মোস্তাফিজের যে কথায় উজ্জীবিত হন মেহেদী
jugantor
মোস্তাফিজের যে কথায় উজ্জীবিত হন মেহেদী

  স্পোর্টস ডেস্ক  

০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫:৫৬:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতে হারিয়ে সিরিজে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল মিরপুরে টাইগারদের লড়াকু মনোভাব দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। দুই বন্ধুর দৃঢ়তায় রবীবাসরীয় জয় পেয়েছে বাংলাদেশ।

উইকেটে নেমে মোস্তাফিজের একটি কথা মনে ধরেছিল মেহেদী হাসান মিরাজের। পরে ১০ম উইকেটে দুজনে মিলে দলকে চূড়ান্ত বিজয় পর্যন্ত টেনে নিয়ে যান।

একপ্রান্তে মিরাজ, অন্যপ্রান্তে ১১ নম্বরে ব্যাট করতে নামা মোস্তাফিজ। বাংলাদেশের তখনও প্রয়োজন ৫১ রান।

১৮৭ তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশ তখন ঘোর বিপদে। শেষ স্বীকৃত ব্যাটার আফিফ হোসেন যখন বিদায় নিয়েছেন, স্বাগতিকদের দরকার ৫৩ রান। ইবাদত হোসেন ও হাসান মাহমুদ শূন্য রানে ফিরে যাওয়ার পরও মিরাজের বিশ্বাস টলেনি। ২৪ বল ও এক উইকেট হাতে রেখে বাংলাদেশ প্রথম ওডিআইতে ভারতকে হারিয়েছে মিরাজের ব্যাটিংয়ে।

জয়সূচক বাউন্ডারি এসেছে তার ব্যাট থেকেই। ম্যাচসেরা এই অলরাউন্ডার পরে বলেন, ‘হয়তো লোকে আমাকে পাগল বলবে। কিন্তু সত্যি আমার এই বিশ্বাস ছিল যে, আমরা জিততে পারি। আমি শুধু ম্যাচ জেতার ওপর ফোকাস করেছি। নিজেকে বারবার বলেছি, আমি পারব। ভেবেছিলাম আমি ইবাদতের সঙ্গে ১৫, হাসান মাহমুদের সঙ্গে ২০ এবং বাকি ১৫-২০ রান মোস্তাফিজকে সঙ্গে নিয়ে করে ফেলব। কিন্তু দ্রুত দুই উইকেট হারানোয় আমাকে ঝুঁকি নিতেই হতো। মোস্তাফিজের কথায় আমি আস্থা পাই। সে আমাকে বলে, ‘চিন্তা কোরো না। আমি আউট হব না।’

দুজনে শেষ উইকেটে ৫১ রানের অত্যাশ্চর্য জুটি গড়ে বাংলাদেশকে ১-০তে এগিয়ে দেন তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে।

মোস্তাফিজের যে কথায় উজ্জীবিত হন মেহেদী

 স্পোর্টস ডেস্ক 
০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতে হারিয়ে সিরিজে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল মিরপুরে টাইগারদের লড়াকু মনোভাব দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। দুই বন্ধুর দৃঢ়তায় রবীবাসরীয় জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। 

উইকেটে নেমে মোস্তাফিজের একটি কথা মনে ধরেছিল মেহেদী হাসান মিরাজের। পরে ১০ম উইকেটে দুজনে মিলে দলকে চূড়ান্ত বিজয় পর্যন্ত টেনে নিয়ে যান।

একপ্রান্তে মিরাজ, অন্যপ্রান্তে ১১ নম্বরে ব্যাট করতে নামা মোস্তাফিজ। বাংলাদেশের তখনও প্রয়োজন ৫১ রান। 

১৮৭ তাড়া করতে নেমে বাংলাদেশ তখন ঘোর বিপদে। শেষ স্বীকৃত ব্যাটার আফিফ হোসেন যখন বিদায় নিয়েছেন, স্বাগতিকদের দরকার ৫৩ রান। ইবাদত হোসেন ও হাসান মাহমুদ শূন্য রানে ফিরে যাওয়ার পরও মিরাজের বিশ্বাস টলেনি। ২৪ বল ও এক উইকেট হাতে রেখে বাংলাদেশ প্রথম ওডিআইতে ভারতকে হারিয়েছে মিরাজের ব্যাটিংয়ে। 

জয়সূচক বাউন্ডারি এসেছে তার ব্যাট থেকেই। ম্যাচসেরা এই অলরাউন্ডার পরে বলেন, ‘হয়তো লোকে আমাকে পাগল বলবে। কিন্তু সত্যি আমার এই বিশ্বাস ছিল যে, আমরা জিততে পারি। আমি শুধু ম্যাচ জেতার ওপর ফোকাস করেছি। নিজেকে বারবার বলেছি, আমি পারব। ভেবেছিলাম আমি ইবাদতের সঙ্গে ১৫, হাসান মাহমুদের সঙ্গে ২০ এবং বাকি ১৫-২০ রান মোস্তাফিজকে সঙ্গে নিয়ে করে ফেলব। কিন্তু দ্রুত দুই উইকেট হারানোয় আমাকে ঝুঁকি নিতেই হতো। মোস্তাফিজের কথায় আমি আস্থা পাই। সে আমাকে বলে, ‘চিন্তা কোরো না। আমি আউট হব না।’ 

দুজনে শেষ উইকেটে ৫১ রানের অত্যাশ্চর্য জুটি গড়ে বাংলাদেশকে ১-০তে এগিয়ে দেন তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশ-ভারত সিরিজ ২০২২