টাইগারদের সমালোচনায় তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া

  স্পোর্টস ডেস্ক ০৪ জুলাই ২০১৮, ২৩:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে লজ্জার ইতিহাস গড়লেন টাইগাররা। অ্যান্টিগা টেস্টের প্রথম ইনিংসে মাত্র ৪৩ রানেই অলআউট সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ দল।

২০০০ সালে টেস্ট খেলার মর্যাদা পাওয়ার পর এই প্রথম ৫০ রানের নিচে অলআউট হতে হল বাংলাদেশ দলকে।

এর আগে ২০০৭ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে ৬২ রানে অলআউট হয়েছিল টাইগাররা।

বুধবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের অ্যান্টিগার নর্থ সাউন্ডে টসে হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে চরম বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ দল। সময়ের ব্যবধানে উইকেট পড়ে যাওয়ায় ১৮.৪ ওভারে ৪৩ রানেই গুটিয়ে যায় সাকিববাহিনী।

টাইগারদের এমন বাজে পারফরম্যান্সের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় ওঠেছে।

জাতীয় দলের সাবেক কোচ জালাল আহমেদ চৌধুরী তার ফেসবুকে লেখেন, ‘মানছি এমন হতেই পারে,নতুন কিছু নয়।কিন্তু তাৎক্ষনিক লজ্জাটা ,জ্বালাটা,অপ্রতিরোধ্য। ছিলাম আচমকা বাউন্সের জুজুর ভয়ে কাতর কিন্তু রোচরা গতিময় সুয়িংয়েই কাত করে দিয়েছে।

চেনা উইকেটে ওরা কি করতে পারে জানা ছিলো। প্রতিরোধে যথাবিহিত ব্যাটিং করার প্রস্ততি আমরা নিতে পারিনি। গড়তে পারিনি নুন্যতম প্রতিরোধ।লজ্জাটা,বিব্রতবোধটা, এখানেই।

এন্টিগায় টেস্ট ইনিংস খেললাম না হাসির নাটকে অভিনয় করলাম বুঝতে পারছিনা। মনে হচ্ছিলো তাসের নয়, আরো পলকা কিছুতে তৈরী আমাদের ঘর। আবার নতুন বল নিয়ে গতি স্বল্পতায় নয়, ওদের সাবধানী ব্যাটিং কৌশলের কারণে ভয়ংকর হতে পারছিনা। যাইহোক,অপয়া সকালটার নির্দেশনা আমরা দ্রুত যেনো সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারি সেটাই চাইছি।

সময়ই করুক সময়ের দেনা শোধ।

বিশিষ্ট ক্রীড়া সাংবাদিক আরিফুর রহমান বাবু তার ফেসবুক পেজে লিখেছেন, ‘অসুবিধা নাই ক্রিকেট খেলাটাই এমন। নিজেগো খারাপ দিনে প্রতিকূল আর অনভ্যস্ত উইকেটে অনেক অপ্রত্যাশিত ঘটনাই ঘটে, যা হয়তো কল্পনায়ও আসে না। গ্যাব্রিয়েল, কেমার রোচ, কামিন্স আর হোল্ডারের বিপক্ষে আমরা মাত্র ৪৩ রানে অলআউট হমু এইটা হয়ত স্বপ্নেও ভাবি নাই। কিন্তু হার্শ রিয়্যালিটি, সেটাই এখন বাস্তব। ক্রিকেটে এমন কিছু বাজে দিন আসে। যেদিন মনে হয় আমার প্রিয় দলটা কিছুই পারে না।

কিন্তু এটাও সত্য, আসলে আমাদের দল তো আর এত খারাপ না। তাই যদি হইতো তাইলে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তীব্র শীত আর কনকনে ঠান্ডা বাতাসে ট্রেন্ট বোল্ট আর টীম সাউদীর বিপক্ষে আমরা ৫৯৫ রান করতে পারতাম না।

নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটনে আমরা কজন বাংলাদেশি সাংবাদিক প্রেসবক্সে বসে নিজ চোখে দেখেছি, সাকিব অল হাসান ও মুশফিকুর রহিমের দুর্দান্ত ব্যাটিং। সাকিবের ডাবল সেঞ্চুরি (২১৭) আর মুশফিকের (১৫৯)। কাজেই ক্রিকেটে খারাপ দিন আসেই।

আবার সেই কালমেঘ কেটে লাল সূর্য্যর দেখাও মেলে। আমরা সবাই দেখেছি আমাদের তামিম, লিটন, মুমিনুল, মুশফিক, সাকিব, মাহমুদউল্লাহ আর সোহান কেউই ভাল ব্যাটিং করেননি। বাট তারা যে ভাল ব্যাট করতে পারেন না, তাওতো নয়। হ্যা এটা সত্যি দেখতে খুব খারাপ লাগছে।

ঘাসের উইকেটে দ্রুত গতি আর দারুন সুইংয়ের মুখে আমাগো দৈন্যদশা আর দুর্বলতা ন্যাকেডলি এক্সপোজ্ড !!!!!!। নতুন কোচের জন্য এটা হতে পারে গুড ল্যাসন। এ ধরনের কন্ডিশনে আমাদের ব্যাটসম্যানদের সত্যিকার দুর্বলতা কতটা? তা নিজ চোখেই দেখে নিলেন।

তারপরও বলছি, নিউজিল্যান্ড, দ. আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, আর ভারতও আমাগো চেয়ে কম রানে অলআউট হইছে। এইতো পাঁচ বছর আগে ২০১৩ সালের ২ জানুয়ারি কেপটাউনে দ. আফ্রিকার কাছে মাত্র ৪৫ রানে অলআউট হইছিলো নিউজিল্যান্ড।

ফিলেন্ডার ৭ রানে পতন ঘটাইছিলেন ৫ উইকেটের। মরনে মরকেল পাইছিলেন ১৪ রানে ৩ টা আর ডেইল স্টেইন ২ টা ( ১৮ রানে )। পাঁচ বছর পরে আমরা না হয় দুই রান কমই করছি।’

বিশিষ্ট ক্রীড়া সাংকাদিক আরিফুল ইসলাম রনি লিখেছেন, ‘ছেলেবেলায় যখন আমরা খেলতাম, প্রথম বলে আউট হলে বলতাম, ওটা ‘ট্রাই’ বল। নতুন করে আবার শুরু...

অ্যান্টিগায় মনে হচ্ছে প্রথম ১০ ওভারই ট্রাই ওভারের দাবি তুলতে হবে... নতুন করে আবার শুরু...!

উইকেটে ঘাস, সাদা জায়গাগুলোয় কাট গ্রাস আছে। উইকেটে ময়েশ্চারও আছে, ওভারকাস্ট কন্ডিশন, বৃষ্টি হয়েছে, রোচ অসাধারণ বোলিং করেছেন। সবই ঠিক আছে। তার পরও ব্যাটসম্যানদের দায়ই বেশি। ভালো বোলিং হয়েছে, তবে সত্যি বলতে মাহমুদউল্লাহর বলটি ছাড়া কোনোটিই তো ততটা আনপ্লেয়েবল ছিল না…

দু:স্বপ্নের শুরু... আশা তো তবু ছাড়া যায় না। লিটন আর সোহানের ব্যাটে দারুণ কিছুর আশায়… (আপডেট: প্রথম ১০ ওভার না। সবই ছিল ‘ট্রাই’। টস থেকে শুরু করে সব আবার করতে হবে )।’

মিরাজুল ইসলাম সাব্বির নামে একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘কেমার রোচ মাত্র ৮রান দিয়ে ৫ উইকেট তুলে নিলো ,১৮ রান তুলতেই নেই ৫ উইকেট।অবাক করা ব্যাপার আসলে কি এমন আহামরি বোলিং সে করলো যে, আমাদের ব্যাটসম্যানদের খেলতে এতো অসুবিধে হলো।

আরে ভাই মনে হলো যে ২০০৩ সালের সেই টেস্ট ব্যাটিং দেখছি বাংলাদেশের, টেস্ট ক্রিকেটের শুরুতে বল সুইং করবে এটা স্বাভাবিক ব্যাপার, এটা যদি সামলাতে না পারো তাহলে টেস্ট কেনো খেলো।

তামিম, মমিনুল, মুসি, সাকিব, রিয়াদ, সবাই একই দোষ এ দোষি এ লজ্জা রাখি কোথায়!’

ঘটনাপ্রবাহ : বাংলাদেশ ট্যুর অব ওয়েস্ট ইন্ডিজ-২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter