রাতভর টুইটারে হরভজন-আমিরের তুমুল বাদানুবাদ
jugantor
রাতভর টুইটারে হরভজন-আমিরের তুমুল বাদানুবাদ

  স্পোর্টস ডেস্ক  

২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৪:১৬:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথের বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই বাগযুদ্ধে জড়িয়েছিলেন ভারত দলের সাবেক স্পিনার হরভজন সিং ও পাকিস্তানের সাবেক গতিতারকা শোয়েব আখতার।

‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’কে খোঁচা দিয়ে হরভজন বলেছিলেন— ‘তোমরা খেলবে, আবার হারবে।’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দুদলের প্রথম ম্যাচে ভারতকে ১০ উইকেটে উড়িয়ে দেয় পাকিস্তান। এমন দুর্দান্ত জয়ের পর হরভজনকে এক হাত নেন শোয়েব।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ দুই সাবেক তারকার মধ্যে পাক-ভারতের জয়-পরাজয় নিয়ে বন্ধুত্বপূর্ণ রসিকতা চলছিল।

কিন্তু পরবর্তী সময় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়। এবার শোয়েবের সঙ্গে নয়; তার সাবেক সতীর্থ পাকিস্তানের পেসার মোহাম্মদ আমিরের সঙ্গে বাগযুদ্ধে নেমেছেন হরভজন, যা থামার কোনো লক্ষ্মণ নেই।

টুইটারে রাতভর একে অপরকে আক্রমণ-প্রতিআক্রমণ করে গেছেন। পুরনো কাসুন্দি ঘেঁটে তুলে রাতভর ঝগড়া করেছেন দুজনে, যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় মুহূর্তেই। নেটদুনিয়ায় তোলপাড় চলছে বিষয়টি নিয়ে।

ঘটনার সূত্রপাত হয় মোহাম্মদ আমিরের টুইটে। আমির টুইটারে জানতে চান— বিশ্বকাপে পাকিস্তানের কাছে ভারতের হারের পর হরভজন সিং নিজের টেলিভিশন সেট ভেঙে ফেলেছেন কিনা?

জবাবে আমিরকে ছক্কা মেরে তার ম্যাচ জেতানোর একটি ভিডিও পোস্ট করেন হরভজন। পাল্টা প্রশ্ন করেন, এই ছক্কাটিতে বল গিয়ে আমিরের ঘরের টেলিভিশন সেট ভেঙে দিয়েছিল কিনা?

পাল্টা জবাবে হরভজনের উদ্দেশ্যে আরেকটি ভিডিও পোস্ট করেন আমির। যেখানে দেখা যাচ্ছে— কোনো এক টেস্টে হরভজনের পর পর চারটি ডেলিভারিকে শহিদ আফ্রিদি চার ছক্কা মারেন।

সেই ভিডিও পোস্ট করে হরভজনকে বিদ্রূপ করে আমির লেখেন— ‘সব বোলারকেই বাউন্ডারি হজম করতে হয়। কিন্তু টেস্টে পর পর চার বাউন্ডারি হজম! আফ্রিদি আসছে, হরভজন এবার তুমি পালাও।’

এই পোস্ট দেখেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন হরভজন সিং। নিজেকে আর সামলাতে পারেননি এ অফস্পিনার। আমিরকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করেন।

লর্ডসে আমিরের ম্যাচ ফিক্সিংকাণ্ডের প্রসঙ্গ তুলে হরভজন জানতে চান, টেস্ট ক্রিকেটে নো বল কীভাবে হয়? কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছিলেন আমির?

ভাজ্জি আরও লেখেন—ক্রিকেটকে কলুষিত করা এবং তাদের সমর্থন করা মানুষদের লজ্জা হওয়া উচিত।

ব্যস শুরু হয় উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়। পাল্টা জবাবে আমিরও হরভজনকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেন। তার বোলিং অ্যাকশনকে অবৈধ বলে দাবি করেন। হরভজনকে চাকার বলে খেপিয়ে তোলেন। হরভজনও সরাসরি আমিরকে ফিক্সার উল্লেখ করেন।

অনেকে আমির বনাম হরভজনের বাদানুবাদ বেশ উপভোগ করলেও কেউ কেউ এই উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ের এখনই সমাপ্তি টানতে বলছেন এ দুই তারকাকে।

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি, টুইটার।

টি২০ বিশ্বকাপ ২০২১

রাতভর টুইটারে হরভজন-আমিরের তুমুল বাদানুবাদ

 স্পোর্টস ডেস্ক 
২৭ অক্টোবর ২০২১, ০২:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথের বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই বাগযুদ্ধে জড়িয়েছিলেন ভারত দলের সাবেক স্পিনার হরভজন সিং ও পাকিস্তানের সাবেক গতিতারকা শোয়েব আখতার।

‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’কে খোঁচা দিয়ে হরভজন বলেছিলেন— ‘তোমরা খেলবে, আবার হারবে।’ 

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দুদলের প্রথম ম্যাচে ভারতকে ১০ উইকেটে উড়িয়ে দেয় পাকিস্তান।  এমন দুর্দান্ত জয়ের পর হরভজনকে এক হাত নেন শোয়েব।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ দুই সাবেক তারকার মধ্যে পাক-ভারতের জয়-পরাজয় নিয়ে বন্ধুত্বপূর্ণ রসিকতা চলছিল। 

কিন্তু পরবর্তী সময় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়। এবার শোয়েবের সঙ্গে নয়; তার সাবেক সতীর্থ পাকিস্তানের পেসার মোহাম্মদ আমিরের সঙ্গে বাগযুদ্ধে নেমেছেন হরভজন, যা থামার কোনো লক্ষ্মণ নেই। 

টুইটারে রাতভর একে অপরকে আক্রমণ-প্রতিআক্রমণ করে গেছেন। পুরনো কাসুন্দি ঘেঁটে তুলে রাতভর ঝগড়া করেছেন দুজনে, যা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায় মুহূর্তেই।  নেটদুনিয়ায় তোলপাড় চলছে বিষয়টি নিয়ে।

ঘটনার সূত্রপাত হয় মোহাম্মদ আমিরের টুইটে। আমির টুইটারে জানতে চান— বিশ্বকাপে পাকিস্তানের কাছে ভারতের হারের পর হরভজন সিং নিজের টেলিভিশন সেট ভেঙে ফেলেছেন কিনা? 

জবাবে আমিরকে ছক্কা মেরে তার ম্যাচ জেতানোর একটি ভিডিও পোস্ট করেন হরভজন। পাল্টা প্রশ্ন করেন, এই ছক্কাটিতে বল গিয়ে আমিরের ঘরের টেলিভিশন সেট ভেঙে দিয়েছিল কিনা?

পাল্টা জবাবে হরভজনের উদ্দেশ্যে আরেকটি ভিডিও পোস্ট করেন আমির। যেখানে দেখা যাচ্ছে— কোনো এক টেস্টে হরভজনের পর পর চারটি ডেলিভারিকে শহিদ আফ্রিদি চার ছক্কা মারেন। 

সেই ভিডিও পোস্ট করে হরভজনকে বিদ্রূপ করে আমির লেখেন— ‘সব বোলারকেই বাউন্ডারি হজম করতে হয়। কিন্তু টেস্টে পর পর চার বাউন্ডারি হজম! আফ্রিদি আসছে, হরভজন এবার তুমি পালাও।’

 

এই পোস্ট দেখেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন হরভজন সিং। নিজেকে আর সামলাতে পারেননি এ অফস্পিনার। আমিরকে ব্যক্তিগতভাবে আক্রমণ করেন।

লর্ডসে আমিরের ম্যাচ ফিক্সিংকাণ্ডের প্রসঙ্গ তুলে হরভজন জানতে চান, টেস্ট ক্রিকেটে নো বল কীভাবে হয়? কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছিলেন আমির? 

ভাজ্জি আরও লেখেন—ক্রিকেটকে কলুষিত করা এবং তাদের সমর্থন করা মানুষদের লজ্জা হওয়া উচিত।

 

ব্যস শুরু হয় উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়। পাল্টা জবাবে আমিরও হরভজনকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেন। তার বোলিং অ্যাকশনকে অবৈধ বলে দাবি করেন। হরভজনকে চাকার বলে খেপিয়ে তোলেন। হরভজনও সরাসরি আমিরকে ফিক্সার উল্লেখ করেন।

 

অনেকে আমির বনাম হরভজনের বাদানুবাদ বেশ উপভোগ করলেও কেউ কেউ এই উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ের এখনই সমাপ্তি টানতে বলছেন এ দুই তারকাকে।

তথ্যসূত্র: এনডিটিভি, টুইটার।   
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : টি২০ বিশ্বকাপ ২০২১