পোশাক কর্মীদের জীবনকে স্পর্শ করার জন্য কিছু ভালো উদ্যোগ দিতে পেরেছি : ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স
jugantor
পোশাক কর্মীদের জীবনকে স্পর্শ করার জন্য কিছু ভালো উদ্যোগ দিতে পেরেছি : ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪০:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজকীয় নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের আর্থিক সহায়তায় ২৮ সেপ্টেম্বর ‘ইনক্লুসিভ বিজনেস প্রোগ্রাম : অংশগ্রহণ এবং শিক্ষণীয়’ শিরোনামে ঢাকাস্থ একটি পাঁচতারকা হোটেলে এসএনভি নেদারল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন আয়োজিত ওয়ার্কিং উইথ উইমেন-২ প্রকল্পের সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়।

রাজকীয় নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের আর্থিক সহায়তায় ওয়ার্কিং উইথ উইমেন-২ প্রকল্পটি জানুয়ারি ২০১৮ থেকে সেপ্টেম্বর ২০২১ পর্যন্ত বাংলাদেশের পোশাক কর্মীদের উন্নত স্বাস্থ্যসেবা, সামাজিক সুরক্ষা এবং অধিকার নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে ইনক্লুসিভ বিজনেস মডেলের মাধ্যমে ছয়টি সহযোগী প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সমন্বিতভাবে সাফল্যের সঙ্গে বাস্তবায়ন করা হয়।

প্রায় তিন বছরব্যাপী এ প্রকল্পটির মাধ্যমে এসএনভি নেদারল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের পোশাক খাতের উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছে। দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠেীর একটি বড় অংশের পাশে দাঁড়াতে পেরেছে।

আরএমজি ইনক্লুসিভ বিজনেস প্রোগ্রামে স্বাগত বক্তব্য দেন টিএম লিডার ফারাহথীবা রাহাত খান। অংশীদার সংস্থার প্রতিনিধিরা প্রকল্পে তাদের অংশগ্রহণ এবং অর্জনগুলো ভাগ করে নেন।

বেসরকারি সংস্থা ফুলকি পোশাক কারখানায় এমএইচএম মডেল বাস্তবায়নের মাধ্যমে তাদের শিক্ষার ভাগ উপস্থাপনায় তুলে ধরেন। এ প্রসঙ্গে প্রজেক্ট ম্যানেজার মঞ্জুরি ব্যানার্জি বলেন, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে এ বছরের জুন পর্যন্ত আমরা সাড়ে তিন হাজার পোশাক কর্মীকে ওরিয়েন্টেশন করিয়েছি। পোশাক কর্মীদের কাজের দক্ষতা বাড়াতে ওয়েলফেয়ার ওরিয়েন্টেশন, মিড ম্যানেজমেন্ট প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে ১৫৮ জন নারী-পুরুষ কর্মচারীকে।

অ্যাসোসিয়েশন কাউন্সিলিং সেশন, প্যারা কাউন্সিলিং সেশন করানো হয়েছে। কোভিডের সময় পোশাক কারখানাগুলো বন্ধ থাকায় কাজ করা সময়সাপেক্ষ হয়ে গিয়েছিল। সে জন্য একটু থমকে গিয়েছিলাম। পরে দুটি কারখানায় ৫২ মিড ম্যানেজমেন্ট প্রশিক্ষণ করানো হয়েছে। তিনটি পোশাক কারখানায় ফ্যামিলি প্ল্যানিং কর্নার করা হয়েছে। স্যানিটারি ন্যাপকিন স্বস্তি, পুষ্টি ও মুক্তি নারী পোশাক কর্মীদের বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। পরে এটা স্বল্পমূল্যে কিনে তারা ব্যবহার করছেন। ছেলে পোশাক কর্মীরাও তার পরিবারের জন্য স্যানেটারি ন্যাপকিন, নারী পোশাক কর্মীরা কনডম নিচ্ছেন। তাদের মধ্যে জড়তা কমেছে।

সরকারি, এনজিও, বেসরকারি খাত, পোশাক কারখানা, ব্র্যান্ড, মিডিয়া এবং অন্যান্য উন্নয়ন অংশীদারদের ১৫০ জনেরও বেশি অংশগ্রহণকারী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন। বিআইএলএস কর্মস্থলের আইন ও নীতি সম্পর্কে বক্তারা অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন। অন্যান্য সংস্থার মধ্যে রয়েছে সাজিদা ফাউন্ডেশন, ইউসিইপি, আলফা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এবং প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড ইত্যাদি।

চা বিরতির পর অতিথিরা প্রতিটি স্টল পরিদর্শন করেন এবং বিভিন্ন যোগাযোগ উপকরণের মাধ্যমে অংশীদার সংস্থাগুলোর তথ্য সংগ্রহ করেন। ৬ বাস্তবায়নকারী অংশীদার নিজস্ব স্টলগুলোতে তাদের কাজ প্রদর্শন করে। ৩টি নতুন আইবি পাইলটের অন্তর্গত অন্যান্য স্টলের মধ্যে ছিল-এলা প্যাড, মনের বন্ধু এবং সিএমইডি।
২০১৯, ২০২০ এবং ২০২১-এর শুরুতে আরএমজি সেক্টরের কর্মীদের স্বাস্থ্য ও কল্যাণের জন্য একটি বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়েছিল। যেখানে প্রতিযোগিতামূলক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নতুন আইবি পাইলট নির্বাচন করা হয়েছিল।
এরপর স্বাস্থ্য বিমা প্লাস মডেল, পাওয়ার প্লাস মডেল এবং এমএইচএম মডেল বাস্তবায়নকারী কারখানার মুখপাত্ররা তাদের অভিজ্ঞতা এবং তারা যে সুবিধা পেয়েছেন তা তুলে ধরেন। এ ছাড়া এলা প্যাড, মনের বন্ধু এবং সিএমইডি তাদের কাজের উপস্থাপনা তুলে ধরেন।

এসএনভি বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স-এর সভাপতিত্বে ওয়ার্কিং উইথ উইমেন-২ প্রকল্পের উদ্যোগে আয়োজিত এ সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বিশেষ অতিথি ফ্যামিলি প্ল্যানিং (ডিজিএফপি) ডিরেক্টর জেনারেল; পরিচালক (ফিন্যান্স) এবং লাইন পরিচালক (এফপি-এফএসডি) মো. আমিনুল ইসলাম, বিজিএমইএর উপ-সভাপতি শহিদুল্লাহ আজিম, বাংলাদেশ নিটওয়্যার মেনুফ্যাক্চার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টসের (বিকেএমইএ) পরিচালক মোস্তফা জামাল পাশা প্রমুখ।

এসএনভি নেদারল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স বলেন, পোশাক খাতে অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যবসায়িক উদ্যোগ ২০১৮ সালের জুন মাসে ওয়ার্কিং উইথ উইমেন প্রকল্পের প্রথম ধাপের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল। এখন আমরা প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্ব বন্ধ করছি। সময় চলে যাচ্ছে ... কিন্তু আমি খুশি যে আমরা উলে­খযোগ্য পরিবর্তন আনতে পেরেছি। পোশাক কর্মীদের জীবনকে স্পর্শ করার জন্য কিছু ভালো উদ্যোগ দিতে পেরেছি। আমি নেদারল্যান্ডস কিংডমের দূতাবাসকে ধন্যবাদ জানাই এ কাজে আমাদের পাশে থাকার জন্য।

বিকেএমইএ পরিচালক মোস্তফা জামাল পাশা বলেন, কর্মীদের স্বাস্থ্য ও কল্যাণের জন্য উদ্যোগ নেওয়ার ক্ষেত্রে এসএনভি প্রশংসার দাবিদার। বিকেএমইএ-এর সঙ্গে সহযোগিতামূলকভাবে কাজ করার জন্য এসএনভিকে স্বাগত জানাই।

বিজিএমইএ ভাইস প্রেসিডেন্ট, শহিদুল্লাহ আজিমের মতে, পোশাক খাতে এসএনভির কাজ স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে সব সময় প্রশংসিত। বিজিএমইএ সব সময় শ্রমিকদের সুস্থতার উদ্যোগকে স্বাগত জানায় এবং শ্রমিকদের উন্নতির জন্য হস্তক্ষেপ অব্যাহত রাখবে।

নেদারল্যান্ডস কিংডমের দূতাবাসের সিনিয়র পলিসি অ্যাডভাইজার শ্রীমতি মুশফিকু জামান সতিয়ার গার্মেন্ট সেক্টরে এসআরএইচআর এজেন্ডাকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে এসএনভির নেতৃত্বকে সাধুবাদ জানান। তিনি বলেন, সব আইবি মডেলের গুরুত্ব সম্পর্কে কথা বলতে এসএনভি শুরু করেছে। স্টেকহোল্ডাররা সম্মিলিতভাবে মালিকানা এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং এর পরিধি বাড়ানোর ক্ষেত্রে কাজ করবে।

পরিবার পরিকল্পনা মহাপরিচালক, পরিচালক (অর্থ) এবং লাইন ডিরেক্টর আমিনুল ইসলাম বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন-এর সঙ্গে তাদের সহযোগিতার কথা তুলে ধরেন। কারখানা ডাক্তার এবং নার্সদের জন্য পরিবার পরিকল্পনা প্রশিক্ষণ প্রসারিত এবং পরিবার পরিকল্পনা পণ্য সরবরাহে তাদের সমর্থনের কথা জানান।

কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ১০টি কারখানাকে ক্রেস্ট দেওয়া হয়। আলফা ক্লোডিং, টুসুকা জিন্স লি., এভার স্মার্ট বাংলাদেশ লি., এনআর গ্রুপ, সিসিকেএল, অউকো-টেক্স গ্রুপ, সাউদার্ন গার্মেন্টস লি, সাউথ ইস্ট টেক্সটাইলস লিমিটেড, রেনেসাঁ অ্যাপারেলস লি. বিলস, সাজিদা ফাউন্ডেশন, ইউসিইপি বাংলাদেশ, ফুলকি, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড, আলফা লাইফ ইন্স্যুরেন্স ইত্যাদি।

পোশাক কর্মীদের জীবনকে স্পর্শ করার জন্য কিছু ভালো উদ্যোগ দিতে পেরেছি : ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজকীয় নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের আর্থিক সহায়তায় ২৮ সেপ্টেম্বর ‘ইনক্লুসিভ বিজনেস প্রোগ্রাম : অংশগ্রহণ এবং শিক্ষণীয়’ শিরোনামে ঢাকাস্থ একটি পাঁচতারকা হোটেলে এসএনভি নেদারল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন আয়োজিত ওয়ার্কিং উইথ উইমেন-২ প্রকল্পের সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়। 

রাজকীয় নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের আর্থিক সহায়তায় ওয়ার্কিং উইথ উইমেন-২ প্রকল্পটি জানুয়ারি ২০১৮ থেকে সেপ্টেম্বর ২০২১ পর্যন্ত বাংলাদেশের পোশাক কর্মীদের উন্নত স্বাস্থ্যসেবা, সামাজিক সুরক্ষা এবং অধিকার নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে ইনক্লুসিভ বিজনেস মডেলের মাধ্যমে ছয়টি সহযোগী প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সমন্বিতভাবে সাফল্যের সঙ্গে বাস্তবায়ন করা হয়। 

প্রায় তিন বছরব্যাপী এ প্রকল্পটির মাধ্যমে এসএনভি নেদারল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের পোশাক খাতের উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছে। দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠেীর একটি বড় অংশের পাশে দাঁড়াতে পেরেছে। 
 
আরএমজি ইনক্লুসিভ বিজনেস প্রোগ্রামে স্বাগত বক্তব্য দেন টিএম লিডার ফারাহথীবা রাহাত খান। অংশীদার সংস্থার প্রতিনিধিরা প্রকল্পে তাদের অংশগ্রহণ এবং অর্জনগুলো ভাগ করে নেন।

বেসরকারি সংস্থা ফুলকি পোশাক কারখানায় এমএইচএম মডেল বাস্তবায়নের মাধ্যমে তাদের শিক্ষার ভাগ উপস্থাপনায় তুলে ধরেন। এ প্রসঙ্গে প্রজেক্ট ম্যানেজার মঞ্জুরি ব্যানার্জি বলেন, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে এ বছরের জুন পর্যন্ত আমরা সাড়ে তিন হাজার পোশাক কর্মীকে ওরিয়েন্টেশন করিয়েছি। পোশাক কর্মীদের কাজের দক্ষতা বাড়াতে ওয়েলফেয়ার ওরিয়েন্টেশন, মিড ম্যানেজমেন্ট প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে ১৫৮ জন নারী-পুরুষ কর্মচারীকে। 

অ্যাসোসিয়েশন কাউন্সিলিং সেশন, প্যারা কাউন্সিলিং সেশন করানো হয়েছে। কোভিডের সময় পোশাক কারখানাগুলো বন্ধ থাকায় কাজ করা সময়সাপেক্ষ হয়ে গিয়েছিল। সে জন্য একটু থমকে গিয়েছিলাম। পরে দুটি কারখানায় ৫২ মিড ম্যানেজমেন্ট প্রশিক্ষণ করানো হয়েছে। তিনটি পোশাক কারখানায় ফ্যামিলি প্ল্যানিং কর্নার করা হয়েছে। স্যানিটারি ন্যাপকিন স্বস্তি, পুষ্টি ও মুক্তি নারী পোশাক কর্মীদের বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। পরে এটা স্বল্পমূল্যে কিনে তারা ব্যবহার করছেন। ছেলে পোশাক কর্মীরাও তার পরিবারের জন্য স্যানেটারি ন্যাপকিন, নারী পোশাক কর্মীরা কনডম নিচ্ছেন। তাদের মধ্যে জড়তা কমেছে।

সরকারি, এনজিও, বেসরকারি খাত, পোশাক কারখানা, ব্র্যান্ড, মিডিয়া এবং অন্যান্য উন্নয়ন অংশীদারদের ১৫০ জনেরও বেশি অংশগ্রহণকারী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন। বিআইএলএস কর্মস্থলের আইন ও নীতি সম্পর্কে বক্তারা অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন। অন্যান্য সংস্থার মধ্যে রয়েছে সাজিদা ফাউন্ডেশন, ইউসিইপি, আলফা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এবং প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড ইত্যাদি।

চা বিরতির পর অতিথিরা প্রতিটি স্টল পরিদর্শন করেন এবং বিভিন্ন যোগাযোগ উপকরণের মাধ্যমে অংশীদার সংস্থাগুলোর তথ্য সংগ্রহ করেন। ৬ বাস্তবায়নকারী অংশীদার নিজস্ব স্টলগুলোতে তাদের কাজ প্রদর্শন করে। ৩টি নতুন আইবি পাইলটের অন্তর্গত অন্যান্য স্টলের মধ্যে ছিল-এলা প্যাড, মনের বন্ধু এবং সিএমইডি। 
২০১৯, ২০২০ এবং ২০২১-এর শুরুতে আরএমজি সেক্টরের কর্মীদের স্বাস্থ্য ও কল্যাণের জন্য একটি বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়েছিল। যেখানে প্রতিযোগিতামূলক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নতুন আইবি পাইলট নির্বাচন করা হয়েছিল। 
এরপর স্বাস্থ্য বিমা প্লাস মডেল, পাওয়ার প্লাস মডেল এবং এমএইচএম মডেল বাস্তবায়নকারী কারখানার মুখপাত্ররা তাদের অভিজ্ঞতা এবং তারা যে সুবিধা পেয়েছেন তা তুলে ধরেন। এ ছাড়া এলা প্যাড, মনের বন্ধু এবং সিএমইডি তাদের কাজের উপস্থাপনা তুলে ধরেন।

এসএনভি বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স-এর সভাপতিত্বে ওয়ার্কিং উইথ উইমেন-২ প্রকল্পের উদ্যোগে আয়োজিত এ সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বিশেষ অতিথি ফ্যামিলি প্ল্যানিং (ডিজিএফপি) ডিরেক্টর জেনারেল; পরিচালক (ফিন্যান্স) এবং লাইন পরিচালক (এফপি-এফএসডি) মো. আমিনুল ইসলাম, বিজিএমইএর উপ-সভাপতি শহিদুল্লাহ আজিম, বাংলাদেশ নিটওয়্যার মেনুফ্যাক্চার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টসের (বিকেএমইএ) পরিচালক মোস্তফা জামাল পাশা প্রমুখ। 

এসএনভি নেদারল্যান্ডস ডেভেলপমেন্ট বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ইসমিন আর.এ.সি. স্ট্যালপার্স বলেন, পোশাক খাতে অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যবসায়িক উদ্যোগ ২০১৮ সালের জুন মাসে ওয়ার্কিং উইথ উইমেন প্রকল্পের প্রথম ধাপের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল। এখন আমরা প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্ব বন্ধ করছি। সময় চলে যাচ্ছে ... কিন্তু আমি খুশি যে আমরা উলে­খযোগ্য পরিবর্তন আনতে পেরেছি। পোশাক কর্মীদের জীবনকে স্পর্শ করার জন্য কিছু ভালো উদ্যোগ দিতে পেরেছি। আমি নেদারল্যান্ডস কিংডমের দূতাবাসকে ধন্যবাদ জানাই এ কাজে আমাদের পাশে থাকার জন্য। 
 
বিকেএমইএ পরিচালক মোস্তফা জামাল পাশা বলেন, কর্মীদের স্বাস্থ্য ও কল্যাণের জন্য উদ্যোগ নেওয়ার ক্ষেত্রে এসএনভি প্রশংসার দাবিদার। বিকেএমইএ-এর সঙ্গে সহযোগিতামূলকভাবে কাজ করার জন্য এসএনভিকে স্বাগত জানাই।

বিজিএমইএ ভাইস প্রেসিডেন্ট, শহিদুল্লাহ আজিমের মতে, পোশাক খাতে এসএনভির কাজ স্টেকহোল্ডারদের মধ্যে সব সময় প্রশংসিত। বিজিএমইএ সব সময় শ্রমিকদের সুস্থতার উদ্যোগকে স্বাগত জানায় এবং শ্রমিকদের উন্নতির জন্য হস্তক্ষেপ অব্যাহত রাখবে।

নেদারল্যান্ডস কিংডমের দূতাবাসের সিনিয়র পলিসি অ্যাডভাইজার শ্রীমতি মুশফিকু জামান সতিয়ার গার্মেন্ট সেক্টরে এসআরএইচআর এজেন্ডাকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে এসএনভির নেতৃত্বকে সাধুবাদ জানান। তিনি বলেন, সব আইবি মডেলের গুরুত্ব সম্পর্কে কথা বলতে এসএনভি শুরু করেছে। স্টেকহোল্ডাররা সম্মিলিতভাবে মালিকানা এগিয়ে নিয়ে যাওয়া এবং এর পরিধি বাড়ানোর ক্ষেত্রে কাজ করবে।

পরিবার পরিকল্পনা মহাপরিচালক, পরিচালক (অর্থ) এবং লাইন ডিরেক্টর আমিনুল ইসলাম বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন-এর সঙ্গে তাদের সহযোগিতার কথা তুলে ধরেন। কারখানা ডাক্তার এবং নার্সদের জন্য পরিবার পরিকল্পনা প্রশিক্ষণ প্রসারিত এবং পরিবার পরিকল্পনা পণ্য সরবরাহে তাদের সমর্থনের কথা জানান।

কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ১০টি কারখানাকে ক্রেস্ট দেওয়া হয়। আলফা ক্লোডিং, টুসুকা জিন্স লি., এভার স্মার্ট বাংলাদেশ লি., এনআর গ্রুপ, সিসিকেএল, অউকো-টেক্স গ্রুপ, সাউদার্ন গার্মেন্টস লি, সাউথ ইস্ট টেক্সটাইলস লিমিটেড, রেনেসাঁ অ্যাপারেলস লি. বিলস, সাজিদা ফাউন্ডেশন, ইউসিইপি বাংলাদেশ, ফুলকি, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড, আলফা লাইফ ইন্স্যুরেন্স ইত্যাদি।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন