নারী দলকে ‘রাবিশ’ বলে তোপের মুখে আজহারউদ্দিন
jugantor
নারী দলকে ‘রাবিশ’ বলে তোপের মুখে আজহারউদ্দিন

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৮ আগস্ট ২০২২, ২২:১৪:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

রোববার বার্মিংহামের এজবাস্টনে কমনওয়েলথ গেমসের ফাইনালে আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৬১ রান করে অস্ট্রেলিয়া।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে মাত্র ৯ রানে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করে ভারতীয় নারী ক্রিকেট দল।

শিরোপার দুয়ারে গিয়ে হরমনপ্রিত কৌরের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দলের এমন পরাজয়ে রীতিমতো ক্ষুব্ধ ভারতের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন।

তিনি টুইটারে ভারতীয় নারী দলের ব্যাটিংয়ের সমালোচনা করতে গিয়ে ‘রাবিশ’ বলেছেন। নারী ক্রিকেট দলের ব্যাটিং কাণ্ডজ্ঞানহীন ছিল বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তার দাবি ‘জেতা ম্যাচ’ হেরেছে হরমনপ্রিতরা।

এমন টুইটের পর ভারতের সাবেক এই অধিনায়ককে রীতিমতো ধুয়ে দিয়েছেন নেটিজেনরা।

আজহারের মন্তব্যের নিচে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, আজহার যখন অধিনায়ক ছিলেন, তখন ভারত অস্ট্রেলিয়াকে কয়বার হারিয়েছিল!

২০০০ সালে ম্যাচ পাতানো-কাণ্ডে আজহার আজীবন নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। পরে নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছিল। শুধু আজহারই নন, ম্যাচ পাতানো-কাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে বিভিন্ন মেয়াদে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন অজয় জাদেজা আর মনোজ প্রভাকরও। পাকিস্তান তো কমিশন বসিয়ে আজীবন নিষিদ্ধ করেছিল সাবেক অধিনায়ক সেলিম মালিককে।

কমনওয়েলথ গেমসে ফাইনাল নিয়ে আজহারের টুইটের নিচে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। তার ম্যাচ পাতানোর ঘটনার ইঙ্গিত করে নেটিজেনরা লেখেন- ‘ওরা তো খেলে হেরেছে, তোমার মতো ম্যাচ তো আর পাতায়নি।’

নারী দলকে ‘রাবিশ’ বলে তোপের মুখে আজহারউদ্দিন

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৮ আগস্ট ২০২২, ১০:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রোববার বার্মিংহামের এজবাস্টনে কমনওয়েলথ গেমসের ফাইনালে আগে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৬১ রান করে অস্ট্রেলিয়া।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে মাত্র ৯ রানে হেরে শিরোপা হাতছাড়া করে ভারতীয় নারী ক্রিকেট দল। 

শিরোপার দুয়ারে গিয়ে হরমনপ্রিত কৌরের নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দলের এমন পরাজয়ে রীতিমতো ক্ষুব্ধ ভারতের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন।

তিনি টুইটারে ভারতীয় নারী দলের ব্যাটিংয়ের সমালোচনা করতে গিয়ে ‘রাবিশ’ বলেছেন। নারী ক্রিকেট দলের ব্যাটিং কাণ্ডজ্ঞানহীন ছিল বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তার দাবি ‘জেতা ম্যাচ’ হেরেছে হরমনপ্রিতরা। 

এমন টুইটের পর ভারতের সাবেক এই অধিনায়ককে রীতিমতো ধুয়ে দিয়েছেন নেটিজেনরা। 

আজহারের মন্তব্যের নিচে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, আজহার যখন অধিনায়ক ছিলেন, তখন ভারত অস্ট্রেলিয়াকে কয়বার হারিয়েছিল!

২০০০ সালে ম্যাচ পাতানো-কাণ্ডে আজহার আজীবন নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। পরে নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছিল। শুধু আজহারই নন, ম্যাচ পাতানো-কাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে বিভিন্ন মেয়াদে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন অজয় জাদেজা আর মনোজ প্রভাকরও। পাকিস্তান তো কমিশন বসিয়ে আজীবন নিষিদ্ধ করেছিল সাবেক অধিনায়ক সেলিম মালিককে।

কমনওয়েলথ গেমসে ফাইনাল নিয়ে আজহারের টুইটের নিচে অনেকেই মন্তব্য করেছেন। তার ম্যাচ পাতানোর ঘটনার ইঙ্গিত করে নেটিজেনরা লেখেন- ‘ওরা তো খেলে হেরেছে, তোমার মতো ম্যাচ তো আর পাতায়নি।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন