একের পর এক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেই যাচ্ছেন সাকিব
jugantor
একের পর এক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেই যাচ্ছেন সাকিব

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১১ জুন ২০২১, ১৯:৪১:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেটকে সাকিবের মতো একজন তারকা একের পর এক কলুষিত করে যাচ্ছেন। শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে কঠোর শাস্তি না পাওয়াতেই কি এতটা বেড়েছেন সাকিব? জাতীয় দলের ‘প্রধান’ তারকা বলে যা ইচ্ছে তাই করে যাবেন?

সর্বশেষ শুক্রবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনীর বিপক্ষে ইনিংসে ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলে সাকিবের আউটের আবেদনে করলে আম্পায়ার ইমরান পারভেজ সাড়া না দিল মেজাজ হারিয়ে নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের স্ট্যাম্পে লাথি মেরে ভেঙে দেন সাকিব।

এরপর বৃষ্টির কারণে আম্পায়াররা খেলা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিলে সাকিব আম্পায়ারের দিকে তেড়ে গিয়ে স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেন।

এর আগে জাতীয় দলের ম্যাচ চলা অবস্থায় লাইভ ক্যামেরার সামনে নিজের পুরুষাঙ্গ দেখান সাকিব। কিন্তু এত বড় অন্যায় করেও তেমন কোনো শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়নি সাকিবকে। শুধুমাত্র কয়েক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা। অথচ সাকিব না হয়ে অন্য কোনো ক্রিকেটার হলে জাতীয় দলে সেটাই তার শেষ ম্যাচ হয়ে যেত।

মিরপুরে জাতীয় দলের একটি ম্যাচে বাজে পারফরম্যান্স করে ফেরার সময় সাকিবকে উদ্দেশ করে গ্যালারি থেকে এক দর্শক বাজে মন্তব্য করেন। এতে তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠেন মাঠে উপস্থিত থাকা সাকিবপত্নী। বিষয়টি সাকিবের দৃষ্টিগোচর হলে দর্শক সারিতে গিয়ে ওই দর্শককে মারধর করেন সাকিব। এমন অপরাধ করেও পার পেয়ে যান সাকিব।

শুধু এসবই নয়, জুয়াড়িদের কাছ থেকে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েও তা গোপন করায় এক বছরের জন্য ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হন সাকিব। কিন্তু তাতেও সাকিব নিজেকে শোধরাতে পারেননি।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে পেশাদার ক্রিকেটে ফেরার কয়েক মাসের মধ্যেই সাকিব খোদ ক্রিকেট বোর্ডকেই বুড়ো আঙুল দেখিয়েছেন। জাতীয় দলের খেলা থাকা সত্ত্বেও অর্থের মোহে সবশেষ শ্রীলংকা সফরে টেস্ট সিরিজ না খেলে আইপিএল খেলতে চলে যান ভারতে।

আইপিএল শেষে দেশে ফিরে জাতীয় দলের হয়ে ব্যাটে-বলে তেমন কিছুই করতে পারেননি সাকিব। গত ১০ ম্যাচে ব্যাটে-বলে অনুজ্জ্বল সাকিব এবার ফর্মে ফেরার প্রচেষ্টা না করে জড়িয়েছেন শৃঙ্খলা ভঙ্গে।

করোনার মধ্যে বাড়তি সতর্কতাস্বরূপ ক্রিকেটারদের রাখা হয়েছে বায়ো-বাবলে। সাকিবের অনুশীলনে সেই বায়ো-বাবলও ভাঙেন। অধিনায়ক সাকিবের কারণে শোকজ করা হয় তার দল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ঐতিহ্যবাহী ক্লাব মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে।

সেই ঘটনার সপ্তাহ পার না হতেই সাকিব আরও বড় অপরাধে জড়ালেন। শুক্রবার ঢাকা লিগের ম্যাচে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে এলবিডব্লিউর আবেদন করেন সাকিব। আম্পায়ার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমকে আউট না দেওয়ায় আম্পায়ারের দিকে তেড়ে গিয়ে লাথি দিয়ে স্টাম্প ভেঙে দেন সাকিব। একই ম্যাচে এর আগে স্টাম্পও উপড়ে ফেলে দেন সাকিব।

সাকিবের একের পর এক শৃঙ্খলা ভঙ্গের লাগাম কি এবার ধরতে পারবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) বা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) ধরতে পারবে?

একের পর এক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেই যাচ্ছেন সাকিব

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১১ জুন ২০২১, ০৭:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেটকে সাকিবের মতো একজন তারকা একের পর এক কলুষিত করে যাচ্ছেন। শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে কঠোর শাস্তি না পাওয়াতেই কি এতটা বেড়েছেন সাকিব? জাতীয় দলের ‘প্রধান’ তারকা বলে যা ইচ্ছে তাই করে যাবেন?

সর্বশেষ শুক্রবার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনীর বিপক্ষে ইনিংসে ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলে সাকিবের আউটের আবেদনে করলে আম্পায়ার ইমরান পারভেজ সাড়া না দিল মেজাজ হারিয়ে নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের স্ট্যাম্পে লাথি মেরে ভেঙে দেন সাকিব।

এরপর বৃষ্টির কারণে আম্পায়াররা খেলা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিলে সাকিব আম্পায়ারের দিকে তেড়ে গিয়ে স্ট্যাম্প উপড়ে ফেলেন।

এর আগে জাতীয় দলের ম্যাচ চলা অবস্থায় লাইভ ক্যামেরার সামনে নিজের পুরুষাঙ্গ দেখান সাকিব। কিন্তু এত বড় অন্যায় করেও তেমন কোনো শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়নি সাকিবকে। শুধুমাত্র কয়েক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা। অথচ সাকিব না হয়ে অন্য কোনো ক্রিকেটার হলে জাতীয় দলে সেটাই তার শেষ ম্যাচ হয়ে যেত।

মিরপুরে জাতীয় দলের একটি ম্যাচে বাজে পারফরম্যান্স করে ফেরার সময় সাকিবকে উদ্দেশ করে গ্যালারি থেকে এক দর্শক বাজে মন্তব্য করেন। এতে তেলে-বেগুনে জ্বলে উঠেন মাঠে উপস্থিত থাকা সাকিবপত্নী। বিষয়টি সাকিবের দৃষ্টিগোচর হলে দর্শক সারিতে গিয়ে ওই দর্শককে মারধর করেন সাকিব। এমন অপরাধ করেও পার পেয়ে যান সাকিব।

শুধু এসবই নয়, জুয়াড়িদের কাছ থেকে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়েও তা গোপন করায় এক বছরের জন্য ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হন সাকিব। কিন্তু তাতেও সাকিব নিজেকে শোধরাতে পারেননি।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে পেশাদার ক্রিকেটে ফেরার কয়েক মাসের মধ্যেই সাকিব খোদ ক্রিকেট বোর্ডকেই বুড়ো আঙুল দেখিয়েছেন। জাতীয় দলের খেলা থাকা সত্ত্বেও অর্থের মোহে সবশেষ শ্রীলংকা সফরে টেস্ট সিরিজ না খেলে আইপিএল খেলতে চলে যান ভারতে।

আইপিএল শেষে দেশে ফিরে জাতীয় দলের হয়ে ব্যাটে-বলে তেমন কিছুই করতে পারেননি সাকিব। গত ১০ ম্যাচে ব্যাটে-বলে অনুজ্জ্বল সাকিব এবার ফর্মে ফেরার প্রচেষ্টা না করে জড়িয়েছেন শৃঙ্খলা ভঙ্গে।

করোনার মধ্যে বাড়তি সতর্কতাস্বরূপ ক্রিকেটারদের রাখা হয়েছে বায়ো-বাবলে। সাকিবের অনুশীলনে সেই বায়ো-বাবলও ভাঙেন। অধিনায়ক সাকিবের কারণে শোকজ করা হয় তার দল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ঐতিহ্যবাহী ক্লাব মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে।

সেই ঘটনার সপ্তাহ পার না হতেই সাকিব আরও বড় অপরাধে জড়ালেন। শুক্রবার ঢাকা লিগের ম্যাচে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে এলবিডব্লিউর আবেদন করেন সাকিব। আম্পায়ার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমকে আউট না দেওয়ায় আম্পায়ারের দিকে তেড়ে গিয়ে লাথি দিয়ে স্টাম্প ভেঙে দেন সাকিব। একই ম্যাচে এর আগে স্টাম্পও উপড়ে ফেলে দেন সাকিব।

সাকিবের একের পর এক শৃঙ্খলা ভঙ্গের লাগাম কি এবার ধরতে পারবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) বা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) ধরতে পারবে?

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ ২০২১