ইন্টারনেট ডেটা থেকে বাংলালিংকের আয় ৭২৫ কোটি টাকা

প্রকাশ : ১৩ মার্চ ২০১৯, ১৪:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

  এম. মিজানুর রহমান সোহেল

২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে ডেটা থেকে ১৪.৯৪% বেশি আয় করেছে বাংলালিংক। ছবি: যুগান্তর

গত কয়েক বছরে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের বেশিরভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী যেহেতু মূলত মোবাইলের মাধ্যমেই ইন্টারনেট ব্যবহার করেন, সেহেতু ডেটা থেকে মোবাইল অপারেটরদের আয়ও বৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখযোগ্য মাত্রায়। 

বাংলালিংকের স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান ভিওনের ২০১৮-এর বার্ষিক ও চতুর্থ প্রান্তিকের প্রতিবেদনেও প্রতিফলিত হয়েছে বিষয়টি। ভিওনের প্রতিবেদন অনুসারে, ২০১৮ সালে বাংলালিংক ডেটা থেকে মোট আয় করেছে ৭২৫ কোটি টাকা, যা অপারেটরটির ২০১৭ সালে ডেটা থেকে করা আয়ের চেয়ে ১৪.৯৪% বেশি। 

এছাড়া ২০১৮-এর চতুর্থ প্রান্তিকে ডেটা থেকে বাংলালিংকের আয় ২০১৭ সালের চতুর্থ প্রান্তিকের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে ২৫.২%। ২০১৭ সালের এই প্রান্তিকে বাংলালিংকের গ্রাহক প্রতি ডেটা ব্যবহারের পরিমাণ ছিল ৫৮০ মেগাবাইট। ২০১৮ সালের একই প্রান্তিকে গড় ডেটা ব্যবহারের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ১০২৪ মেগাবাইটে।

ডেটা থেকে প্রাপ্ত আয় বৃদ্ধির প্রভাব বাংলালিংকের চতুর্থ প্রান্তিকের মোট আয়ের ক্ষেত্রেও ভূমিকা রেখেছে। ভিওনের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৭ সালের চতুর্থ প্রান্তিকের তুলনায় ২০১৮ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে বাংলালিংকের মোট আয় বৃদ্ধি পেয়েছে ১.২৯% এবং গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৩.১%। 

এ ব্যাপারে বাংলালিংকের চিফ কর্পোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার তাইমুর রহমান বলেন, দেশের প্রযুক্তিগত উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে। ব্যবহারকারীদের এই ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বাংলালিংক। 

তিনি বলেন, গত বছর আমরা ফোরজি সেবা চালু করার পাশাপাশি সর্বোচ্চ পরিমাণ স্পেকট্রাম ক্রয় করেছি। এর ফলে বাংলালিংকের ইন্টারনেট সেবার মান আরও উন্নত হয়েছে। ইন্টারনেট থেকে বাংলালিংকের বাৎসরিক ও প্রান্তিক আয় বৃদ্ধি আমাদের এই প্রচেষ্টার সাফল্যকেই প্রতিফলিত করে।

বিটিআরসির তথ্য অনুসারে দেশে মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৯ কোটি ছাড়িয়েছে। এই বিপুল সংখ্যক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৯৩% শতাংশই মোবাইলের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করে। 

দেশে ফোরজি নেটওয়ার্ক সম্প্রসারিত হলে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ডেটা থেকে অপারেটরদের আয় আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করেন তাইমুর রহমান। বিষয়টিকে সামগ্রিকভাবে টেলিকম খাতের ডিজিটাল রূপান্তরের একটি প্রভাব হিসেবে বিবেচনা করছেন তিনি।