সাকিবের দলকে হারিয়ে চতুর্থ আইপিএল শিরোপা জিতল ধোনির চেন্নাই
jugantor
সাকিবের দলকে হারিয়ে চতুর্থ আইপিএল শিরোপা জিতল ধোনির চেন্নাই

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৬ অক্টোবর ২০২১, ০০:১১:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

এবারের আইপিএলের পুরো মৌসুমজুড়ে বোলিং পারফরম্যান্সে ভর করেই ম্যাচ জিতে এসেছে কলকাতা।

আর সেই দলের বোলাররা শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে ছন্দ হারালেন।

বরুণ-ফার্গুসন-নারিন-সাকিব কেউ-ই ভালো বল করলেন না। তাদের তুলোধোনা করলেন চেন্নাইয়ের প্রোটিয়া তারকা ফাফ ডুপ্লেসি।

রবিন উথাপ্পা আর মঈন আলিও কম যাননি। তারা প্রত্যেকেই তিনটি করে ছক্কা হাঁকিয়ে ৩ উইকেট হারিয়ে কলকাতার সামনে রাখেন ১৯২ রানের বড় সংগ্রহ।

তবে ১৯৩ রানের বড় লক্ষ্যের তাড়ায় কলকাতাও দারুণ শুরু করলেও সব মাটি করে দিয়েছেন মিডলঅর্ডারের ব্যাটাররা।

আসা-যাওয়ার মিছিল শেষে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৬৫তে থেমে গেছে কলকাতা। ফলে ২৭ রানে জয় নিয়ে আইপিএল-২১ এর শিরোপা জিতল ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস। চতুর্থ বারের মতো আইপিএল শিরোপা ঘরে তুলল চেন্নাই।

গত ম্যাচের মতো এ ম্যাচেও দারুণ এক ফিফটি হাঁকিয়েছেন ভেঙ্কেটশ। শার্দুল ঠাকুরের বলে জাদেজার হাতে ক্যাচ তুলে দেওয়ার আগে তিনি করেন ৩২ বলে ৫৬ রান। যেখানে ৫টি বাউন্ডারি ও ৩টি ছক্কার মার ছিল।

দুর্দান্ত খেলেছেন ওপেনার শুবমান গিলও। চাহারের বলে এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে তিনি করেন ৪৩ বলে ৫১ রান।

কিন্তু এই দুই ওপেনারের আউটের পরই কলকাতার ইনিংসে ধস নামে।

আজকের ম্যাচেও ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বেরুতে পারেননি কলকাতার অধিনায়ক ইয়ন মরগান। গত ম্যাচে ডাক মেরেছিলেন তিনি। ফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে করলেন ৮ বলে ৪ রান। এরপরই হ্যাজেলহুডের বলে চাহালের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে দায়িত্ব শেষ করেন নিজের।

ফাইনালেও ডাক মারলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব। ১৪তম ওভারের ৫ম বলে দিনেশ কার্তিকের আউটের পর নামেন সাকিব।

সামনে বিশাল চ্যালেঞ্জ। ৩০ বলে করতে হবে ৭২ রান। আর ব্যাটে হাতে সাকিব নামলেন আর চলে গেলেন। জাদেজার ওই একই ওভারের শেষ বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফেরেন সাকিব। গত ম্যাচেও রানের খাতা খুলতে পারেননি এই অলরাউন্ডার।

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ছক্কা মেরে দলকে ফাইনালে তোলার নায়ক রাহুল ত্রিপাঠি আজ কিছুই করতে পারলেন না।

ডাক না মারলেও ৩ বলে ২ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। ১৩তম ওভার শেষে কলকাতার সংগ্রহ ছিল ৩ উইকেটে ১০৮ রান। জয়ের জন্য দরকার ছিল ৪২ বলে ৮৫ রান। টি-টোয়েন্টির এই ফরম্যাটে এমন পরিস্থিতিতেও ধুমধাড়াক্কা ব্যাটিং করে ম্যাচ জয়ের রেকর্ড আছে অহরহর।

কিন্তু ১৭তম ওভার শেষে পুরো চিত্রটাই অন্যরকম হয়ে গেল। কলকাতার সংগ্রহ তখন ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান। অর্থাৎ ১৯ রান করতেই ৫ উইকেট হাওয়া কলকাতার!

১৮ ওভার শেষে শিভাম মাভি ধংসস্তুপে দাঁড়িয়ে একাই ঝড় তোলেন। একটি বাউন্ডারি ও দুটি ছক্কার মারে দলের রান ১৪৫ এ নিয়ে যান।

কিন্তু শিভামের এই ঝড়ো ব্যাটিং শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে। কাঙ্ক্ষিত জয় এনে দিতে পারেনি। শেষ দুই ্ওভারে প্রয়োজন পড়ে ৪৮ রানের।

১৯তম ওভারে ঠাকুরের নো বলের সুবাদে ৫ রান যোগ হয়। এ ্ওভারে ফার্গুসন ্ও শিভাম নেন ১৭ রান। অর্থাৎ শেষ ৬ বলে প্রয়োজন পড়ে ৩১ রানের। যা অনেকটাই অসম্ভব। তবুও খেলায় একরকম টিকে থাকে কলকাতা।

কিন্তু শেষ ওভারে চেন্নাইয়ের ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার ব্রাভো কলকাতা সমর্থকদের সব আশার আলো নিভিয়ে দেন।

পঞ্চম বলে শিভামকে সাজঘরে ফেরালে ওই ওভার থেকে কলকাতা সংগ্রহ করতে পারে মাত্র ৩ রান।

ফলে ২৭ রানে জয় পায় ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস।

শুক্রবার দুবাইয়ের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আইপিএল ১৪তম আসরের ফাইনালে টস জিতে চেন্নাইকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠান কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক ইয়ন মরগান।

টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ১০ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৮০ রান করে চেন্নাই সুপার কিংস। শেষ ১০ ওভারে রীতিমতো ব্যাটিংয়ে ঝড় তুলেন ফাফ ডু প্লেসি ও মঈন আলী। চেন্নাইয়ের এই আফ্রিকান-ইংলিশ তারকা দুই ব্যাটসম্যান একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে শেষ ৬০ বলে স্কোর বোর্ডে ১১২ রান যোগ করেন।

লের হয়ে ৫৯ বলে তিন ছক্কা আর ৭টি চারের সাহায্যে সর্বোচ্চ ৮৬ রান করেন প্লেসি।

এছাড়া ২০ বলে ৩টি ছক্কায় অপরাজিত ৩৭ রান করেন ইংলিশ তারকা মঈন আলী। ১৫ বলে তিন ছক্কায় ৩১ রান করেন রবীন উথাপ্পা। আর ২৭ বলে ৩২ রান করেন ঋতুরাজ গায়কওয়াদ।

হাইলাইটস দেখুন -

সাকিবের দলকে হারিয়ে চতুর্থ আইপিএল শিরোপা জিতল ধোনির চেন্নাই

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:১১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এবারের আইপিএলের পুরো মৌসুমজুড়ে বোলিং পারফরম্যান্সে ভর করেই ম্যাচ জিতে এসেছে কলকাতা।

আর সেই দলের বোলাররা শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে ছন্দ হারালেন। 

বরুণ-ফার্গুসন-নারিন-সাকিব কেউ-ই ভালো বল করলেন না। তাদের তুলোধোনা করলেন চেন্নাইয়ের প্রোটিয়া তারকা ফাফ ডুপ্লেসি।

রবিন উথাপ্পা আর মঈন আলিও কম যাননি। তারা প্রত্যেকেই তিনটি করে ছক্কা হাঁকিয়ে ৩ উইকেট হারিয়ে কলকাতার সামনে রাখেন ১৯২ রানের বড় সংগ্রহ। 

তবে ১৯৩ রানের বড় লক্ষ্যের তাড়ায় কলকাতাও দারুণ শুরু করলেও সব মাটি করে দিয়েছেন মিডলঅর্ডারের ব্যাটাররা। 

আসা-যাওয়ার মিছিল শেষে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৬৫তে থেমে গেছে কলকাতা। ফলে ২৭ রানে জয় নিয়ে আইপিএল-২১ এর শিরোপা জিতল ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস। চতুর্থ বারের মতো আইপিএল শিরোপা ঘরে তুলল চেন্নাই।

গত ম্যাচের মতো এ ম্যাচেও দারুণ এক ফিফটি হাঁকিয়েছেন ভেঙ্কেটশ। শার্দুল ঠাকুরের বলে জাদেজার হাতে ক্যাচ তুলে দেওয়ার আগে তিনি করেন ৩২ বলে ৫৬ রান। যেখানে ৫টি বাউন্ডারি ও ৩টি ছক্কার মার ছিল।

দুর্দান্ত খেলেছেন ওপেনার শুবমান গিলও। চাহারের বলে এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে তিনি করেন ৪৩ বলে ৫১ রান।

কিন্তু এই দুই ওপেনারের আউটের পরই কলকাতার ইনিংসে ধস নামে। 

আজকের ম্যাচেও ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বেরুতে পারেননি কলকাতার অধিনায়ক ইয়ন মরগান। গত ম্যাচে ডাক মেরেছিলেন তিনি। ফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে করলেন ৮ বলে ৪ রান। এরপরই হ্যাজেলহুডের বলে চাহালের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে দায়িত্ব শেষ করেন নিজের।

ফাইনালেও ডাক মারলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব। ১৪তম ওভারের ৫ম বলে দিনেশ কার্তিকের আউটের পর  নামেন সাকিব।

সামনে বিশাল চ্যালেঞ্জ। ৩০ বলে করতে হবে ৭২ রান। আর ব্যাটে হাতে সাকিব নামলেন আর চলে গেলেন। জাদেজার ওই একই ওভারের শেষ বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাজঘরে ফেরেন সাকিব। গত ম্যাচেও রানের খাতা খুলতে পারেননি এই  অলরাউন্ডার।

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে ছক্কা মেরে দলকে ফাইনালে তোলার নায়ক রাহুল ত্রিপাঠি আজ কিছুই করতে পারলেন না।

ডাক না মারলেও ৩ বলে ২ রান করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। ১৩তম ওভার শেষে কলকাতার সংগ্রহ ছিল ৩ উইকেটে ১০৮ রান। জয়ের জন্য দরকার ছিল ৪২ বলে ৮৫ রান। টি-টোয়েন্টির এই ফরম্যাটে এমন পরিস্থিতিতেও ধুমধাড়াক্কা ব্যাটিং করে ম্যাচ জয়ের রেকর্ড আছে অহরহর।

কিন্তু ১৭তম ওভার শেষে পুরো চিত্রটাই অন্যরকম হয়ে গেল। কলকাতার সংগ্রহ তখন ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান। অর্থাৎ ১৯ রান করতেই ৫ উইকেট হাওয়া কলকাতার! 

১৮ ওভার শেষে শিভাম মাভি ধংসস্তুপে দাঁড়িয়ে একাই ঝড় তোলেন। একটি বাউন্ডারি ও দুটি ছক্কার মারে দলের রান ১৪৫ এ নিয়ে যান।

কিন্তু শিভামের এই ঝড়ো ব্যাটিং শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে। কাঙ্ক্ষিত জয় এনে দিতে পারেনি। শেষ দুই ্ওভারে প্রয়োজন পড়ে ৪৮ রানের।

১৯তম ওভারে ঠাকুরের নো বলের সুবাদে ৫ রান যোগ হয়। এ ্ওভারে ফার্গুসন ্ও শিভাম নেন ১৭ রান। অর্থাৎ শেষ ৬ বলে প্রয়োজন পড়ে ৩১ রানের। যা অনেকটাই অসম্ভব। তবুও খেলায় একরকম টিকে থাকে কলকাতা।

কিন্তু শেষ ওভারে চেন্নাইয়ের ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার ব্রাভো কলকাতা সমর্থকদের সব আশার আলো নিভিয়ে দেন। 

পঞ্চম বলে শিভামকে সাজঘরে ফেরালে ওই ওভার থেকে কলকাতা সংগ্রহ করতে পারে মাত্র ৩ রান।

ফলে ২৭ রানে জয় পায় ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস।

শুক্রবার দুবাইয়ের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আইপিএল ১৪তম আসরের ফাইনালে টস জিতে চেন্নাইকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠান কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক ইয়ন মরগান।

 টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ১০ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৮০ রান করে চেন্নাই সুপার কিংস। শেষ ১০ ওভারে রীতিমতো ব্যাটিংয়ে ঝড় তুলেন ফাফ ডু প্লেসি ও মঈন আলী। চেন্নাইয়ের এই আফ্রিকান-ইংলিশ তারকা দুই ব্যাটসম্যান একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে শেষ ৬০ বলে স্কোর বোর্ডে ১১২ রান যোগ করেন।  

লের হয়ে ৫৯ বলে তিন ছক্কা আর ৭টি চারের সাহায্যে সর্বোচ্চ ৮৬ রান করেন প্লেসি।

এছাড়া ২০ বলে ৩টি ছক্কায় অপরাজিত ৩৭ রান করেন ইংলিশ তারকা মঈন আলী। ১৫ বলে তিন ছক্কায় ৩১ রান করেন রবীন উথাপ্পা। আর ২৭ বলে ৩২ রান করেন ঋতুরাজ গায়কওয়াদ।

হাইলাইটস দেখুন -

 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আইপিএল-২০২১

১৫ অক্টোবর, ২০২১