ওয়ানডেকে বিদায় জানালেন বিশ্বকাপের দ্রুততম সেঞ্চুরিয়ান
jugantor
ওয়ানডেকে বিদায় জানালেন বিশ্বকাপের দ্রুততম সেঞ্চুরিয়ান

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৯ জুন ২০২১, ১২:৫৪:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

২০১১ সালের বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ৫০ বলে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন আইরিশ অলরাউন্ডার কেভিন ও’ ব্রায়েন।

৬৩ বলে ১১৩ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। বিশ্বকাপ ইতিহাসের এখন পর্যন্ত দ্রুততম সেঞ্চুরি এটি।

আর সেই আইরিশ অলরাউন্ডার ওয়ানডে জার্সিটা খুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে ওয়ানডে ফরম্যাট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন ৩৭ বছর বয়সি আইরিশ কিংবদন্তি। তবে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সংস্করণে খেলা চালিয়ে যাবেন।

অবসরের বিষয় কেভিন ও’ ব্রায়েন বলেন, ‘১৫ বছর ক্রিকেট খেলেছি। এখন আমার ওয়ানডে থেকে সরে দাঁড়ানো উচিত। ১৫৩টি ম্যাচে আমি দেশকে প্রতিনিধিত্ব করেছি। এটা আমার জন্য গর্বের। দেশের হয়ে খেলার এই সুখস্মৃতি আমার সারাজীবনের সঙ্গী হবে।’

আয়ারল্যান্ডের হয়ে বেশ কয়েকটি দুর্দান্ত ইনিংস রয়েছে কেভিন ও ও’ ব্রায়েনের। তবে ২০১১ বিশ্বকাপে শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা তার ইনিংসটি তাকে কিংবদন্তির পর্যায়ে নিয়ে যায়।

ভারতের ব্যাঙ্গালুরুতে হওয়া ওই ম্যাচের আগে সবার মতামত ছিল, অসম এক ম্যাচ দেখতে যাচ্ছে ক্রিকেটবিশ্ব। ইংলিশদের কাছে পাত্তাই পাবে না আইরিশরা। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে আইরিশ বোলারদের তুলোধোনা করে ৩২৮ রান করে ইংল্যান্ড। কিন্তু দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে একাই ইংলিশদেরকে হারিয়ে দেন কেভিন ও’ব্রায়েন।

ওই এক ইনিংসেই আয়ারল্যান্ড ক্রিকেটের পোস্টার বয় বনে যান এই অলরাউন্ডার।

২০০৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হয় কেভিন ও’ব্রায়েনের। সমমিলিয়ে ১৫৩ ওয়ানডেতে ৩৬১৮ রান সংগ্রহ করেছেন ঝুলিতে। পাশাপাশি নিয়েছেন ১১৪টি উইকেট। আয়ারল্যান্ডের ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী বোলার তিনিই। ৬৮টি ক্যাচও নিয়েছেন ও’ব্রায়েন, সেটিও দেশের হয়ে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ।

ওয়ানডেকে বিদায় জানালেন বিশ্বকাপের দ্রুততম সেঞ্চুরিয়ান

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৯ জুন ২০২১, ১২:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

২০১১ সালের বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ৫০ বলে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন আইরিশ অলরাউন্ডার কেভিন ও’ ব্রায়েন। 

৬৩ বলে ১১৩ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। বিশ্বকাপ ইতিহাসের এখন পর্যন্ত দ্রুততম সেঞ্চুরি এটি।

আর সেই আইরিশ অলরাউন্ডার ওয়ানডে জার্সিটা খুলে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।  

শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে ওয়ানডে ফরম্যাট থেকে অবসরের ঘোষণা দেন ৩৭ বছর বয়সি আইরিশ কিংবদন্তি। তবে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সংস্করণে খেলা চালিয়ে যাবেন।

অবসরের বিষয় কেভিন ও’ ব্রায়েন বলেন, ‘১৫ বছর ক্রিকেট খেলেছি। এখন আমার ওয়ানডে থেকে সরে দাঁড়ানো উচিত। ১৫৩টি ম্যাচে আমি দেশকে প্রতিনিধিত্ব করেছি। এটা আমার জন্য গর্বের। দেশের হয়ে খেলার এই সুখস্মৃতি আমার সারাজীবনের সঙ্গী হবে।’
 
আয়ারল্যান্ডের হয়ে বেশ কয়েকটি দুর্দান্ত ইনিংস রয়েছে কেভিন ও ও’ ব্রায়েনের।  তবে ২০১১ বিশ্বকাপে শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা তার ইনিংসটি তাকে কিংবদন্তির পর্যায়ে নিয়ে যায়। 

ভারতের ব্যাঙ্গালুরুতে হওয়া ওই ম্যাচের আগে সবার মতামত ছিল, অসম এক ম্যাচ দেখতে যাচ্ছে ক্রিকেটবিশ্ব। ইংলিশদের কাছে পাত্তাই পাবে না আইরিশরা। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে আইরিশ বোলারদের তুলোধোনা করে ৩২৮ রান করে ইংল্যান্ড। কিন্তু দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে একাই ইংলিশদেরকে হারিয়ে দেন কেভিন ও’ব্রায়েন।

ওই এক ইনিংসেই আয়ারল্যান্ড ক্রিকেটের পোস্টার বয় বনে যান এই অলরাউন্ডার। 

২০০৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেক হয় কেভিন ও’ব্রায়েনের।  সমমিলিয়ে ১৫৩ ওয়ানডেতে ৩৬১৮ রান সংগ্রহ করেছেন ঝুলিতে। পাশাপাশি নিয়েছেন ১১৪টি উইকেট।  আয়ারল্যান্ডের ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী বোলার তিনিই।  ৬৮টি ক্যাচও নিয়েছেন ও’ব্রায়েন, সেটিও দেশের হয়ে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন