ইংল্যান্ডে টেস্ট সিরিজ না থাকা নিয়ে যা বলছে বিসিবি
jugantor
ইংল্যান্ডে টেস্ট সিরিজ না থাকা নিয়ে যা বলছে বিসিবি

  স্পোর্টস ডেস্ক  

১৭ আগস্ট ২০২২, ২৩:০৯:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

২০১০ সালের পর ইংল্যান্ডের মাঠে টেস্ট ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি বাংলাদেশ। ২০২৩ থেকে ২০২৭ সালের জন্য চার বছরের যে সফরসূচি হয়েছে তাতেও সেই সুযোগ নেই। তার মানে ১৭ বছরে ইংল্যান্ডের মাঠে বাংলাদেশের কোনো টেস্ট ম্যাচ নেই।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, আমরা আস্তে আস্তে এগোচ্ছি। আমাদের চেষ্টা থাকবে যে দেশগুলোতে আগে সফর ছিল না, সেগুলোতে করা। প্রায় সব দেশের সঙ্গে আমাদের খেলা আছে। সবাই বড় দলগুলোর সঙ্গে খেলতে চায়, একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবার সঙ্গে খেলা সম্ভবও নয়। যতটুকু সম্ভব হয়েছে, আমরা চেষ্টা করেছি।

তিনি আরও বলেন, গত এফটিপিতে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডে কোনো খেলা ছিল না। এবার অস্ট্রেলিয়ায় একটা সিরিজ নিশ্চিত করেছি। এরপর আমাদের লক্ষ্য থাকবে, যে দেশগুলাতে সফর নেই, পরের এফটিপিতে বা এই এফটিপির মধ্যেও সেই দেশগুলোতে সফর করা যায় কিনা।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন সময় বা পরিস্থিতিতে নানা কিছু ডেভেলপ করে। যেমন, বড় কোনো ইভেন্টের আগে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হোক বা ত্রিদেশীয় সিরিজ, আয়োজন করা হয়। সেই সুযোগ আছে। আরেকটা ব্যাপার মাথায় রাখতে হবে, এই সূচির বাইরেও কিন্তু আইসিসি ও এসিসি ইভেন্ট আছে। যথেষ্ট পরিমাণে ম্যাচ তাই আছে। চাইলেই ম্যাচ বাড়ানো ঠিক হবে না।

ইংল্যান্ডে টেস্ট সিরিজ না থাকা নিয়ে যা বলছে বিসিবি

 স্পোর্টস ডেস্ক 
১৭ আগস্ট ২০২২, ১১:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

২০১০ সালের পর ইংল্যান্ডের মাঠে টেস্ট ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি বাংলাদেশ। ২০২৩ থেকে ২০২৭ সালের জন্য চার বছরের যে সফরসূচি হয়েছে তাতেও সেই সুযোগ নেই। তার মানে ১৭ বছরে ইংল্যান্ডের মাঠে বাংলাদেশের কোনো টেস্ট ম্যাচ নেই।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, আমরা আস্তে আস্তে এগোচ্ছি। আমাদের চেষ্টা থাকবে যে দেশগুলোতে আগে সফর ছিল না, সেগুলোতে করা। প্রায় সব দেশের সঙ্গে আমাদের খেলা আছে। সবাই বড় দলগুলোর সঙ্গে খেলতে চায়, একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবার সঙ্গে খেলা সম্ভবও নয়। যতটুকু সম্ভব হয়েছে, আমরা চেষ্টা করেছি।

তিনি আরও বলেন, গত এফটিপিতে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডে কোনো খেলা ছিল না। এবার অস্ট্রেলিয়ায় একটা সিরিজ নিশ্চিত করেছি। এরপর আমাদের লক্ষ্য থাকবে, যে দেশগুলাতে সফর নেই, পরের এফটিপিতে বা এই এফটিপির মধ্যেও সেই দেশগুলোতে সফর করা যায় কিনা।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন সময় বা পরিস্থিতিতে নানা কিছু ডেভেলপ করে। যেমন, বড় কোনো ইভেন্টের আগে কোনো দ্বিপাক্ষিক সিরিজ হোক বা ত্রিদেশীয় সিরিজ, আয়োজন করা হয়। সেই সুযোগ আছে। আরেকটা ব্যাপার মাথায় রাখতে হবে, এই সূচির বাইরেও কিন্তু আইসিসি ও এসিসি ইভেন্ট আছে। যথেষ্ট পরিমাণে ম্যাচ তাই আছে। চাইলেই ম্যাচ বাড়ানো ঠিক হবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন