সাকিবের যত বিতর্ক 
jugantor
সাকিবের যত বিতর্ক 

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১২ জুন ২০২১, ২৩:০৩:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘ব্যাড বয়’ সাকিব আল হাসান। দেশের সেরা ক্রিকেটার হওয়ায় নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করে বারবার বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন এই বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার।

কখনো সতীর্থদের সঙ্গে বাজে আচরণ, কখনো মিডিয়া ও দর্শকদের সঙ্গে, বোর্ডের নিয়ম ভেঙেও শাস্তি পেয়েছেন অনেকবার। সবশেষ বিতর্কে জড়ালেন শুক্রবার আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচে। তার ক্যারিয়ারের বিতর্কিত অধ্যায়গুলো তুলে ধরা হলো-

২০১০ : ভারতের বিপক্ষে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে ব্যাটিং করছিলেন সাকিব। এ সময় সাইড স্ক্রিনের পাশে এক দর্শকের নড়াচড়ায় রেগে উইকেট ছেড়ে বাউন্ডারি লাইনে ছুটে গিয়ে বাজে ভাষা ব্যবহারের পাশাপাশি ব্যাট উঁচিয়ে দর্শককে হুমকি দেন।

২০১১ : বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ ৫৮ রানে অলআউট হওয়ার পর সাকিবকে ইঙ্গিত করে গ্যালারি থেকে দুয়ো আসতে থাকে। এ সময় সাকিব দর্শকদের মধ্যমা আঙুল দেখিয়ে বাজে ইঙ্গিত করেন।

২০১৩ : বিজয় দিবস টি-টোয়েন্টি ম্যাচ চলাকালীন এক দর্শকের কলার চেপে ধরেন সাকিব।

২০১৪ : মিরপুরে শ্রীলংকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আউট হওয়ার পর প্যাভিলিয়নে বসে থাকা সাকিব টিভি ক্যামেরার সামনে অশালীন ভঙ্গিতে বাজে ইঙ্গিত করেন। তাতে তিন ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হন তিনি।

২০১৪ : ভারতের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে চলাকালে স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে এক দর্শককে পিটিয়ে আহত করেন সাকিব।

২০১৫ : বিপিএলে সিলেট সুপার স্টার্সের বিপক্ষে ম্যাচে আম্পায়ার তানভীর আহমেদের সঙ্গে অসদাচরণ করে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা দেন রংপুর রাইডার্সের সাকিব।

২০১৬ : বিপিএলের প্রথম কোয়ালিফায়ারে আম্পায়ারের সঙ্গে বিবাদে জড়ান ঢাকা ডায়নামাইটসের অধিনায়ক সাকিব।

২০১৭ : দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের আগে ছয় মাসের ছুটি চান। কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে ছুটি দিতে রাজি ছিলেন না।

২০১৮ : বিসিবির কাছ থেকে অনাপত্তিপত্র না নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিপিএল খেলতে যাচ্ছিলেন সাকিব। মাঝপথ থেকে তাকে ফিরিয়ে আনে বোর্ড। এরপর টেস্ট ও ওয়ানডে দল থেকে অবসর নেওয়ার হুমকি দিয়ে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ছয় মাস নিষিদ্ধ হন সাকিব।

২০১৯ : বিশ্বকাপের আগে দলীয় ফটোসেশনে ছিলেন না সাকিব।

২০১৯ : জুয়াড়ির কাছ থেকে প্রস্তাব পাওয়ার পর সেটি গোপন করায় এক বছর সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন।

২০২১ : শ্রীলংকা সফরে না গিয়ে ভারতে আইপিএল খেলতে যান।

২০২১ : ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে জৈব সুরক্ষাবলয় ভঙ্গ করে আবার ক্ষমাও চান সাকিব। সবশেষ শুক্রবার আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচে আম্পায়ারদের সঙ্গে কয়েক দফা বাজে আচরণের পর মোহামেডান অধিনায়ক সাকিব নিষিদ্ধ হয়েছেন তিন ম্যাচ। জরিমানা গুনতে হবে পাঁচ লাখ টাকা।

সাকিবের যত বিতর্ক 

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১২ জুন ২০২১, ১১:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘ব্যাড বয়’ সাকিব আল হাসান। দেশের সেরা ক্রিকেটার হওয়ায় নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করে বারবার বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন এই বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার। 

কখনো সতীর্থদের সঙ্গে বাজে আচরণ, কখনো মিডিয়া ও দর্শকদের সঙ্গে, বোর্ডের নিয়ম ভেঙেও শাস্তি পেয়েছেন অনেকবার। সবশেষ বিতর্কে জড়ালেন শুক্রবার আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচে। তার ক্যারিয়ারের বিতর্কিত অধ্যায়গুলো তুলে ধরা হলো-

২০১০ : ভারতের বিপক্ষে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে ব্যাটিং করছিলেন সাকিব। এ সময় সাইড স্ক্রিনের পাশে এক দর্শকের নড়াচড়ায় রেগে উইকেট ছেড়ে বাউন্ডারি লাইনে ছুটে গিয়ে বাজে ভাষা ব্যবহারের পাশাপাশি ব্যাট উঁচিয়ে দর্শককে হুমকি দেন।

২০১১ : বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ ৫৮ রানে অলআউট হওয়ার পর সাকিবকে ইঙ্গিত করে গ্যালারি থেকে দুয়ো আসতে থাকে। এ সময় সাকিব দর্শকদের মধ্যমা আঙুল দেখিয়ে বাজে ইঙ্গিত করেন।

২০১৩ : বিজয় দিবস টি-টোয়েন্টি ম্যাচ চলাকালীন এক দর্শকের কলার চেপে ধরেন সাকিব।

২০১৪ : মিরপুরে শ্রীলংকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আউট হওয়ার পর প্যাভিলিয়নে বসে থাকা সাকিব টিভি ক্যামেরার সামনে অশালীন ভঙ্গিতে বাজে ইঙ্গিত করেন। তাতে তিন ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হন তিনি।

২০১৪ : ভারতের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে চলাকালে স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে এক দর্শককে পিটিয়ে আহত করেন সাকিব। 

২০১৫ : বিপিএলে সিলেট সুপার স্টার্সের বিপক্ষে ম্যাচে আম্পায়ার তানভীর আহমেদের সঙ্গে অসদাচরণ করে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা দেন রংপুর রাইডার্সের সাকিব।

২০১৬ : বিপিএলের প্রথম কোয়ালিফায়ারে আম্পায়ারের সঙ্গে বিবাদে জড়ান ঢাকা ডায়নামাইটসের অধিনায়ক সাকিব। 

২০১৭ : দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের আগে ছয় মাসের ছুটি চান। কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে ছুটি দিতে রাজি ছিলেন না। 

২০১৮ : বিসিবির কাছ থেকে অনাপত্তিপত্র না নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিপিএল খেলতে যাচ্ছিলেন সাকিব। মাঝপথ থেকে তাকে ফিরিয়ে আনে বোর্ড। এরপর টেস্ট ও ওয়ানডে দল থেকে অবসর নেওয়ার হুমকি দিয়ে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ছয় মাস নিষিদ্ধ হন সাকিব।

২০১৯ : বিশ্বকাপের আগে দলীয় ফটোসেশনে ছিলেন না সাকিব। 

২০১৯ : জুয়াড়ির কাছ থেকে প্রস্তাব পাওয়ার পর সেটি গোপন করায় এক বছর সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন। 

২০২১ : শ্রীলংকা সফরে না গিয়ে ভারতে আইপিএল খেলতে যান। 

২০২১ : ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে জৈব সুরক্ষাবলয় ভঙ্গ করে আবার ক্ষমাও চান সাকিব। সবশেষ শুক্রবার আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচে আম্পায়ারদের সঙ্গে কয়েক দফা বাজে আচরণের পর মোহামেডান অধিনায়ক সাকিব নিষিদ্ধ হয়েছেন তিন ম্যাচ। জরিমানা গুনতে হবে পাঁচ লাখ টাকা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন