মাঠে নেমেই আউট লিটন দাস
jugantor
মাঠে নেমেই আউট লিটন দাস

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৩ মে ২০২১, ১০:৩৪:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

আবারও দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিং প্রদর্শন করল বাংলাদেশ। টেস্টের ৪র্থ ইনিংসে আজও ব্যাট করা শিখলেন না টাইগাররা।

অবশ্য পাল্লেকেলেতে দ্বিতীয় টেস্টের দুই ইনিংসেই ব্যাটিংয়ে ভরাডুবি হয়েছে টাইগারদের।

প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ে বড় হারের অপেক্ষায় সফরকারীরা।

৪৩৭ রানের লক্ষ্য তাড়ায় রোববার চতুর্থ দিন শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ করেছে ১৭৭ রান। জয়ের জন্য প্রয়োজন আরও ২৬০ রান। হাতে ৫ উইকেট।
এমন সমীকরণ নিয়ে পঞ্চম দিনে মাঠে নেমেই আউট হয়ে গেলেন লিটন দাস। আগের দিনে করা ১৪ রানের সঙ্গে মাত্র ৩ রান করেই সাজঘরে ফিরলেন তিনি।

বাংলাদেশ শিবিরে ফের আঘাত জয়াবিক্রমের। ৫১তম ওভারে অভিষিক্ত এই স্পিনারের দ্বিতীয় বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হন লিটন।
লিটন দাসের পরপরই ২ রান করে ফিরে গেলেন তাইজুল।

এ প্রতিবেদন লেখার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২১৫ রান। মেহেদী হাসান মিরাজকে সঙ্গ দিতে মাঠে নেমেছেন তাসকিন আহমেদ। ১ রানে অপরাজিত আছেন তিনি। অন্যদিকে ৭০ বল খেলে ৩১ রানে অপরাজিত মিরাজ।

শ্রীলংকার ছোড়া ৪৩৭ রানের বড় লক্ষ্যে নেমে বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডারের প্রথম পাঁচজনের প্রত্যেকেই ছোট ছোট ইনিংস খেলেছেন। প্রতিটি জুটি ছুঁয়েছে ৩০ বা তার বেশি রান।
কিন্তু কেউ ফিফটি করতে পারেননি। তামিম কালও ভালো শুরু করেন। দারুণ কিছু শটে ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে সুরঙ্গা লাকমালকে চার এবং নতুন বলের শুরুতে রমেশ মেন্ডিসকে ছক্কা মারেন। পরে মেন্ডিসই ফেরান তামিমকে।

দারুণ টার্ন ও বাউন্সে ব্যাটের কানায় লেগে বল চলে যায় উইকেটকিপারের গ্লাভসে। টানা চার ফিফটির পর তামিম আউট হন ২৬ বলে ২৪ করে।

সাইফ হাসানও প্রথমে ইতিবাচক ছিলেন। এর পর বাঁহাতি স্পিনার প্রাভিন জয়াবিক্রমাকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ধরা পড়েন কাভার পয়েন্টে।

তবে এরই মধ্যে চার টেস্টের ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ৩৪ রান তুলে ফেলেন তিনি। সেঞ্চুরির পর দুই ইনিংসে শূন্য করা নাজমুল হোসেন থামেন ২৬ করে। তাকেও ফেরান জয়াবিক্রমা।
অধিনায়ক মুমিনুল হকও ভালো ব্যাটিং শুরু করেন। উইকেটের সঙ্গে দ্রুত মানিয়ে নেন। আউট হয়েছেন বাজে বলে মারতে গিয়ে। মেন্ডিসের করা অফ-স্টাম্পের বাইরের বলে খেলতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগে বোল্ড হন। ফেরেন ৩২ করে। ৬ ও ৩১ রানের সময় ‘জীবন’ পেয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম।

ঝুঁকি নিয়ে শেষ পর্যন্ত ৪০ রানে আউট হওয়া মুশফিক দলের সর্বোচ্চ স্কোরার।

বেশ কয়েকবার ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলেন। মেন্ডিসের বাড়তি লাফানো বল তার গ্লাভসে লেগে বল যায় লেগ স্লিপে। ৪১.৪ ওভারে ১৭১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ।

মাঠে নেমেই আউট লিটন দাস

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৩ মে ২০২১, ১০:৩৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আবারও দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিং প্রদর্শন করল বাংলাদেশ। টেস্টের ৪র্থ ইনিংসে আজও ব্যাট করা শিখলেন না টাইগাররা।

অবশ্য পাল্লেকেলেতে দ্বিতীয় টেস্টের দুই ইনিংসেই ব্যাটিংয়ে ভরাডুবি হয়েছে টাইগারদের।

প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ে বড় হারের অপেক্ষায় সফরকারীরা।

৪৩৭ রানের লক্ষ্য তাড়ায় রোববার চতুর্থ দিন শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ করেছে ১৭৭ রান।  জয়ের জন্য প্রয়োজন আরও ২৬০ রান। হাতে ৫ উইকেট।
এমন সমীকরণ নিয়ে পঞ্চম দিনে মাঠে নেমেই আউট হয়ে গেলেন লিটন দাস। আগের দিনে করা ১৪ রানের সঙ্গে মাত্র ৩ রান করেই সাজঘরে ফিরলেন তিনি।

বাংলাদেশ শিবিরে ফের আঘাত জয়াবিক্রমের। ৫১তম ওভারে অভিষিক্ত এই স্পিনারের দ্বিতীয় বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হন লিটন।
লিটন দাসের পরপরই ২ রান করে ফিরে গেলেন তাইজুল।

এ প্রতিবেদন লেখার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২১৫ রান।  মেহেদী হাসান মিরাজকে সঙ্গ দিতে মাঠে নেমেছেন তাসকিন আহমেদ। ১ রানে অপরাজিত আছেন তিনি।  অন্যদিকে ৭০ বল খেলে ৩১ রানে অপরাজিত মিরাজ।

শ্রীলংকার ছোড়া ৪৩৭ রানের বড় লক্ষ্যে নেমে বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডারের প্রথম পাঁচজনের প্রত্যেকেই ছোট ছোট ইনিংস খেলেছেন। প্রতিটি জুটি ছুঁয়েছে ৩০ বা তার বেশি রান।
কিন্তু কেউ ফিফটি করতে পারেননি। তামিম কালও ভালো শুরু করেন। দারুণ কিছু শটে ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে সুরঙ্গা লাকমালকে চার এবং নতুন বলের শুরুতে রমেশ মেন্ডিসকে ছক্কা মারেন। পরে মেন্ডিসই ফেরান তামিমকে।

দারুণ টার্ন ও বাউন্সে ব্যাটের কানায় লেগে বল চলে যায় উইকেটকিপারের গ্লাভসে। টানা চার ফিফটির পর তামিম আউট হন ২৬ বলে ২৪ করে।

সাইফ হাসানও প্রথমে ইতিবাচক ছিলেন। এর পর বাঁহাতি স্পিনার প্রাভিন জয়াবিক্রমাকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ধরা পড়েন কাভার পয়েন্টে।

তবে এরই মধ্যে চার টেস্টের ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ৩৪ রান তুলে ফেলেন তিনি। সেঞ্চুরির পর দুই ইনিংসে শূন্য করা নাজমুল হোসেন থামেন ২৬ করে। তাকেও ফেরান জয়াবিক্রমা।
অধিনায়ক মুমিনুল হকও ভালো ব্যাটিং শুরু করেন। উইকেটের সঙ্গে দ্রুত মানিয়ে নেন। আউট হয়েছেন বাজে বলে মারতে গিয়ে। মেন্ডিসের করা অফ-স্টাম্পের বাইরের বলে খেলতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগে বোল্ড হন। ফেরেন ৩২ করে। ৬ ও ৩১ রানের সময় ‘জীবন’ পেয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম।

ঝুঁকি নিয়ে শেষ পর্যন্ত ৪০ রানে আউট হওয়া মুশফিক দলের সর্বোচ্চ স্কোরার।

বেশ কয়েকবার ঝুঁকিপূর্ণ শট খেলেন। মেন্ডিসের বাড়তি লাফানো বল তার গ্লাভসে লেগে বল যায় লেগ স্লিপে। ৪১.৪ ওভারে ১৭১ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ফেলে বাংলাদেশ।

 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : শ্রীলংকায় বাংলাদেশের টেস্ট সিরিজ ২০২১