বেসিস নির্বাচনে একটিই প্যানেল!

  এম. মিজানুর রহমান সোহেল ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০২:৫৫ | অনলাইন সংস্করণ

বেসিস নির্বাচনে একটিই প্যানেল!

চলতি বছরের ৩১ মার্চ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বাণিজ্য সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন হওয়ার কথা। ইতিমধ্যে নির্বাচন পরিচালনা পর্ষদ এমনই ঘোষণা দিয়েছেন। তবে এই নির্বাচন পদ্ধতি কী হবে? একক নাকি একাধিক প্যানেল হবে সে বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

গত ৩ ডিসেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপনের (এস, আর, ও নং ৩৩৬-আইন/২০১৭) মাধ্যমে বাণিজ্য সংগঠন বিধিমালাতে পরিবর্তন আনে। সেখানে ফেডারেশন ব্যতিত অন্যান্য বাণিজ্য সংগঠনের কার্যনির্বাহী কমিটির মেয়াদ দুই বছর করার ও কার্যনির্বাহী কমিটিতে কোনো ব্যক্তি একাধারে দুই মেয়াদের অধিক নির্বাচিত হতে পারবেন না বলে নির্দেশনা দেওয়া হয়।

তবে সংগঠনগুলোর আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৭ ডিসেম্বর বাণিজ্যমন্ত্রী এসআরও ৩৩৬-আইন/ ২০১৭ সংশোধন করে আগের বিধান (বিলুপ্ত বিধি ২১) বহাল রাখতে বাণিজ্যসচিব ও ডিটিওকে মৌখিক নির্দেশনা প্রদান করেন। ফলে কার্যনির্বাহী কমিটিতে কোনো ব্যক্তি একাধারে দুই মেয়াদের অধিক নির্বাচিত হলেও পুনরায় নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ পাবেন।

গত ১১ জানুয়ারি এ তথ্য বেসিসসহ সব বাণিজ্য সংগঠনকে চিঠি দিয়ে জানায় বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশন এফবিসিসিআই। ফলে বেসিসের আগামী নির্বাচনে আগের দুই কার্যনির্বাহী কমিটিতে থাকা সদস্যরাও অংশ নিতে পারবেন। তবে কোন নিয়মে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এখন পর্যন্ত সেটি ঘোষণা দেয়নি বেসিসের নির্বাচন পরিচালনা বোর্ড।

এর আগে ২০১৬ সালের ২৫ জুন বেসিসে প্রথমবারের মতো তিন বছর মেয়াদি কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন হয়। প্রতি এক বছর শেষে তিন জন বা এক-তৃতীয়াংশ পরিচালকের অবসরে যাওয়ার কথা এবং শূন্য তিন পদে নতুন নির্বাচন হওয়ার কথা। বিষয়টি বেসিসের সংঘবিধিতে উল্লেখ ছিল।

তখন স্ব-ইচ্ছায় নির্বাহী কমিটি থেকে কেউ কেউ পদত্যাগ না করায় লটারি হয়। এরপর তৎকালীন বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার ডিটিওর কাছে আবেদন করেন লটারি নয়; জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে তিনজন যেন পদত্যাগ করেন। ডিটিও উভয় পক্ষের শুনানি শেষে বেসিসের সংঘবিধি সংশোধন করে সব পদে দুই বছর মেয়াদে নির্বাচন করার নির্দেশ দেন।

এরপর বেসিস অতিরিক্ত সাধারণ সভার (ইজিএম) মাধ্যমে সংঘবিধি সংশোধন করে। সেটি ডিটিওর অনুমোদনের পর দুই বছর মেয়াদি কমিটি গঠনের জন্য ৩১ মার্চের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন পরিচালনা পরিষদ।

প্রসঙ্গত, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর বেসিসের সভাপতির পদ থেকে গত ১০ জানুয়ারি পদত্যাগ করেন। সভাপতির শূন্য পদে সৈয়দ আলমাস কবীরকে সভাপতি পদে নির্বাচিত করা হয় এবং পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন দেলোয়ার হোসেন ফারুক।

বেসিসের পরবর্তী নির্বাচন প্রসঙ্গে দেলোয়ার হোসেন ফারুক যুগান্তরকে বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ এবং তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে এগিয়ে নেয়ার জন্য বেসিস নির্বাচন হবে। আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকতে চাই। এ জন্য বেসিস নির্বাচন একটিই প্যানেল হবে। তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের স্বার্থে প্যানেল একটি হওয়া উচিত।

ঘটনাপ্রবাহ : বেসিস নির্বাচন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.