ব্রাজিলের হারের ৫ কারণ

  যোবায়ের আহসান জাবের ০৭ জুলাই ২০১৮, ১৮:৪৭ | অনলাইন সংস্করণ

বল নিয়ে ডি বক্সের দিকে যাওয়া নেইমারকে আটকানোর চেষ্টা বেলজিয়াম ডিফেন্ডারের। ছবি: এএফপি
বল নিয়ে ডি বক্সের দিকে যাওয়া নেইমারকে আটকানোর চেষ্টা বেলজিয়াম ডিফেন্ডারের। ছবি: এএফপি

পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের হারে বিশ্বজুড়ে ফুটবলপ্রেমীদের মাঝে হাহাকার চলছে। লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলের সমর্থকদের স্বপ্ন ছিল হেক্সা জয়ের। পুরো ম্যাচে মুহুর্মুহু আক্রমণ চালিয়ে বেলজিয়ামকে সব সময় চাপে রাখলেও দিনশেষে হার নিয়েই কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই বিদায় নিতে হয়েছে তিতে শিষ্যদের।

অপ্রত্যাশিত এ পরাজয় নিয়ে চলছে চুলছেঁড়া বিশ্লেষণ। আসুন দেখে নেই কী কী কারণে বেলজিয়ামের বিপক্ষে জয়ের মুখ দেখতে পায়নি নেইমাররা।

এক.

বেলজিয়ামের গোলরক্ষক কুর্তোয়া অসাধারণ খেলেছেন এ ম্যাচে। বারবার রুখে দিয়েছেন ব্রাজিলের দুর্দান্ত সব আক্রমণ। নেইমার, কুতিনহো, ডগলাস কস্তারা যেভাবেই আক্রমণ গড়ুন না, শেষে কুর্তোয়াকে একবার ছাড়া হার মানানো যায়নি। অবশ্য বেলজিয়াম রক্ষণেও নির্ভরতা দিলেন ভিনেসন্ট কোম্পানিরা।

ব্রাজিলের নেয়া ৯টি গোল শট ফিরিয়ে দিয়েছেন ৬ ফুট ৬ ইঞ্চি লম্বা এ তারকা গোলকিপার। তার তীক্ষ্ণ মেধার কাছেই মূলত হেরে গেছে ব্রাজিল।

বিশ্বের অন্যতম সেরা গোলকিপার হিসেবে ধরা হয় তাকে। প্রিমিয়ার লিগে চেলসিয়ার পক্ষে ও লা লিগায় এটলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে দুইবার চ্যাম্পিয়ন করেছেন দলকে। বিশ্বকাপের বিশাল মঞ্চে ব্রাজিলের বিরুদ্ধে ৯টি দুর্দান্ত শট রুখে দিয়ে তিনি ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা ম্যাচ হিসেবেই একে দেখছেন।

দুই.

ব্রাজিল মানেই নৈপুণ্যের ঝলকানি। বল পায়ে রাখার জাদুকরী ভাবটা তেমন গেল না বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে, বরং; ভুল পাস হয়েছে অনেক। আর কোচ তিতেও দল বিকল্প কোনও স্ট্র্যাটেজিও দেখাতে পারল না।

তিন.

ব্রাজিলের রক্ষণ নিয়ে অনেক কথা বলা হচ্ছিল। এই ম্যাচের আগে পর্যন্ত মাত্র একটা গোল খেয়েছিলেন কাসেমিরো, থিয়াগো সিলভা, মিরান্ডাদের নিয়ে গড়া রক্ষণ। কিন্তু বেলজিয়াম ম্যাচে দেখা গেল রক্ষণের ভঙ্গুরতা। কিন্তু আগের দুই ম্যাচে হলুদ কার্ড পাওয়ার কারণে কাসেমিরো খেলতে পারেননি এ ম্যাচে। তার অভাবটা অনেকটাই প্রকট হয়েছে দুই গোল খাওয়ার মধ্য দিয়ে।

বিশেষ করে বেলজিয়ামের পাল্টা আক্রমণের সময় কাসেমিরোর জায়গায় ছিলেন মার্সেলো। কিন্তু তিনি বেলজিয়াম স্ট্রাইকারকে ব্যর্থ করে দিতে পারেননি। এ জায়গায় কাসেমিরো অনেক দক্ষ হিসেবে আগের ম্যাচগুলোতে প্রমাণ দিয়েছেলিন।

চার.

স্ট্রাইকার গ্যাব্রিয়েল জেসুস গোল করতে পারেননি পুরো প্রতিযোগিতায়। এ ম্যাচেও জেসুস অনেকগুলো গোল মিস করেছেন। কোথিনহোও মিস করেছেন সহজ কিছু সুযোগ। নেইমারের পা থেকে করা শটে কস্তা গোল ছাড়া কোনো সফলতাই আসেনি পুরো ম্যাচে।

ফেলাইনির হেডে বল পেয়ে যান লুকাকু। প্রায় মাঝমাঠ থেকে ম্যানইউর স্ট্রাইকার জনাদুয়েক মার্কারকে পেছনে ফেলে বক্সের বাইরে বল বাড়ান অরক্ষিত কেভিন ডি ব্র“ইনকে। এই মিডফিল্ডারের নিখুঁত শটে পরাস্ত হন অ্যালিসন। বেলজিয়াম স্কোরলাইন করে ২-০। জাতীয় দলের হয়ে এটি ডি ব্রুইনের ১৫তম গোল।

পাঁচ.

কার্ড সমস্যায় খেলতে পারেননি কাসেমিরো। আক্রমণ ও রক্ষণের মধ্যে ভারসাম্য রক্ষা করেন তিনি। তিনি খেলতে না পারায় মাঝমাঠে বিশাল শূন্যতা সৃষ্টি হয়। কাজিমিরোর পরিবর্তে আসা ফার্নান্দিনহো সেই অভাব ঢাকতে পারেননি; বরং তাঁর আত্মঘাতী গোলেই পিছিয়ে পড়ে ব্রাজিল। দ্বিতীয় গোলের ক্ষেত্রেও দায় অস্বীকার করতে পারেন না তিনি। তিনি ওই সময় এতো উপরে উঠার প্রয়োজন ছিল না। ফার্নান্দিনহোর ব্যর্থতাও হেক্সা মিশনে ব্যর্থ হয়ে যায় হলুদ শিবিরের এবারে বিশ্বজয়ের স্বপ্ন।

ঘটনাপ্রবাহ : বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter