বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’
jugantor
বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’

  আইটি ডেস্ক  

১৭ জুন ২০১৯, ১২:২৯:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। অতীতের সব বাজেটকে ছাপিয়ে বেড়েছে বাজেটের আকার, বেড়েছে প্রত্যাশা। বহুল প্রত্যাশিত বাজেটে অন্যান্য খাতের মত আইসিটি খাতেও বেড়েছে বরাদ্দ। বিগত অর্থ বছরের তুলনায় যা দুই হাজার ৬৬২ কোটি টাকা বেশি, প্রায় ১৫ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকা।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে অধিক বরাদ্দের বিবেচনায় নিয়ে প্রণীত এই বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের সংগঠন ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’।

আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশের আহবায়ক লিয়াকত হোসাইন বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অঙ্গীকার নিয়ে ২০০৮ সালে যাত্রার শুরু থেকেই ধারাবাহিকভাবে আওয়ামী লীগ সরকার তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আসছে।

এই বাজেটে আরও বেশি বরাদ্দ, আরও ব্যাপক দিক নির্দেশনা ও আইসিটি সেক্টরের জন্য সুস্পষ্ট কর্মপরিকল্পনা অন্তর্ভুক্তির জন্য মাননীয় তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় ও মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলককে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান তিনি।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা মাথায় রেখে তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক জনবল ও অবকাঠামো গড়ে তোলার লক্ষ্যে বাজেটে যে দিক নির্দেশনা রয়েছে তিনি তারও প্রশংসা করেন।

স্টার্টাপ কোম্পানিগুলোর জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের সুপারিশ রাখার প্রশংসা করেছেন আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশের যুগ্ম আহবায়ক ও সংসদ সদস্য সৈয়দা রুবিনা আক্তার মিরা। এই বরাদ্দ হাজারো তরুণ তথ্য প্রযুক্তি উদ্যোক্তাকে স্বপ্ন দেখাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তাছাড়া সামগ্রিকভাবে সরকারের প্রতিটা বিভাগকেই তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আরও বেশি গতিশীল করার যে প্রতিশ্রুতি বাজেটে রয়েছে তিনি তারও প্রশংসা করেন। একই সঙ্গে, যুগোপযোগী একটি উন্নয়নমূলক বাজেট হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন তিনি।

এদিকে আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশের কার্যকরী সদস্যরা বাজেটে সম্ভাবনাময় নবীন খাত ই-কমার্সের উপর ৭.৫% মূসক বসানোর প্রস্তাবনাকে পুনরায় সরকার ভেবে দেখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তারা বিশ্বাস করেন আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের সরকার তাই সর্বশেষ সিদ্ধান্ত সরকার যেটা নিবে সেটা পুরোপুরিভাবে দেশের মানুষের মঙ্গলার্থেই নেয়া হবে।

বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’

 আইটি ডেস্ক 
১৭ জুন ২০১৯, ১২:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’
বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। অতীতের সব বাজেটকে ছাপিয়ে বেড়েছে বাজেটের আকার, বেড়েছে প্রত্যাশা। বহুল প্রত্যাশিত বাজেটে অন্যান্য খাতের মত আইসিটি খাতেও বেড়েছে বরাদ্দ। বিগত অর্থ বছরের তুলনায় যা দুই হাজার ৬৬২ কোটি টাকা বেশি, প্রায় ১৫ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকা।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে অধিক বরাদ্দের বিবেচনায় নিয়ে প্রণীত এই বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের সংগঠন ‘আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশ’। 

আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশের আহবায়ক লিয়াকত হোসাইন বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের অঙ্গীকার নিয়ে ২০০৮ সালে যাত্রার শুরু থেকেই ধারাবাহিকভাবে আওয়ামী লীগ সরকার তথ্যপ্রযুক্তি খাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আসছে। 

এই বাজেটে আরও বেশি বরাদ্দ, আরও ব্যাপক দিক নির্দেশনা ও আইসিটি সেক্টরের জন্য সুস্পষ্ট কর্মপরিকল্পনা অন্তর্ভুক্তির জন্য মাননীয় তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় ও মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলককে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান তিনি। 

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের কথা মাথায় রেখে তথ্যপ্রযুক্তি ভিত্তিক জনবল ও অবকাঠামো গড়ে তোলার লক্ষ্যে বাজেটে যে দিক নির্দেশনা রয়েছে তিনি তারও প্রশংসা করেন।

স্টার্টাপ কোম্পানিগুলোর জন্য ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের সুপারিশ রাখার প্রশংসা করেছেন আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশের যুগ্ম আহবায়ক ও সংসদ সদস্য সৈয়দা রুবিনা আক্তার মিরা। এই বরাদ্দ হাজারো তরুণ তথ্য প্রযুক্তি উদ্যোক্তাকে স্বপ্ন দেখাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 

তাছাড়া সামগ্রিকভাবে সরকারের প্রতিটা বিভাগকেই তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আরও বেশি গতিশীল করার যে প্রতিশ্রুতি বাজেটে রয়েছে তিনি তারও প্রশংসা করেন। একই সঙ্গে, যুগোপযোগী একটি উন্নয়নমূলক বাজেট হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন তিনি। 

এদিকে আমরাই ডিজিটাল বাংলাদেশের কার্যকরী সদস্যরা বাজেটে সম্ভাবনাময় নবীন খাত ই-কমার্সের উপর ৭.৫% মূসক বসানোর প্রস্তাবনাকে পুনরায় সরকার ভেবে দেখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তারা বিশ্বাস করেন আওয়ামী লীগ সরকার উন্নয়নের সরকার তাই সর্বশেষ সিদ্ধান্ত সরকার যেটা নিবে সেটা পুরোপুরিভাবে দেশের মানুষের মঙ্গলার্থেই নেয়া হবে।