পাকিস্তানের বিশাল জয়েও শোয়েব আখতারের আফসোস
jugantor
পাকিস্তানের বিশাল জয়েও শোয়েব আখতারের আফসোস

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৫৮:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রাম টেস্টে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। পঞ্চম ও শেষ দিনের প্রথম সেশনেই ম‍্যাচ শেষ করে দিয়েছে পাকিস্তান। ২০২ রানের লক্ষ‍্য কেবল দুই ওপেরকে হারিয়েই ছুঁয়ে ফেলেছে বাবর আজমের দল।

৯১ রান করে আবিদ আলির বিদায়ের পর অবিচ্ছিন্ন ৩৩ রানের জুটিতে বাকিটা সেরেছেন বাবর আজম ও আজহার আলি।

নিখুঁতভাবে একটি জয় বের করে নিয়ে যাওয়ায় পাকিস্তান দলকে প্রশংসায় ভাসিয়ে দিচ্ছেন পিসিবি সভাপতি রমিজ রাজা। উচ্ছ্বসিত প্রশংসায় মেতেছেন শোয়েব আখতারও। তবুও তার একটি আফসোস রয়েই গেছে।

ম্যাচ শেষ হওয়ার পর শোয়েব আখতার বাবর আজমদের প্রশংসা করে বলেছেন, ‘টেস্ট জয় বরাবরই মিষ্টি! ছেলেরা দারুণ করেছ। ইশ্‌, আবিদ যদি জোড়া শতক পেত।’

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা ৩৩০ রানের জবাবে তাইজুলের ঘূর্ণিতে কুপোকাত হয়ে ২৮৬তে থেমে যায় পাকিস্তান। এই সংগ্রহ এনে দেওয়ায় বড় ভূমিকা ছিল একজনেরই। ওপেনার আবিদ আলি। ১২ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ১৩৩ রান করেন তিনি। পরের ইনিংসেও ত্রাতা হয়ে আবির্ভাব ঘটে আবিদের। সেঞ্চুরি না হাঁকাতে পারলেও তাইজুলের বলে এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে ৯১ রান আউট হন এই ওপেনার।

তবে সেঞ্চুরি না পেলেও আবিদ আলি ও আবদুল্লাহ শফিকের এমন পেশাদার পারফরম্যান্সে মুগ্ধ পিসিবিপ্রধান রমিজ রাজা । টুইট করে তিনি বলেছেন, ‘ছেলেদের অভিনন্দন! এমন স্পিনবান্ধব উইকেটে ২০০ তাড়া করা একটা পরীক্ষা ছিল। রান তাড়ার কাজটা নিখুঁতভাবে তারা করেছে। আর প্রতিপক্ষের মাঠে জয় বরাবরই বিশেষ কিছু।’

পাকিস্তানের বিশাল জয়েও শোয়েব আখতারের আফসোস

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৫৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রাম টেস্টে ৮ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। পঞ্চম ও শেষ দিনের প্রথম সেশনেই ম‍্যাচ শেষ করে দিয়েছে পাকিস্তান। ২০২ রানের লক্ষ‍্য কেবল দুই ওপেরকে হারিয়েই ছুঁয়ে ফেলেছে বাবর আজমের দল।

৯১ রান করে আবিদ আলির বিদায়ের পর অবিচ্ছিন্ন ৩৩ রানের জুটিতে বাকিটা সেরেছেন বাবর আজম ও আজহার আলি।

নিখুঁতভাবে একটি জয় বের করে নিয়ে যাওয়ায় পাকিস্তান দলকে প্রশংসায় ভাসিয়ে দিচ্ছেন পিসিবি সভাপতি রমিজ রাজা। উচ্ছ্বসিত প্রশংসায় মেতেছেন শোয়েব আখতারও। তবুও তার একটি আফসোস রয়েই গেছে।

ম্যাচ শেষ হওয়ার পর শোয়েব আখতার বাবর আজমদের প্রশংসা করে বলেছেন, ‘টেস্ট জয় বরাবরই মিষ্টি! ছেলেরা দারুণ করেছ। ইশ্‌, আবিদ যদি জোড়া শতক পেত।’

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের করা ৩৩০ রানের জবাবে তাইজুলের ঘূর্ণিতে কুপোকাত হয়ে ২৮৬তে থেমে যায় পাকিস্তান। এই সংগ্রহ এনে দেওয়ায় বড় ভূমিকা ছিল একজনেরই। ওপেনার আবিদ আলি। ১২ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ১৩৩ রান করেন তিনি। পরের ইনিংসেও ত্রাতা হয়ে আবির্ভাব ঘটে আবিদের। সেঞ্চুরি না হাঁকাতে পারলেও তাইজুলের বলে এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে ৯১ রান আউট হন এই ওপেনার।

তবে সেঞ্চুরি না পেলেও আবিদ আলি ও আবদুল্লাহ শফিকের এমন পেশাদার পারফরম্যান্সে মুগ্ধ পিসিবিপ্রধান রমিজ রাজা । টুইট করে তিনি বলেছেন, ‘ছেলেদের অভিনন্দন! এমন স্পিনবান্ধব উইকেটে ২০০ তাড়া করা একটা পরীক্ষা ছিল। রান তাড়ার কাজটা নিখুঁতভাবে তারা করেছে। আর প্রতিপক্ষের মাঠে জয় বরাবরই বিশেষ কিছু।’
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজ ঢাকা ২০২১