সেই বুলবুল-রফিককে নিয়ে যা বললেন সুজন
jugantor
সেই বুলবুল-রফিককে নিয়ে যা বললেন সুজন

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৮ মে ২০২১, ২২:১৮:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের ক্রিকেটে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির ইতিহাস গড়েছেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। ক্রিকেট থেকে অবসরে বিদেশে কোচিং ক্যারিয়ার গড়েছেন তিনি। দেশের ক্রিকেটকে সার্ভিস দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে তেমন সাড়া পাননি তিনি।

অন্যদিকে দেশের সেরা স্পিনারদের মধ্যে অন্যতম মোহাম্মদ রফিক। জাতীয় দলের হয়ে ৩৩ টেস্টে আর ১২৫টি ওয়ানডেতে অংশ নিয়ে বাঁ-হাতি এ স্পিনার শিকার করেন ২২৫ উইকেট।

জাতীয় দলের সাবেক তারকা ক্রিকেটাররা ক্রিকেট বোর্ডের বিভিন্ন বিভাগের সঙ্গে জড়িত থাকলেও রাখা হয়নি রফিকের মতো একজন প্রতিভাবান অভিজ্ঞ স্পিনারকে।

আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও মোহাম্মদ রফিকের দেশের ক্রিকেটের সঙ্গে না থাকাটা দুর্ভাগ্য বলে মনে করেন কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে অনলাইন ভিডিওর একটি আড্ডায় অংশ নিয়ে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, একটু তো অবশ্যই। দুজনই অনেক অভিজ্ঞ। বুলবুল ভাই তো কোচিংয়ে অনেক অভিজ্ঞ। রফিক কোচিংয়ে অভিজ্ঞ না হলেও ক্রিকেটে অনেক অভিজ্ঞ।

দেশের ক্রিকেটের সঙ্গে রফিক-বুলবুল না থাকায় একজন বোর্ড পরিচালক হিসেবে দায়বদ্ধ মনে করেন কিনা?

জবাবে সুজন বলেন, না। করি না এজন্য- আমি দুজনকেই দেশের ক্রিকেটে কাজ করার কথা বলেছি। কিন্তু তারা আমার কথায় রেসপন্স করেনি। বুলবুল ভাইকে আমি নিজেই বলেছি। বুলবুল ভাইকে আমি দুইটা অপশন দিয়েছিলাম- আমি উনাকে বলেছিলাম যে, বুলবুল ভাই আমি তো দেশের ক্রিকেটের পালস বুঝি। দেশের কাউকে জাতীয় দলের প্রধান কোচ করার চান্স খুব কম। আপনি জাতীয় দলের সহকারী কোচ হতে পারেন। অথবা হাই-পারফরম্যান্স টিমের প্রধান কোচ হতে পারেন। আমি বোর্ডের সঙ্গে কথা বলি। আপনি কোনটায় রাজি আমাকে জানান; উনি এরপর আর রেসপন্স করেননি।

আর রফিকের ব্যাপারটা হলো বোর্ডে আমাদের লোকাল কোচদের যে বেতন কাঠামো আছে, তাতে রফিক আসতে চায় না।

কে ভালো কোচ, খালেদ মাহমুদ সুজন নাকি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। সুজন বলেন, নিজেরটা তো বলা ঠিক না, বুলবুল ভাই তো অবশ্যই ভালো কোচ। যদিও দেশের ক্রিকেটে উনি কাজ করেছেন অনেক কম। তবে উনার অভিজ্ঞতা আমার থেকে অনেক বেশি। আমি উনাকেই এগিয়ে রাখব।

সেই বুলবুল-রফিককে নিয়ে যা বললেন সুজন

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৮ মে ২০২১, ১০:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেশের ক্রিকেটে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির ইতিহাস গড়েছেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। ক্রিকেট থেকে অবসরে বিদেশে কোচিং ক্যারিয়ার গড়েছেন তিনি। দেশের ক্রিকেটকে সার্ভিস দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে তেমন সাড়া পাননি তিনি।

অন্যদিকে দেশের সেরা স্পিনারদের মধ্যে অন্যতম মোহাম্মদ রফিক। জাতীয় দলের হয়ে ৩৩ টেস্টে আর ১২৫টি ওয়ানডেতে অংশ নিয়ে বাঁ-হাতি এ স্পিনার শিকার করেন ২২৫ উইকেট। 

জাতীয় দলের সাবেক তারকা ক্রিকেটাররা ক্রিকেট বোর্ডের বিভিন্ন বিভাগের সঙ্গে জড়িত থাকলেও রাখা হয়নি রফিকের মতো একজন প্রতিভাবান অভিজ্ঞ স্পিনারকে। 

আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও মোহাম্মদ রফিকের দেশের ক্রিকেটের সঙ্গে না থাকাটা দুর্ভাগ্য বলে মনে করেন কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে অনলাইন ভিডিওর একটি আড্ডায় অংশ নিয়ে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, একটু তো অবশ্যই। দুজনই অনেক অভিজ্ঞ। বুলবুল ভাই তো কোচিংয়ে অনেক অভিজ্ঞ। রফিক কোচিংয়ে অভিজ্ঞ না হলেও ক্রিকেটে অনেক অভিজ্ঞ। 

দেশের ক্রিকেটের সঙ্গে রফিক-বুলবুল না থাকায় একজন বোর্ড পরিচালক হিসেবে দায়বদ্ধ মনে করেন কিনা?

জবাবে সুজন বলেন, না। করি না এজন্য- আমি দুজনকেই দেশের ক্রিকেটে কাজ করার কথা বলেছি। কিন্তু তারা আমার কথায় রেসপন্স করেনি। বুলবুল ভাইকে আমি নিজেই বলেছি। বুলবুল ভাইকে আমি দুইটা অপশন দিয়েছিলাম- আমি উনাকে বলেছিলাম যে, বুলবুল ভাই আমি তো দেশের ক্রিকেটের পালস বুঝি। দেশের কাউকে জাতীয় দলের প্রধান কোচ করার চান্স খুব কম। আপনি জাতীয় দলের সহকারী কোচ হতে পারেন। অথবা হাই-পারফরম্যান্স টিমের প্রধান কোচ হতে পারেন। আমি বোর্ডের সঙ্গে কথা বলি। আপনি কোনটায় রাজি আমাকে জানান; উনি এরপর আর রেসপন্স করেননি। 

আর রফিকের ব্যাপারটা হলো বোর্ডে আমাদের লোকাল কোচদের যে বেতন কাঠামো আছে, তাতে রফিক আসতে চায় না।  

কে ভালো কোচ, খালেদ মাহমুদ সুজন নাকি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। সুজন বলেন, নিজেরটা তো বলা ঠিক না, বুলবুল ভাই তো অবশ্যই ভালো কোচ। যদিও দেশের ক্রিকেটে উনি কাজ করেছেন অনেক কম। তবে উনার অভিজ্ঞতা আমার থেকে অনেক বেশি।  আমি উনাকেই এগিয়ে রাখব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন