ম্যাচসেরা হয়ে জন্মদিন রাঙালেন রশিদ খান
jugantor
ম্যাচসেরা হয়ে জন্মদিন রাঙালেন রশিদ খান

  স্পোর্টস ডেস্ক  

২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৬:১৩:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

একে একে পার করলেন ২০টি বসন্ত।  পা দিলেন ২১-এ।  বৃহস্পতিবার নিজের ২০তম জন্মদিন পালন করলেন ক্রিকেট ‘বিস্ময়’ রশিদ খান।  এদিন বাংলাদেশকে ১৩৬ রানে হারিয়ে তাকে জয় উপহার দিয়েছে আফগানিস্তান।  বলা বাহুল্য, ব্যাটে-বলে টাইগারদের উড়িয়ে নিজের জন্মদিনটা রাঙিয়েছেন তিনিই।

আগেই সুপার ফোর নিশ্চিত হওয়ায় ম্যাচটি ছিল নিয়মরক্ষার।  তবে সমশক্তির দল বলে কথা! হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখার প্রত্যাশায় ছিলেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।  কিন্তু কিসের কী? পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ। টাইগারদের স্রেফ উড়িয়ে দিল আফগানিস্তান।  এর নেপথ্য কারিগর রশিদ খান।  

আবুধাবিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ১৬০ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল আফগানিস্তান। এতে ২০০ পার হবে কি না-শংকা দেখা দেয়।  তবে সব শংকায় উবে যায় রশিদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে।  ব্যাটকে তলোয়ার বানিয়ে টাইগারদের বোলারদের কচুকাটা করেন তিনি। এ পথে তাকে যোগ্য সহযোদ্ধার সমর্থন দেন গুলবাদিন নাইব।

শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটেই ২৫৫ রান করে আফগানিস্তান।  রশিদ-নাইব, দু’জন মিলে অষ্টম  উইকেটে গড়েন ৫৭ বলে ৯৫ রানের জুটি।  ৩১ বলে হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন রশিদ।  শেষ পর্যন্ত তিনি অপরাজিত থাকেন ৩২ বলে ৫৭ রান করে।  এটি তার ক্যারিয়ারের তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি।  এ পথে ৮ চারের বিপরীতে ১ ছক্কা হাঁকান ‘ব্যাটসম্যান’ রশিদ।  আর তাকে দারুণভাবে সঙ্গ দিয়ে যাওয়া নাইব খেলেন হার না মানা ৪২ রানের ইনিংস।

জবাবে শুরু থেকে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশ এক পর্যায়ে সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটে মাথা তুলে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে।  তবে সেই পথ রূদ্ধ করে দেন রশিদ খান। টাইগার দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকেই বলির পাঁঠা বানান তিনি।  দুর্দান্ত গুগলিতে দু’জনকেই বোল্ড করে সাজঘরে ফেরত পাঠান এ লেগি।  এতে আফগানিস্তানের জয়ের পথও পরিস্কার হয়ে যায়। 

অনবদ্য এই পারফরম্যান্সে ম্যাচসেরার পুরস্কারও উঠেছে রশিদের হাতে।  একজন ক্রিকেটারের জন্মদিন এর চেয়ে আর কিভাবে ভালো কাটতে পারে?

ম্যাচসেরা হয়ে জন্মদিন রাঙালেন রশিদ খান

 স্পোর্টস ডেস্ক 
২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৬:১৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

একে একে পার করলেন ২০টি বসন্ত। পা দিলেন ২১-এ। বৃহস্পতিবার নিজের ২০তম জন্মদিন পালন করলেন ক্রিকেট ‘বিস্ময়’ রশিদ খান। এদিন বাংলাদেশকে ১৩৬ রানে হারিয়ে তাকে জয় উপহার দিয়েছে আফগানিস্তান। বলা বাহুল্য, ব্যাটে-বলে টাইগারদের উড়িয়ে নিজের জন্মদিনটা রাঙিয়েছেন তিনিই।

আগেই সুপার ফোর নিশ্চিত হওয়ায় ম্যাচটি ছিল নিয়মরক্ষার। তবে সমশক্তির দল বলে কথা! হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখার প্রত্যাশায় ছিলেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। কিন্তু কিসের কী? পাত্তাই পেল না বাংলাদেশ। টাইগারদের স্রেফ উড়িয়ে দিল আফগানিস্তান। এর নেপথ্য কারিগর রশিদ খান।

আবুধাবিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ১৬০ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল আফগানিস্তান। এতে ২০০ পার হবে কি না-শংকা দেখা দেয়। তবে সব শংকায় উবে যায় রশিদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে। ব্যাটকে তলোয়ার বানিয়ে টাইগারদের বোলারদের কচুকাটা করেন তিনি। এ পথে তাকে যোগ্য সহযোদ্ধার সমর্থন দেন গুলবাদিন নাইব।

শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটেই ২৫৫ রান করে আফগানিস্তান। রশিদ-নাইব, দু’জন মিলে অষ্টম উইকেটে গড়েন ৫৭ বলে ৯৫ রানের জুটি। ৩১ বলে হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন রশিদ। শেষ পর্যন্ত তিনি অপরাজিত থাকেন ৩২ বলে ৫৭ রান করে। এটি তার ক্যারিয়ারের তৃতীয় হাফসেঞ্চুরি। এ পথে ৮ চারের বিপরীতে ১ ছক্কা হাঁকান ‘ব্যাটসম্যান’ রশিদ। আর তাকে দারুণভাবে সঙ্গ দিয়ে যাওয়া নাইব খেলেন হার না মানা ৪২ রানের ইনিংস।

জবাবে শুরু থেকে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশ এক পর্যায়ে সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যাটে মাথা তুলে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে। তবে সেই পথ রূদ্ধ করে দেন রশিদ খান। টাইগার দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানকেই বলির পাঁঠা বানান তিনি। দুর্দান্ত গুগলিতে দু’জনকেই বোল্ড করে সাজঘরে ফেরত পাঠান এ লেগি। এতে আফগানিস্তানের জয়ের পথও পরিস্কার হয়ে যায়।

অনবদ্য এই পারফরম্যান্সে ম্যাচসেরার পুরস্কারও উঠেছে রশিদের হাতে। একজন ক্রিকেটারের জন্মদিন এর চেয়ে আর কিভাবে ভালো কাটতে পারে?