখর জামান। এরপর মাত্র ৬ রানের ব্যবধানে ফেরেন ২৪ রান করা বাবর আজম। হায়দার আলী, মোহাম্মদ হাফিজ ও ফাহিম আশরাফ ফেরেন যথাক্রমে ৫, ১০ ও ৭ রানে।  

১৮.২ ওভারে দলীয় ১২৯ রানে ৭ উইকেট পড়ে গেলে চাপের মধ্যে পড়ে যায় পাকিস্তান। শেষ ১০ বলে পাকিস্তানের প্রয়োজন ছিল ২০ রান। হাসান আলীকে সঙ্গে নিয়ে শেষ দিকে রীতিমতো ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে ৩ উইকেটে দলের জয় নিশ্চিত করেন মোহাম্মদ নওয়াজ। ২১ বলে অপরাজিত ২৫ রান করেন তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন